উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion 2021 | WiN EXAM

0
57
উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন 2020 | Higher Secondary Bengali Suggestion 2020 | WiN EXAM

উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion | WBCHSE HS Bengali Suggestion

উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion নিচে দেওয়া হল। এই প্রশ্নোত্তর এবার উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা (Higher Secondary Bengali / WBCHSE HS Bengali)  পরীক্ষার জন্য খুব ইম্পর্টেন্ট । আপনারা যারা উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion Question and Answer খুঁজে চলেছেন, তারা নিচে দেওয়া প্রশ্ন ও উত্তর ভালো করে পড়তে পারেন। 

গল্প | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

কে বাঁচায়, কে বাঁচে ! – গল্প | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [ মান ১ ]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. মৃত্যুঞ্জয়ের প্রতি নজর রাখার জন্য টুনুর মা কার কাছে। কাতর অনুরোধ করেন ?
(ক) প্রতিবেশীর কাছে (খ) নিখিলের কাছে (গ) অফিসের বড়োবাবুর কাছে (ঘ) ডাক্তারের কাছে

উত্তরঃ (খ) নিখিলের কাছে

2. মৃত্যুঞ্জয় রোজ অফিসে যায়—
(ক) বাসে করে (খ) ট্রামে চেপে (গ) পায়ে হেঁটে (ঘ) নিজের গাড়িতে

উত্তরঃ (খ) ট্রামে চেপে

3. মৃত্যুঞ্জয়ের বাড়ির বাজার ও কেনাকাটা করে—
(ক) মৃত্যুঞ্জয় নিজে (খ) তার ভাই ও চাকর (গ) টুনুর মা (ঘ) মৃত্যুঞ্জয় ও তার চাকর

উত্তরঃ (খ) তার ভাই ও চাকর

4. ফুটপাথে ব্যক্তিটির মৃত্যুর কারণ—
(ক) রোগ (খ) দুর্ঘটনা (গ) খাদ্যে বিষক্রিয়া (ঘ) অনাহার

উত্তরঃ (ঘ) অনাহার

5. মৃত্যুঞ্জয় অফিসে ঠিকমতো না এসে কোথায় যায়?
(ক) বাজারে (খ) আত্মীয়ের বাড়িতে (গ) নিজের। বাড়িতে (ঘ) শহরের ফুটপাথে ঘুরে বেড়ায়

উত্তরঃ (ঘ) শহরের ফুটপাথে ঘুরে বেড়ায়

6. মৃত্যুঞ্জয়ের বাড়িতে থাকে—
(ক) দশ জন লোক (খ) পাঁচ জন লোক (গ) সাত জন লোক (ঘ) ন’জন লোক

উত্তরঃ (ঘ) ন’জন লোক

7 “গাঁ থেকে এইচি। খেতে পাই নে বাবা। আমায় খেতে দাও।” কথাগুলো বলেছে
(ক) টুনুর মা (খ) মৃত্যুঞ্জয় (গ) নিখিল (ঘ) মৃত্যুঞ্জয়ের ছেলে-মেয়েরা

উত্তরঃ (খ) মৃত্যুঞ্জয়

8. নিখিল রোগা, তীক্ষ্ণবুদ্ধি এবং একটু
(ক) আলসে প্রকৃতির লোক (খ) সাহসী প্রকৃতির লোক (গ) ভীরু প্রকৃতির লোক (ঘ) চালাক প্রকৃতির লোক

উত্তরঃ (ক) আলসে প্রকৃতির লোক

9. নিখিল কার কাছে মাঝে মাঝে কাবু হয়ে যায় ?
(ক) মৃত্যুঞ্জয়ের কাছে (খ) অফিসের অন্যান্যদের কাছে (গ) তার স্ত্রীর কাছে (ঘ) অফিসের বড়োবাবুর কাছে

উত্তরঃ (ক) মৃত্যুঞ্জয়ের কাছে

10. সেদিন কোথায় যাবার পথে মৃত্যুঞ্জয় প্রথম মৃত্যু দেখে ?
(ক) বাজার (খ) নিখিলদের বাড়ি (গ) অফিস (ঘ) বাড়ি ফেরার পথে

উত্তরঃ (গ) অফিস

11. “ফুটপাথে হাঁটা তার বেশি প্রয়োজন হয় না”- কার। প্রয়োজন হয় না ?
(ক) নিখিলের (খ) টুনুর মা (গ) মৃত্যুঞ্জয়ের (ঘ) টুনুর

উত্তরঃ (গ) মৃত্যুঞ্জয়ের

12. নিখিল অবসর জীবন কীভাবে কাটাতে চায়?
(ক) দুস্থ মানুষের সেবা করে (খ) দেশ-বিদেশ ভ্রমণ করে (গ) গান শুনে ও নাটক দেখে (ঘ) বই পড়ে আর একটা চিন্তার জগৎ গড়ে তুলে

উত্তরঃ (ঘ) বই পড়ে আর একটা চিন্তার জগৎ গড়ে তুলে

13. মৃত্যুঞ্জয়ের ধুলিমলিন সিল্কের জামা এখন
(ক) পরিচ্ছন্ন হয়েছে (খ) ছিড়ে গেছে (গ) অদৃশ্য হয়েছে (ঘ) নতুন হয়েছে।

উত্তরঃ (গ) অদৃশ্য হয়েছে

14. ‘গ্রুয়েল’ কথাটির অর্থ হলো—
(ক) এক ধরনের টনিক (খ) ভাতের ফ্যান (গ) ফলের সরবত (ঘ) সুস্বাদু খাবার

উত্তরঃ (খ) ভাতের ফ্যান

15. মৃত্যুঞ্জয়ের প্রকৃত বন্ধুর নাম হলো—
(ক) কৈলাস (খ) মানিক (গ) নিখিল (ঘ) সুব্রত

উত্তরঃ (গ) নিখিল

16. “কয়েক মিনিটে মৃত্যুঞ্জয়ের সুস্থ শরীরটা অসুস্থ হয়ে গেল। কারণ—
(ক) অফিসে কাজের প্রবল চাপ ছিল (খ) প্রচণ্ড গরমের মধ্যে হেঁটে সে অফিসে এসেছিল (গ) প্রথমবার অনাহারে মৃত্যু দেখে সে প্রবল আঘাত পেয়েছিল (ঘ) বেশি খাবার খেয়ে ফেলায় তার বমি হচ্ছিল

উত্তরঃ (গ) প্রথমবার অনাহারে মৃত্যু দেখে সে প্রবল আঘাত পেয়েছিল
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [মান ১]

1. টুনুর মা বিছানায় পড়ে থেকে বাড়ির লোকদের কীভাবে মৃত্যুঞ্জয়ের খোজ নিতে পাঠান ?

উত্তরঃ টুনুর মা বিছানায় পড়ে থেকে বাড়ির ছেলে, বুড়ো সকলকে তাগাদা দিয়ে মৃত্যুঞ্জয়ের খোঁজ নিতে পাঠান।

2. “মরে গেল! না খেয়ে মরে গেল’– কার উক্তি এবং কে মরে গেল?

উত্তরঃ উক্তিটি মৃত্যুঞ্জয়ের। একজন ফুটপাথবাসী বুভুক্ষু মানুষ অনাহারে মরে গেল।

3. “তখন সে রীতিমতো কাবু হয়ে পড়েছে”– সে কাবু হয়ে পড়েছিল কেন ?

উত্তরঃ পঞ্চাশের দুর্ভিক্ষের দিনে অফিসকর্মী মৃত্যুঞ্জয় প্রথম পথে এক অনাহারে মৃত্যুর দৃশ্য দেখে মানসিক আঘাত পেয়ে কাবু হয়ে পড়েছিল।

4. “এ অপরাধের প্রায়শ্চিত্ত কি?” অপরাধটা কী?

উত্তরঃ মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় রচিত ‘কে বাঁচায়, কে বাঁচে! গল্পে দেখা যায়, মানুষ অনাহারে ভুগছে আর মৃত্যুঞ্জয় এই দুরবস্থার সময়েও চারবেলা পেটভরে খেয়েছে। সে এটাকেই অপরাধ বলে গণ্য করেছে।

5. “সেটা আশ্চর্য নয়। কোনটা আশ্চর্য নয়?

উত্তরঃ ‘কে বাঁচায়, কে বাঁচে!’ গল্পে অনাহারে ফুটপাতে মৃত্যুর ঘটনাটি আশ্চর্য নয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

6. অনাহারক্লিষ্ট মানুষদের জন্য খাদ্যের সংস্থান করতে নিখিল কী ব্যবস্থা নিয়েছে?

উত্তরঃ অনাহারক্লিষ্ট মানুষদের জন্য খাদ্যের সংস্থান করতে নিখিল তার পরিবারের রোজকার খাওয়াদাওয়ার বহর যতদূর সম্ভব কমিয়ে দিয়েছে। বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্যই তারা খায়।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [মান ৫]

1. “এভাবে দেশের লোককে বাঁচানো যায় না।” কে, কেন ও কীভাবে দেশের লোককে বাঁচাতে চায়?

অথবা, “এভাবে দেশের লোককে বাঁচানো যায় না।” এভাবে বলতে কী বোঝানো হয়েছে? এভাবে দেশের লোককে বাঁচানো যায় না কেন?

অথবা, “এভাবে দেশের লোককে বাঁচানো যায় না।” এটি কার উক্তি? এমন মন্তব্যের কারণ কী? কীভাবে দেশের লোককে বাঁচানো যাবে?

2. “আমি কি করব? কত বলেছি, কত বুঝিয়েছি, কথা শুনবে না।” কে, কাকে একথা বলেছিল? উক্তিটিতে বক্তার কোন ভাবনা প্রকাশিত হয়েছে?

3. “কারো বুকে নালিশ নেই, কারো মনে প্রতিবাদ নেই!” একথা কার মনে হয়েছে? গল্পে সে নিজে কি একটি প্রতিবাদী চরিত্র হয়ে উঠেছে বলে তোমার মনে হয়? তোমার উত্তরের যুক্তির সমর্থনে তা লেখো।

অথবা, কারো বুকে নালিশ নেই, কারো মনে প্রতিবাদ নেই!” এই অভিজ্ঞতা কার হয়েছিল? কোন পরিস্থিতিতে বক্তা এমন অভিজ্ঞতার সাক্ষী হয়েছিল?

4. “ওটা পাশবিক স্বার্থপরতা”– কে, কাকে একথা বলেছে? ‘পাশবিক স্বার্থপরতা’ শব্দবদ্ধ ব্যবহারের কারণ কী?

অথবা, “.সমাজদর্শনের দিক থেকে বিচার করলে দশ জনকে খুন করার চেয়ে নিজেকে না খাইয়ে মারা বড়ো পাপ।” বক্তা কে? এই উক্তিতে বক্তার যে মনোভাব প্রকাশ পেয়েছে তা বিশ্লেষণ করো।

অথবা, “ওটা পাশবিক স্বার্থপরতা”—কে, কাকে, কোন প্রসঙ্গে এই উক্তি করেছে? উদ্ধৃত অংশের তাৎপর্য বুঝিয়ে দাও।

5. “সেদিন অফিস যাবার পথে মৃত্যুঞ্জয় প্রথম মৃত্যু দেখল-অনাহারে মৃত্যু।” এই ‘দেখার ফলে মৃত্যুঞ্জয়ের প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া কী হয়েছিল?

6. “এ অপরাধের প্রায়শ্চিত্ত কী?” কোন অপরাধের কথা বলা হয়েছে? সে কীভাবে অপরাধের প্রায়শ্চিত্ত করেছিল ?

অথবা, “এ অপরাধের প্রায়শ্চিত্ত কী?” কার উক্তি? অপরাধটা কী? নিজেকে কে অপরাধী ভাবছে এবং কেন সে অপরাধের প্রায়শ্চিত্ত করতে চাইছে?

অথবা, “এ অপরাধের প্রায়শ্চিত্ত কী?” কে, কোন প্রসঙ্গে এই উক্তি করেছে? বক্তা কীভাবে অপরাধের প্রায়শ্চিত্ত করেছিল ?

ভাত – গল্প | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. উচ্ছব বাসিনীর গাঁ সম্পর্কে কে হয় ?
(ক) দাদা (খ) কাকা (গ) বানাই (ঘ) বেহাই

উত্তরঃ (ক) দাদা

2. গ্রামের প্রাম্পের জন্যে কাকে ডাকা হতো?
(ক) উচ্ছবকে (খ) অগ্রদানীকে (গ) পণ্ডিতকে (ঘ) মহানাম শতপথিকে

উত্তরঃ (ঘ) মহানাম শতপথিকে

3. “এ পিচাশের বাড়ি কেমন তা ঝাননি দাদা”– এখানে ‘দাদা কে?
(ক) ডাক্তার (খ) ভজন (গ) তান্ত্রিক (ঘ) উচ্ছব

উত্তরঃ (ঘ) উচ্ছব

4. উচ্ছব কী পরেছিল?
(ক) প্যান্ট (খ) লুঙ্গি (গ) ছেঁড়া কানি (ঘ) কাপড়

উত্তরঃ (খ) লুঙ্গি

5. কার চাহনি বড়ো বউয়ের ভালো লাগেনি ?
(ক) উচ্ছবের (খ) নার্সের (গ) তান্ত্রিকের (ঘ) শ্বশুরের

উত্তরঃ (ক) উচ্ছবের

6. ‘ভাত’ গল্পে কার বিয়ে হয়নি ?
(ক) উচ্ছবের (খ) উচ্ছবের (গ) ছোটো ছেলের (ঘ) পিসিমার

উত্তরঃ (ঘ) পিসিমার

7. “ডাক্তার বলে দিয়েছে বলেই যজ্ঞি-হোম হচ্ছে” ডাক্তার কী বলেছিলেন?
(ক) যজ্ঞ করতে (খ) চন্দ্রায়ণ করতে (গ) তান্ত্রিক ডাকতে (ঘ) মৃত্যু আসন্ন

উত্তরঃ (ঘ) মৃত্যু আসন্ন

8. ‘কনকপানি’ চালের ভাত খান
(ক) বড়োবাবু (খ) মেজোবাবু (গ) ছোটোবাবু (ঘ) পিসিমা

উত্তরঃ (ক) বড়োবাবু

9. ট্রেন ধরে উচ্ছব প্রথমে কোথায় যাবে ভেবেছিল ?
(ক) দেশে (খ) কালীঘাটে (গ) গাঁয়ে (ঘ) ক্যানিং-এ

উত্তরঃ (ঘ) ক্যানিং-এ

10. “এ বাড়ির ছেলেদের চাকরি করা হয়ে ওঠেনি।” কারণ—
(ক) তারা ঘরজামাই থাকে (খ) তারা এগারোটার আগে ঘুম থেকে ওঠে না (গ) তারা অসুস্থ (ঘ) তারা বাড়ির কাজে ব্যস্ত

উত্তরঃ (খ) তারা এগারোটার আগে ঘুম থেকে ওঠে না

11. কর্তার মৃত্যু হলে পিসিমা তান্ত্রিককে কী অপবাদ দিয়েছিলেন ?
(ক) পিশাচ (খ) ভণ্ড সন্ন্যাসী (গ) ডাকাতের সন্ন্যাসী (ঘ) যজ্ঞের

উত্তরঃ (গ) ডাকাতের সন্ন্যাসী

12. “উনি আমার পতি দেবতা”– উনিটা কে ?
(ক) বাবু (খ) শিবঠাকুর (গ) বামুন (ঘ) উচ্ছব

উত্তরঃ (খ) শিবঠাকুর

13. শ্বশুর খেতে আসার কতক্ষণ আগে বড়ো বউকে রুটি-লুচি করতে হতো?
(ক) পাঁচ মিনিট (খ) দশ মিনিট (গ) দুমিনিট (ঘ) এক ঘন্টা

উত্তরঃ (ক) পাঁচ মিনিট

14. ছোটোবাবু কোন চালের ভাত খান?
(ক) কনকপানি (খ) ঝিডেশাল (গ) রামশাল (ঘ) পদ্মাজালি

উত্তরঃ (ঘ) পদ্মাজালি
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [মান ১]

1. তান্ত্রিকের হোম-যজ্ঞ প্রস্তুতির বর্ণনা দাও।

উত্তরঃ পাঁচ প্রকার গাছের কাঠ— প্রতিটা আধমণ করে। কালো বিড়ালের লোম, শ্মশান। থেকে বালি, বেশ্যার ঘর থেকে আনতে হবে হাত-আর্শি।

2. “চোখ ঠিকরে আসে তার কী দেখে, কার চোখ ঠিকরে আসে?

উত্তরঃ পাঁচ রকমের চাল দেখে উচ্ছবের চোখ ঠিকরে আসে।

3. “লোকটার চাহনি বড়ো বাড়ির বড়ো বউয়ের প্রথম থেকেই ভাল লাগেনি”– ভালো না লাগার কারণ কী ?

উত্তরঃ লোকটার চাহনি খুব উগ্র ছিল বলে বড়ো বাড়ির বড়ো বউয়ের ভালো লাগেনি।

4. “তোমার শ্বশুরই মরতে বসেছে বাছা” কথাটি যিনি যাকে বলেছেন উভয়ের মধ্যে সম্পর্ক কী?

উত্তরঃ কথাটি যিনি যাকে বলেছেন উভয়ের মধ্যে পিসিশাশুড়ির ও ভাইপো-বৌ সম্পর্ক।

5. “শ্বশরের ঘরে নার্স” নার্স কাকে বলে ?

উত্তরঃ বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত রোগীর সেবিকাকে নার্স বলে।

6. “বাদায় থাকে অথচ ভাতের আহিংকে এতখানি”– আহিংকে’ শব্দের অর্থ কী ?

উত্তরঃ এখানে আহিংকে’ শব্দের অর্থ হলো ‘আকাঙ্ক্ষা।

7. উচ্ছবকে জেলখানায় কেন নিয়ে যাওয়া হয়েছিল?

উত্তরঃ উচ্ছব ভাত খাওয়ার জন্যে বড়ো বাড়ির ভাতসুদ্ধ পিতলের ডেকচি নিয়ে স্টেশনে চলে গিয়েছিল। তাতে লোকেরা উচ্ছবকে চুরির অপবাদ দিয়ে জেলে নিয়ে গিয়েছিল।

8. “তাস পিটানো ছেলেগুলি অস্বস্তিতে পড়ে।” কেন ছেলেগুলি অস্বস্তিতে পড়েছিল ?

উত্তরঃ ঝড়ে-জলে উচ্ছবের সর্বনাশ হয়েছে, তার মানুষও ভেসে গেছে, সেজন্য সে কাঁদছে। কান্নার এই কারণ শুনে তাস পিটানো ছেলেগুলি অস্বস্তিতে পড়ে।

9. “তোমরা রা কাড়না ক্যান”– কে, কাদের উদ্দেশে এই কথা বলেছিল ?

উত্তরঃ আলোচ্য কথাটি উচ্ছব তার স্ত্রী-সন্তানদের উদ্দেশে বলেছিল।

10. “গরিবের গতর এরা শস্তা দেখে”- কে, কাকে, কাদের প্রসঙ্গে এই কথা বলেছিল?

উত্তরঃ মহাশ্বেতা দেবীর ভাত’ গল্পের বাসিনী উচ্ছবকে বড়ো বাড়ির মানুষজনদের সম্বন্ধে এই কথা বলেছিল।

11. “তার জন্য দই পেতে ইসবগুল দিয়ে শরবত করে দিতে হত”- কার জন্যে, কে শরবত করে দিতেন?

উত্তরঃ ‘ভাত’ গল্পে বড়ো বাড়ির বড়ো বউ শ্বশুরমশাইয়ের জন্য শরবত করে দিতেন।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান ৫ ]

1. “আসল বাদাটার খোঁজ করা হয় না আর উচ্ছবের।” ‘আসল বাদা’ কোনটা? উচ্ছব আর আসল বাদাটার খোঁজ করতে পারল না কেন?

অথবা, “সে বাদাটা বড়ো বাড়িতে থেকে যায় অচল হয়ে। কোন বাদাট, কেন বড়ড়া বাড়িতে অচল হয়ে থেকে যায় ? অথবা, “বাদার ভাত খেলে তবে তো সে আসল বাদাটার খোঁজ পেয়ে যাবে একদিন।” ‘আসল বাদা’ কোনটা? সে কি শেষ পর্যন্ত আসল বাদাটার খোঁজ পেয়েছিল?

অথবা, “সে বাদাটার খোঁজ নির্ঘাত পাবে উছব।” কোন বাদার কথা বলা হয়েছে? সে কি এই বাদাটার খোঁজ পেয়েছিল?

2. “তুমি কি বুঝবে সতীশবাবু!” সতীশবাবু কী বুঝবে না? কেন বুঝবে না? সতীশবাবু উচ্ছবের সঙ্গে কেমন আচরণ করেছিল?

3. “মারতে মারতে উচ্ছবকে ওরা থানায় নিয়ে যায়।” কারা, কেন উচ্ছবকে মারতে মারতে থানায় নিয়ে যায়?

ভারতবর্ষ – গল্প | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. থুথ্থুরে ভিখিরি বুড়ির গায়ে জড়ানো—
(ক) তুলোর কম্বল (খ) ছেড়া কাপড় (গ) নোংরা চাদর (ঘ) দামি শাল

উত্তরঃ (ক) তুলোর কম্বল

2. “জোর কথা কাটাকাটি চলে” – চায়ের দোকানে এর ফলে কী হয়?
(ক) চা বিক্রি বাড়ে (খ) ঝগড়া হয় (গ) সময় কাটে (ঘ) বিরক্তি লাগে

উত্তরঃ (ক) চা বিক্রি বাড়ে

3. “হঠাৎ বিকেলে এক অদ্ভুত দৃশ্য দেখা গেল।” দৃশ্যটি হলো-
(ক) হিন্দুরা বুড়ির মৃতদেহ নিয়ে আসছে (খ) হেঁটে হেঁটে বুড়ি এদিকেই আসছে (গ) বুড়ি মারা গেছে বলে সকলে কাদছে (ঘ) মুসলমান পাড়ার লোকেরা বুড়ির মৃতদেহ নিয়ে আসছে

উত্তরঃ (ঘ) মুসলমান পাড়ার লোকেরা বুড়ির মৃতদেহ নিয়ে আসছে

4. ডাকপুরুষের বচন অনুযায়ী সোমবারের পউষে বাদল কতদিন চলে ?
(ক) সাত দিন (খ) পাঁচ দিন (গ) তিন দিন (ঘ) এক দিন

উত্তরঃ (ঘ) এক দিন

5. বুড়িকে নদীতে ফেলে দিতে কে বলেছিল?
(ক) চৌকিদার (খ) জগা (গ) ভটচাযমশাই (ঘ) মোল্লা

উত্তরঃ (ক) চৌকিদার

6. “চোখের মাথা খেয়েছিস মিনষেরা”- কার উক্তি ?
(ক) মোল্লার (খ)ভট্টাচার্যমশায়ের (গ) বুড়ির (ঘ) নাপিতের

উত্তরঃ (গ) বুড়ির

7. “তোমাদের কত্তাবাবা টাট্ট” – কাদের উদ্দেশে এই কথা বলেছিল ?
(ক) মুসলমানদের (খ) হিন্দুদের (গ) যুবকদের (ঘ) দেশের

উত্তরঃ (গ) যুবকদের

8. “মাথার ওপর আর কোনো শালা নেই রে— কেউ নেই”- কথাটি বলেছিল
(ক) গ্রামের কোনো যুবক চাষি (খ) গ্রামের মোড়লেরা (গ) এক ভবঘুরে (ঘ) গ্রামের এক গণমান্য চাষি

উত্তরঃ (ক) গ্রামের কোনো যুবক চাষি

9. “আমি স্বকর্ণে শুনেছি, বুড়ি লা ইলাহা বলেছে।” কথাটি বলেছিল–
(ক) করিম ফরাজি (খ) মোল্লা সাহেব (গ) ফজলু শেখ (ঘ) মৌলবি সাহেব

উত্তরঃ (গ) ফজলু শেখ

10. “যবন নিধনে অবতীর্ণ হও মা!” একথা বলেছিল—
(ক) ভট্টাচার্যৰ্মশাই (খ) গাঁয়ের দারোগা (গ) নিবারণ বাগদি (ঘ) গাঁয়ের পুলিশ

উত্তরঃ (ক) ভট্টাচার্যৰ্মশাই

11. “বুড়িমা! তুমি মরনি!” বক্তা হলো—
(ক) চৌকিদার (খ) গাঁয়ের দারোগা (গ) নিবারণ বাগদি (ঘ) গাঁয়ের পুলিশ

উত্তরঃ (ক) চৌকিদার

12. এ বারের বাদলা কী বারে লেগেছিল ?
(ক) সোমবারে (খ) মঙ্গলবারে (গ) বুধবারে (ঘ) শনিবারে

উত্তরঃ (খ) মঙ্গলবারে

13. “পিচের সড়ক বাঁক নিয়েছে যেখানে, সেখানেই গড়ে উঠেছে”–
(ক) একটি মিষ্টির দোকান (গ) একটি শনিমন্দির (ঘ) একটি চায়ের দোকান

উত্তরঃ (খ) একটি ছোট্ট বাজার

14. “তোর শতগুষ্টি মরুক”- উক্তিটি কার?
(ক) জগার (খ) মোল্লার (গ) নকড়ির (ঘ) বুড়ির

উত্তরঃ (ঘ) বুড়ির

15. “এক সময় দাগি ডাকাত ছিল”– কে একসময় দাগি ডাকাত ছিল?
(ক) ফজলু শেখ (খ) নিবারণ বাগদি (গ) করিম ফরাজি (ঘ) নকড়ি নাপিত

উত্তরঃ (খ) নিবারণ বাগদি

16. বুড়িকে ‘হরিবোল বলতে স্পষ্ট শুনেছে–
(ক) নিবারণ বাগদি (খ) নকড়ি নাপিত (গ) ভটচামশাই (ঘ) ফজলু শেখ

উত্তরঃ (খ) নকড়ি নাপিত
অতিসংক্ষিপ্ত্ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

1. “বৃষ্টির সঙ্গে বাতাস জোরালো হলে বলা হয় কী?

উত্তরঃ বৃষ্টির সঙ্গে বাতাস জোরালো হলে তাকে ফাপি বলা হয়।

2. পউষে বাদলা সম্পর্কে গ্রামের ‘ডাকপুরুষের’ পুরনো ‘বিচন’টি কী ?

উত্তরঃ পউষে বাদলা সম্পর্কে ‘ডাকপুরুষ’-এর পুরনো বচন হলো- শনিতে সাত, মঙ্গলে পাঁচ, বুধে তিন— বাকি সব দিন এক দিন বৃষ্টি হবে।

3. “নিবারণ বাগদি রাগী লোক”– নিবারণ বাগদি আগে কী করত?

উত্তরঃ নিবারণ বাগদি একসময় দাগি ডাকাত ছিল, ডাকাতি করত।

4. “সেটাই সবাইকে অবাক করেছিল”—কোন ঘটনা সবাইকে অবাক করেছিল ?

উত্তরঃ থুরথুরে কুঁজো ভিখিরি বুড়ি ওই দুর্যোগে কীভাবে বেঁচেবর্তে হেঁটে চায়ের দোকানে আসতে পারে, সেটাই সবাইকে অবাক করেছিল।

5. নাপিত নকড়ি বুড়িকে কী বলতে শুনেছিল ?

উত্তরঃ নাপিত নকড়ি বুড়িকে ‘হরিবোল হরিবোল’ বলতে শুনেছিল।

6. চায়ের দোকানে আড্ডা দিতে দিতে গ্রামবাসীরা কীসের প্রতীক্ষা করছিল ?

উত্তরঃ চায়ের দোকানে আড্ডা দিতে দিতে গ্রামবাসীরা রোদ ঝলমল একটা দিনের প্রতীক্ষা করছিল।

7. “তর্কাতর্কি, উত্তেজনা হল্লা চলতে থাকল।” কী বিষয়ে, কাদের মধ্যে তর্কাতর্কি, উত্তেজনা ও হল্লা চলছিল ?

উত্তরঃ সমাজসচেতন লেখক সৈয়দ মুস্তাফা সিরাজ রচিত ‘ভারতবর্ষ’ গল্পে একটি চেতনাহীন বৃদ্ধা হিন্দু না মুসলমান এই বিষয়কে কেন্দ্র করে হিন্দু-মুসলমানদের মধ্যে তর্কাতর্কি, উত্তেজনা, হল্লা চলছিল।

8. “হঠাৎ বিকেলে এক অদ্ভুত দৃশ্য দেখা গেল”— অদ্ভুত দৃশ্যটি কী?

উত্তরঃ সকালে যে বুড়ির মৃতদেহ গ্রামের যুবকরা নদীর তীরে ফেলে দিয়ে এসেছিল, বিকেলে মাঠ পেরিয়ে মুসলমানরা সেই দেহকেই চ্যাংদোলায় বহন করে আনছে।

9. “বোঝা গেল, বুড়ির এ অভিজ্ঞতা প্রচুর আছে” বুড়ির কী অভিজ্ঞতা ছিল?

উত্তরঃ গাছের মোটা শিকড়ে বসে শিকড়ের পিছনে গাছের খোঁদলে পিঠ ঠেকিয়ে পা ছড়িয়ে বসার অভিজ্ঞতা বুড়ির আছে।

কবিতা | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন| Higher Secondary Bengali Suggestion

রূপনারানের কূলে – কবিতা | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. রক্তের অক্ষরে কবি কী দেখেছিলেন?
(খ) শহিদের আত্মদান (গ) শোষকের অত্যাচার (ঘ) সম্প্রীতির চেহারা

উত্তরঃ (ক) আপনার রূপ

2. ‘রূপনারানের কূলে’ কবিতাটি যে কাব্যের অন্তর্গত
(ক) শেষ সপ্তক (গ) মানসী (ঘ) মহুয়া

উত্তরঃ (খ) শেষলেখা

3. ‘এ জীবন’ হলো—
(ক) দুঃখের তপস্যা (খ) আমৃত্যুর দুঃখের তপস্যা (গ) আমৃত্যু তপস্যা (ঘ) তপস্যা

উত্তরঃ (খ) আমৃত্যুর দুঃখের তপস্যা

4. ‘রূপনারানের কূলে’ কবিতায় জীবন নিয়ে যে পঙক্তিটি আছে—
(ক) জানিলাম এ জীবন স্বপ্ন নয় (খ) আমৃত্যুর দুঃখের তপস্যা এ জীবন (গ) কঠিন সত্যকে জানিলাম এ জীবনে (ঘ) কোনোটিই নয়

উত্তরঃ (খ) আমৃত্যুর দুঃখের তপস্যা এ জীবন

5. “চিনিলাম আপনারে” – রবীন্দ্রনাথ যেভাবে নিজেকে চিনেছেন—
(ক) আঘাতে ও বেদনায় (খ) আঘাতে আঘাতে বেদনায় (গ) আঘাত ও বেদনায় (ঘ) আঘাতে আঘাতে বেদনায় বেদনায়

উত্তরঃ (ঘ) আঘাতে আঘাতে বেদনায় বেদনায়

6. “সে কখনো করে না _________।”
(ক) বিভ্রান্ত (খ) বঞ্চনা (গ) আশাহত (ঘ) মোহগ্রস্ত

উত্তরঃ (খ) বঞ্চনা

7. “সে কখনো করে না বঞ্চনা” –‘সে’ হলো—
(ক) মৃত্যু (খ) সত্য (গ) কঠিন সত্য (ঘ) কঠিন মিথ্যা

উত্তরঃ (গ) কঠিন সত্য

8. ‘রূপনারানের কূলে’ কবিতায় কবি ভালোবেসেছেন—
(ক) কঠিনকে (খ) সত্যকে (গ) নিজেকে (ঘ) কঠিন সত্যকে

উত্তরঃ (ঘ) কঠিন সত্যকে

9. “সত্যের দারুণ মূল্য লাভ করিবারে…” তারপর কবি যা করবেন—
(ক) সকল দেনা শোধ করে দেবেন (খ) মৃত্যুবরণ করবেন (গ) মৃত্যুর মাধ্যমে সকল দেনা বা সত্যের দারুণ মূল্য শোধ করে দেবেন (ঘ) নতুন করে জন্মাবেন

উত্তরঃ (গ) মৃত্যুর মাধ্যমে সকল দেনা বা সত্যের দারুণ মূল্য শোধ করে দেবেন

10. “কঠিনেরে ভালোবাসিলাম” – যিনি ভালোবাসেন
(ক) নীরেন্দ্রনাথ (খ) জগদীশচন্দ্র (গ) দ্বিজেন্দ্রনাথ (ঘ) রবীন্দ্রনাথ

উত্তরঃ (ঘ) রবীন্দ্রনাথ

11. “জানিলাম এ জগৎ স্বপ্ন নয়” – যিনি জানলেন—
(ক) রানি চন্দ (খ) রবীন্দ্রনাথ (গ) অবনীন্দ্রনাথ (ঘ) রথীন্দ্রনাথ

উত্তরঃ (খ) রবীন্দ্রনাথ
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [মান ১]

1. “সে কখনো করে না বঞ্চনা”– এখানে ‘সে’ বলতে কার কথা বলা হয়েছে?

উত্তরঃ ‘শেষলেখা’ কাব্যের অন্তর্গত ‘রূপনারানের কূলে’ নামাঙ্কিত কবিতায় ‘সে’ বলতে ‘কঠিনের কথা বলা হয়েছে।

2. “সত্য যে কঠিন”– কবি ‘সত্য’কে ‘কঠিন’ বলেছেন কেন ?

উত্তরঃ কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সত্যকে উপলব্ধি করেছেন কঠিন আঘাত ও চরম বেদনার মধ্যে দিয়ে। তাই যে জীবন সাধারণ কল্পনায় আসে, যে জীবন রোমান্টিক স্বপ্ন বিলাসের, সেই জীবনকে প্রত্যাশা করেননি কবি। তাই সত্যকে তিনি খুঁজেছেন কঠিনের মধ্যে।

3. “সত্যের দারুণ মূল্য” বলতে কবি কী বুঝিয়েছেন?

উত্তরঃ মৃত্যুপথযাত্রী কবি জগৎকে সত্য হিসেবে দেখেছেন। দুঃখের তপস্যায় তিনি নিজেকে চিনেছেন। সত্যের সাধনা যে কত কঠিন এবং তার জন্যে কতখানি ত্যাগ করতে হয় সেই উপলব্ধিকে ব্যক্ত করতে গিয়ে উদ্ধৃত উক্তিটি করেছেন কবি।

4. “রক্তের অক্ষরে দেখিলাম।” “রক্তের অক্ষরে’ কবি কী দেখেছিলেন ?

উত্তরঃ কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ‘রক্তের অক্ষরে’ দেখেছিলেন তার আত্মরুপ তথাৎ ‘আপনার রূপ’ দেখেছিলেন রক্তের অক্ষরে।

5. “চিনিলাম আপনারে” – কবি আপনাকে কীভাবে চিনেছিলেন?

উত্তরঃ কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর লিখেছেন, তিনি আঘাতের মধ্যে দিয়ে, বেদনার মধ্যে দিয়ে নিজের স্বরূপকে চিনতে পেরেছিলেন।

6. “রূপনারানের কূলে জেগে উঠলাম।” কে রূপনারানের কূলে জেগে উঠেছিলেন ?

উত্তরঃ কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর রূপনারানের কূলে জেগে উঠেছিলেন।

7. “আমৃত্যু দুঃখের তপস্যা এ জীবন।” জীবন’-কে দুঃখের তপস্যা’ বলা হয়েছে কেন?

উত্তরঃ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর জানতেন, জীবনে দুঃখের আধার রাত্রি বার বার ঘনিয়ে আসে। কোনো এক অদৃশ্য নাগপাশে আমরা বাঁধা পড়ে থাকি। ফলে আমাদের শান্তি বিঘ্নিত হয়। এজন্যে কবি জীবন’কে ‘দুঃখের তপস্যা’ বলেছেন।

8. “জানিলাম এ জগৎ স্বপ্ন নয়” কীভাবে কবি একথা জেনেছিলেন?

উত্তরঃ কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ‘রূপনারানের কূলে’ যখন জেগে উঠেছিলেন, অর্থাৎ তিনি যখন মানবসংসারে জেগে উঠেছিলেন, তখনই জেনেছিলেন এ জগৎ স্বপ্ন নয়।

9. কবি কোন সত্যকে ভালোবেসেছিলেন?

উত্তরঃ সে সত্য রূঢ় বাস্তব, যাকে মানুষ মেনে নিতে বাধ্য কবি একথা উপলব্ধি করে সেই সত্যকেই ভালোবেসেছিলেন।

10. সত্য প্রকাশের ক্ষেত্রে কবির বক্তব্য কী?

উত্তরঃ সত্য প্রকাশের ক্ষেত্রে কবির বক্তব্য – সত্য অপ্রকাশিত থাকে না।

11. রূপনারানের কূলে কবিতায় মৃত্যুতে সকল দেনা’ কীভাবে শোধ করা সম্ভব বলে কবি মনে করেছিলেন?

উত্তরঃ জীবনের পদে পদে বিচিত্র দুঃখ-বেদনার আঘাতে আঘাতে কঠিন সত্যকে স্বীকার করে মৃত্যুকে বরণ করলেই জীবনের ঋণ শোধ করা সম্ভব।

শিকার – কবিতা | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো

1. জরায়ুর যে বিশেষণ কবিতায় আছে
(ক) হিমকুঞ্চিত (খ) অন্ধকার (গ) সুস্পষ্ট ও স্ফীত (ঘ) সবুজাভ

উত্তরঃ (ক) হিমকুঞ্চিত

2. “একটা অদ্ভুত শব্দ”- ‘অদ্ভুত’ শব্দটি কীসের?
(ক) গাড়ির হর্নের শব্দ (খ) মানুষের কান্নার শব্দ (গ) পাতার মর্মর শব্দ (ঘ) বন্দুক থেকে গুলি ছোড়ার শব্দ

উত্তরঃ (ঘ) বন্দুক থেকে গুলি ছোড়ার শব্দ

3. “একটি তারা এখন আকাশে রয়েছে” – একটি তারা’-র সঙ্গে কবি তুলনা করেছেন।
(ক) একটি ফুলের (খ) একটি মেয়ের (গ) একটি নদীর (ঘ) একটি গানের

উত্তরঃ (খ) একটি মেয়ের

4. “সুন্দরী বাদামী হরিণ”– কার হাত থেকে নিজেকে বাঁচিয়েছে?
(ক) চিতাবাঘিনীর হাত থেকে (খ) মিশরের মানুষীর হাত থেকে (গ) দেশোয়ালিদের হাত থেকে (ঘ) মানুষের হাত থেকে

উত্তরঃ (ক) চিতাবাঘিনীর হাত থেকে

5. “নদীর তীক্ষ্ণ শীতল ঢেউয়ে সে নামল”– এখানে কার কথা বলা হয়েছে?
(ক) চিতাবাঘিনীর কথা (গ) রোগা শালিকের কথা (ঘ) দেশোয়ালিদের কথা

উত্তরঃ (খ) সুন্দরী বাদামি হরিণের কথা

6. “সূর্যের আলোয় তার রং কুকুমের মতো নেই আর” – তার রং কীসের মতো হয়ে গেছে?
(ক) শুকনো পাতার ধূসর ইচ্ছার মতো (খ) কচি বাতাবি লেবুর মতো সবুজ (গ) রোগা শালিকের হৃদয়ের বিবর্ণ ইচ্ছার মতো (ঘ) নীল আকাশের মরা চাদের আলোর মতো

উত্তরঃ (গ) রোগা শালিকের হৃদয়ের বিবর্ণ ইচ্ছার মতো

7. নদীর ঢেউয়ের বিশেষণ
(ক) তীক্ষ্ণ শীতল (খ) তরঙ্গায়িত (গ) হিমশীতল (ঘ) এলোমেলো

উত্তরঃ (ক) তীক্ষ্ণ শীতল

8. সবুজ সুগন্ধি ঘাসকে তুলনা করা হয়েছে—
(ক) পাকা বাতাবি লেবুর সঙ্গে (খ) কচি বাতাবি লেবুর সঙ্গে (গ) দারুচিনির পাতার সঙ্গে (ঘ) কমলালেবুর সঙ্গে

উত্তরঃ (খ) কচি বাতাবি লেবুর সঙ্গে

9. ত্রাসমুক্ত হরিণের শরীর-এর বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে
(ক) নিদ্রা নিপুণ (খ) সতেজ সবুজ (গ) ঘুমহীন ক্লান্ত বিল (ঘ) বিনিদ্র শান্ত

উত্তরঃ (গ) ঘুমহীন ক্লান্ত বিহ্বল

10. নীল মদের গেলাসে কী রাখা হয়েছিল?
(ক) রুপো (খ) সোনা (গ) প্রবাল (ঘ) মুক্তা

উত্তরঃ (ঘ) মুক্তা

11. “সারারাত মাঠে আগুন জ্বেলেছে”—কারা আগুন জ্বেলেছে ?
(ক) প্রবাসীরা (খ) অতিথিবৃন্দ (গ) দেশোয়ালিরা (ঘ) বনবাসীরা

উত্তরঃ (গ) দেশোয়ালিরা

12. “হিমের রাতে শরীর উম্ রাখবার জন্য দেশোয়ালিরা সারারাত মাঠে”—
(ক) গান করেছে (খ) নাচ করেছে (গ) খেলায় মেতেছে (ঘ) আগুন জ্বেলেছে

উত্তরঃ (ঘ) আগুন জ্বেলেছে

13. দেশোয়ালিদের আগুনকে কে নিষ্প্রভ করেছে?
(ক) সিগারেটের ধোঁয়া (খ) সূর্যের আলো (গ) টর্চের আলো (ঘ) হরিণের মৃত্যু

উত্তরঃ (খ) সূর্যের আলো
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [ মান ১ ]

1. হরিণের শরীরটা ঘুমহীন ক্লান্ত বিহুল ছিল কেন?

উত্তরঃ সারারাত চিতাবাঘিনীর হাত থেকে নিজেকে বাঁচাতে হরিণটা বন থেকে বনান্তরে ঘুরে বেড়িয়েছে। সারারাত পরিশ্রমের কারণে হরিণের শরীরটা ‘ঘুমহীন ক্লান্ত বিহুল’।

2. “নিস্পন্দ নিরপরাধ ঘুম” বলতে কী বোঝানো হয়েছে ?

উত্তরঃ হরিণটা বন্দুকের গুলিতে প্রাণ হারানোর পর তার নিথর দেহটাকে বোঝানোর জন্য ‘নিস্পন্দ নিরপরাধ ঘুম’ উপমা ব্যবহৃত হয়েছে।

3. ‘সুন্দর বাদামী হরিণ’ চিতাবাঘিনীর হাত থেকে বাঁচতে কোন কোন বনে ঘুরেছিল?

উত্তরঃ সারারাত চিতাবাঘিনীর হাত থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে বাঁচিয়ে নক্ষত্রহীন মেহগনির বনের মতো অন্ধকারে সুন্দরীর বন থেকে অর্জুনের বনে ঘুরে বেড়িয়েছিল হরিণটা।

4. “একটা অদ্ভুত শব্দ’– শব্দকে ‘অদ্ভুত’ বলার কারণ কী ?

উত্তরঃ প্রাকৃতিক অরণ্য পরিবেশে বিসদৃশ বেমানান বন্দুকের গুলির শব্দকে এখানে ‘অদ্ভুত’ বলা হয়েছে। বনের মধ্যে বন্যেরাই যেখানে সুন্দর সেখানে বন্দুকের গুলির শব্দ নৃশংসতার পরিচয়বাহী বলেই তা অদ্ভুত।

5. “আগুন জ্বলল আবার”– কেমন আগুন, কখন জ্বলেছিল ?

উত্তরঃ হিমের রাতে শরীর ‘উম’ রাখবার জন্য দেশোয়ালিরা সারা রাত আগুন জ্বালিয়েছিল। সে আগুন ছিল মোরগফুলের মতো লাল।

6. “রোগা শালিকের হদয়ের বিবর্ণ” ইচ্ছা বলতে কী বোঝানো হয়েছে?

উত্তরঃ দেশোয়ালিদের প্রজ্বলিত আগুন ভোরের আলোয় ক্রমশ বিবর্ণ হয়ে আসছে। মুমূর্ষ ও অসুস্থ শালিক পাখির শীর্ণকায় চেহারা এবং তার নৈরাশ্যের মতোই বিবর্ণ।

7. “নদীর তীক্ষ্ণ শীতল ঢেউয়ে সে নামল”– সে কেন নেমেছিল ?

উত্তরঃ সুন্দর বাদামি হরিণ ঘুমহীন ক্লান্ত শরীরকে আবেশ দেওয়ার জন্য নদীর তীক্ষ্ণ শীতল ঢেউয়ে নেমেছিল।

8. “এখনও আগুন জ্বলছে তাদের ;” কারা, কেন আগুন জ্বালিয়েছে?

উত্তরঃ দেশোয়ালিরা শীতের রাতে শরীর উয় রাখার জন্য সারারাত মাঠে আগুন জ্বালিয়েছে।

9. এই ভোরের জন্য অপেক্ষা করছিল!” কে, কেন ভোরের জন্য অপেক্ষা করছিল?

উত্তরঃ সুন্দর বাদামি হরিণ অরণ্য প্রকৃতিতে চিতাবাঘিনীর হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য ভোরের অপেক্ষায় ছিল।

10. “তেমনি একটি তারা আকাশে জ্বলছে এখনও।” একটি তারা আকাশে কীসের মতো জ্বলছে?

উত্তরঃ হাজার হাজার বছর আগে এক রাতে মিশরের মানুষী তার বুকের থেকে যে মুক্তা কবির নীল মদের গ্লাসে রেখেছিল, ঠিক সেভাবে একটি তারা এখনো আকাশে জ্বলছে।

11. “সোনার বর্ষার মতো জেগে ওঠে”– জেগে উঠে কে, কী করতে চেয়েছিল?

উত্তরঃ ভোরের নতুন সূর্যের আলোয় হরিণটা সোনার বর্ষার মতো জেগে ওঠে ‘সাহসে সাধে সৌন্দর্যে একের পর এক হরিণীকে চমক লাগিয়ে দিতে চেয়েছিল।

12. ভোরের আকাশের তারার জন্য কবি কোন কোন উপমা ব্যবহার করেছেন?

উত্তরঃ পল্লিগ্রামের লজ্জাশীলা বাসরঘরের ‘গোধূলি-মদির’ মেয়েটির কুণ্ঠার সঙ্গে নীল মদের গ্লাসে রাখা হাজার হাজার বছর আগে মিশর-মানুষীর বুকের মুক্তার দ্যতিহীনতার তুলনা করা হয়েছে।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান ৫ ]

1. “একটা অদ্ভুত শব্দ। নদীর জল মচকাফুলের পাপড়ির মতো লাল।” কবি শব্দটাকে অদ্ভুত বলেছেন কেন? নদীর জল লাল হওয়ার কারণ কী?

অথবা, “আগুন জ্বললো আবার”—কবি প্রথম আগুন এবং দ্বিতীয় আগুন জ্বলার মধ্যে যে বৈপরীত্যের উল্লেখ করতে চেয়েছেন তা বিবৃত করো।

অথবা, “আগুন জ্বললো আবার…” আবার’ শব্দটি প্রয়োগের তাৎপর্য কী? এখানে এই ঘটনা কীসের ইঙ্গিত দেয়?

মহুয়ার দেশ – কবিতা | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [ মান ১ ]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. “অন্ধকারে ধূসর ফেনায়” – কবির কোন মানসিকতা এখানে প্রকাশিত হয়েছে ?
(ক) নিরাশাবাদী (খ) আশাবাদী (গ) জীবন ও জগতের রূঢ় বাস্তবতায় বিভ্রান্ত (ঘ) অনুভূতিহীন মানুষ

উত্তরঃ (গ) জীবন ও জগতের রূঢ় বাস্তবতায় বিভ্রান্ত

2. অলস সূর্য কোথায় আগুন জ্বালায় ?
(ক) মহুয়ার দেশে (খ) জলের অন্ধকারে (গ) মানুষের মনে (ঘ) প্রভাত শিশিরে

উত্তরঃ (খ) জলের অন্ধকারে

3. “আমার ক্লান্তির ওপর ঝরুক….” (শূন্যস্থান পূরণ করো)
(ক) মহুয়ার গন্ধ (খ) মহুয়ার ফুল (গ) মহুয়ার দেশ (ঘ) মহুয়া

উত্তরঃ (খ) মহুয়ার ফুল

4. মহুয়ার দেশে রাত্রির নির্জনতাকে কে আলোড়িত করে?
(ক) দেবদারুর ছায়া (খ) সমুদ্রের গর্জন (গ) মহুয়ার গন্ধ (ঘ) সমুদ্রের দীর্ঘশ্বাস

উত্তরঃ (ঘ) সমুদ্রের দীর্ঘশ্বাস

5. ‘মেঘ-মদির মহুয়ার দেশ’ কোথায় আছে?
(ক) অনেক অনেক দূরে (খ) খুব খুব কাছে (গ) পথের দু’ধারে (ঘ) নির্জন অরণ্যে

উত্তরঃ (ক) অনেক অনেক দূরে

6. “অবসন্ন মানুষের শরীরে দেখি”– কবি কী দেখেন?
(ক) ধুলোর কলঙ্ক (খ) আঘাতের চিহ্ন (গ) রক্তের দাগ (ঘ) কাদার চিহ্ন

উত্তরঃ (ক) ধুলোর কলঙ্ক

7. “ঘুমহীন তাদের চোখে হানা দেয়।” কী হানা দেয়?
(ক) ক্লান্ত দুঃস্বপ্ন (খ) কয়লাখনির শব্দ (গ) নিবিড় অন্ধকার (ঘ) সূর্যের আলো

উত্তরঃ (ক) ক্লান্ত দুঃস্বপ্ন

8. “ধোঁয়ায় বঙ্কিম নিঃশ্বাস…” বলতে বোঝানো হয়েছে
(ক) নাগরিক সমস্যা (খ) নাগরিক জীবনের মালিন্যকে (গ) বঙ্কিমচন্দ্রের নিঃশ্বাসকে (ঘ) কবির হতাশ্বাসকে

উত্তরঃ (খ) নাগরিক জীবনের মালিন্যকে

9. “শিশিরে ভেজা সবুজ সকাল” বলতে বোঝানো হয়েছে—
(ক) শিশির ও সবুজ রঙে চোবানো একটি মশাল (খ) শিশির মাখা সবুজ গাছপালায় মোড়া একটি সকাল (গ) সুন্দর সকাল (ঘ) চিত্রে স্থির নিসর্গ

উত্তরঃ (খ) শিশির মাখা সবুজ গাছপালায় মোড়া একটি সকাল

10. ‘মহুয়ার দেশ’ কবিতাটির রচয়িতা
(ক) সমর সেন (খ) শক্তি চট্টোপাধ্যায় (গ) মৃদুল দাশগুপ্ত (ঘ) জীবনানন্দ দাশ

উত্তরঃ (ক) সমর সেন

11. সমস্তক্ষণ মহুয়ার দেশে পথের দু’ধারে কে ছায়া ফেলে ?
(ক) মহুয়া (খ) দেবদারু (গ) নিঃসঙ্গতা (ঘ) ক্লান্তি

উত্তরঃ (খ) দেবদারু

12. “অলস সূর্য দেয় এঁকে”– অলস সূর্য কী এঁকে দেয়?
(ক) প্রকৃতির ছবি (খ) মানুষের ছবি (গ) নিজের ছবি (ঘ) জলস্রোতে গলিত সোনার মতো উজ্জ্বল আলোর

উত্তরঃ (ঘ) জলস্রোতে গলিত সোনার মতো উজ্জ্বল আলোর
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [মান ১]

1. “ঘুমহীন তাদের চোখে হানা দেয় কীসের ক্লান্ত দুঃস্বপ্ন”– কাদের কথা বলা হয়েছে?

উত্তরঃ আলোচ্য অংশে মহুয়ার দেশের অধিবাসী অবসন্ন মানুষদের কথা বলা হয়েছে।

2. “ধোঁয়ার বঙ্কিম নিঃশ্বাস ঘুরে ফিরে ঘরে আসে”— বলতে কী বোঝানো হয়েছে?

উত্তরঃ ‘ধোঁয়ার বঙ্কিম নিঃশ্বাস’ বলতে স্বপ্নময় প্রকৃতি-প্রধান ‘মহুয়ার দেশ’-এর বিপরীতে কয়লাখনি থেকে উঠে আসা নাগরিক সভ্যতার বিষবাষ্পের কথাই বোঝানো হয়েছে।

3. “অলস সূর্য দেয় এঁকে গলিত সোনার মতো উজ্জ্বল আলোর স্তম্ভ’- কোন কবিতার অংশ?

উত্তরঃ আলোচ্য অংশটি সমর সেন রচিত ‘মহয়ার দেশ’ শীর্ষক কবিতা থেকে নেওয়া হয়েছে।

4. “অলস সূর্য দেয় এঁকে”–‘অলস সুর্য’ কী আঁকে, সূর্যকে অলস’ বলার কারণ কী ?

উত্তরঃ ‘অলস সূর্য’ সন্ধ্যার জলস্রোতে গলিত সোনার মতো উজ্জ্বল আলোর স্তম্ভ এঁকে দেয়। অস্তগামী সূর্যের দীপ্তি স্তিমিত বলেই সন্ধ্যার সূর্যকে ‘অলস’ বলা হয়েছে।

5. “রাত্রের নির্জন নিঃসঙ্গতাকে আলোড়িত করে”- উৎস নির্দেশ করো।

উত্তরঃ আলোচ্য অংশটি কবি সমর সেনের ‘মহুয়ার দেশ’ শীর্ষক কবিতা থেকে নেওয়া হয়েছে।

6. মহুয়ার দেশ’ কবিতায় অবসন্ন মানুষদের শরীরে কী দেখা যায় ?

উত্তরঃ কবি সমর সেনের ‘মহুয়ার দেশ’ কবিতায় অবসন্ন মানুষদের শরীরে ধুলোর কলঙ্ক দেখা যায়।

7. “আমার ক্লান্তির ওপর ঝরুক মহুয়া-ফুল”—এখানে ‘মহুয়ার ফুল’ কীসের প্রতীক?

উত্তরঃ আলোচ্য পঙক্তিতে উল্লিখিত ‘মহুয়া ফুল’ রোমান্টিক উপাদানের প্রতীক হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে যে রোমান্টিক উপাদান কবির জীবনের ক্লান্তি অপনোদন করতে পারবে।

8. মহুয়ার দেশের মানুষদের ঘুমহীন চোখে কী দেখা যায় ?

উত্তরঃ মহুয়ার দেশের মানুষদের ঘুমহীন চোখে দেখা যায় ক্লান্ত দুঃস্বপ্ন।

9. “ধোঁয়ার বঙ্কিম নিঃশ্বাস” কীভাবে কবির কাছে আসে ?

উত্তরঃ দরিদ্র আশ্রয়হীন মানুষের কাছে তীব্র শীতের দুঃস্বপ্নের মতো ‘ধোঁয়ার বঙ্কিম নিঃশ্বাস’ কবির কাছে আসে।

10. “নিবিড় অন্ধকারে মাঝে মাঝে শুনি”– কী শোনার কথা বলা হয়েছে?

উত্তরঃ এখানে কয়লাখনির বিশাল শব্দের কথা বলা হয়েছে।

11. সন্ধ্যার জলস্রোতে উজ্জ্বল আলোর স্তম্ভ কে এঁকে দেয় ?

উত্তরঃ সন্ধ্যার জলস্রোতে অস্তান্মুখ সূর্য উজ্জ্বল আলোর স্তম্ভ এঁকে দেয়।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [মান ৫]

1. “অনেক, অনেক দূরে আছে মেঘ-মদির মহুয়ার দেশ”– মহুয়ার দেশ’-এর কী বর্ণনা কবি দিয়েছেন? এই ‘মহুয়ার দেশ’ কীভাবে কবির চেতনাকে প্রভাবিত করেছে, তা নিজের ভাষায় লেখো।

অথবা, ‘মহুয়ার দেশ’ কবিতায় কবি প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের যে চিত্র তুলে ধরেছেন, তা আলোচনা করো।

অথবা, ‘মহুয়ার দেশ’ কবিতার মধ্য দিয়ে কবি কী বলতে চেয়েছেন?

2. “ধোঁয়ার বঙ্কিম নিঃশ্বাস ঘুরে ফিরে ঘরে আসে / শীতের দুঃস্বপ্নের মতো।” উক্তিটির তাৎপর্য বিশ্লেষণ করো।

আমি দেখি – কবিতা | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. আমি দেখি’ কবিতায় কবি সভ্যতার
(ক) বিনাশ চান (খ) অবিনাশী জাগরণ চান (গ) আরণ্যক সভ্যতা কামনা করেন (ঘ) সবুজে ভরিয়ে দিয়ে নীরোগ সভ্যতা কামনা করেন

উত্তরঃ (ঘ) সবুজে ভরিয়ে দিয়ে নীরোগ সভ্যতা কামনা করেন

2. “আমার দরকার শুধু গাছ দেখা” – কেন?
(ক) শরীরের প্রয়োজনে (খ) চোখের প্রয়োজনে (গ) কবিতার প্রয়োজনে (ঘ) বাগানের প্রয়োজনে

উত্তরঃ (ক) শরীরের প্রয়োজনে

3. “শহরের অসুখ হাঁ করে কেবল সবুজ খায়”- এখানে ‘শহরের অসুখ’ হলো—
(ক) নাগরিক কৃত্রিমতা (খ) ম্যালেরিয়া (গ) ক্লিপটোম্যানিয়া (ঘ) কলেরা

উত্তরঃ (ক) নাগরিক কৃত্রিমতা

4. “গাছ তুলে আনো বাগানে বসাও”– কারণ
(ক) মন সবুজ চায় (খ) দেহ সবুজ বাগান চায় (গ) প্রাণ সবুজ বাগান চায় (ঘ) আত্মা সবুজ বাগান চায়

উত্তরঃ (খ) দেহ সবুজ বাগান চায়

5. “বহুদিন জঙ্গলে কাটেনি দিন”– তার কারণ কবি—
(ক) দীর্ঘদিন বিদেশে ছিলেন (খ) দীর্ঘদিন শহরে ছিলেন (গ) দীর্ঘদিন অসুস্থ ছিলেন (ঘ) দীর্ঘদিন গ্রামে ছিলেন

উত্তরঃ (খ) দীর্ঘদিন শহরে ছিলেন

6. “সবুজের ভীষণ দরকার”– কীসের জন্য?
(ক) সৌন্দর্যের জন্য (খ) পরিত্রাণের জন্য (গ) আরোগ্যের জন্য (ঘ) উৎসবের জন্য

উত্তরঃ (গ) আরোগ্যের জন্য
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [মান ১]

1. ‘আমি দেখি’ কবিতা অনুযায়ী গাছের কী দেহের উপকার সাধন করে ?

উত্তরঃ ‘আমি দেখি’ কবিতা অনুযায়ী গাছের সবুজ দেহের উপকার সাধন করে।

2. “সবুজের অনটন ঘটে”– কোথায়, কেন সবুজের অনটন’ ঘটেছে?

উত্তরঃ আধুনিক নগরসভ্যতা প্রতিনিয়ত প্রকৃতিকে ধ্বংস করে। আগ্রাসী এই নাগরিক সভ্যতা হাঁ-করে সবুজ খায় বলেই প্রকৃতির বুকে এবং কবিমনে সবুজের অনটন ঘটে।

3. “তাই বলি, গাছ তুলে আনো”—কেন কবি গাছ তুলে আনতে বলেছেন?

উত্তরঃ শহরের মানুষ গাছ কেটে ঘর তৈরি করার ফলে সবুজ পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যায়। সবুজের অনটন রোধ করার জন্য কবি শক্তি চট্টোপাধ্যায় গাছ তুলে এনে বাগানে বসাতে বলেছেন।

4. আমি দেখি’ কবিতায় কবির চোখ ও দেহ কী কামনা করেছে?

উত্তরঃ আধুনিক নাগরিক সভ্যতার বিবর্ণ যান্ত্রিকতায় বন্দি কবির চোখ এবং দেহ আন্তরিকভাবে আবার সজীব প্রাণময় হয়ে ওঠার জন্যই গাছের সবুজ কামনা করছে।

ক্রন্দনরতা জননীর পাশে – কবিতা | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. ছিন্নভিন্ন দেহ পাওয়া গেছে যে মেয়েটির, সে–
(ক) পথ হারিয়েছিল (খ) নিখোঁজ ছিল (গ) খেলতে গিয়েছিল (ঘ) পালিয়ে গিয়েছিল

উত্তরঃ (খ) নিখোঁজ ছিল

2. ক্রন্দনরতা জননীর পাশে’ কবিতাটি কোন কাব্যগ্রন্থ। থেকে গৃহীত?
(ক) আমপাতা জামপাতা (খ) সর্ষেখেত (গ) ধানখেত থেকে (ঘ) জলপাই কাঠের এসরাজ

উত্তরঃ (গ) ধানখেত থেকে

3. “সে-ই কবিতায় জাগে” – কবিতায় জাগে
(ক) মন (খ) ভাষা (গ) বিবেক (ঘ) শব্দ

উত্তরঃ (গ) বিবেক

4. জননী কী অবস্থায় আছেন ?
(ক) ক্রন্দনরতা (খ) হাস্যময়ী (গ) প্রসন্না (ঘ) কৃপাময়ী

উত্তরঃ (ক) ক্রন্দনরতা

5. কেন তবে লেখা, কেন গান গাওয়াকেন তবে আঁকাআঁকি ? কারণ—
(ক) ক্রন্দনরতা জননীর পাশে কখনো যদি না থাকি (খ) ক্রন্দনরতা জনীর পাশে এখন যদি না থাকি (গ) ক্ৰন্দরতা জননীর পাশে আদৌ যদি না থাকি (ঘ) ক্রন্দনরতা জননীর পাশে ভবিষ্যতেও যদি না থাকি

উত্তরঃ (খ) ক্রন্দনরতা জনীর পাশে এখন যদি না থাকি
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [মান ১]

1. “যা পারি কেবল”- কে, কী পারেন?

উত্তরঃ কবি মৃদুল দাশগুপ্ত। তিনি যা পারেন তা হলো অন্যায়-অবিচার, অত্যাচার-নিপীড়ন সবকিছুর বিরুদ্ধে তাঁর ক্ষোভ ও প্রতিবাদ বিস্ফোরণের বারুদের মতো অন্তর্নিহিত রাখতে।

2. “কেন ভালোবাসা, কেন-বা সমাজকীসের মূল্যবোধ!” কোন মানসিক যন্ত্রণা থেকে কবি এ কথা বলেছেন?

উত্তরঃ নিহত ভাইয়ের শবদেহ দেখে প্রতিবাদ জানাতে না পারার ক্ৰোধ কবির মানসিক যন্ত্রণার কারণ। ওই মানসিক যন্ত্রণার ফলে কবির এই উক্তি।

3. “সে-ই কবিতায় জাগে আমার বিবেক” – ‘বিবেক’কে কীসের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে?

উত্তরঃ কবি যুদ্ধ ও প্রতিবাদী বিবেককে বিস্ফোরণের আগে সঞ্জিত বারুদের সঙ্গে তুলনা করেছেন।

4. “আমি তা পারি না”- কে, কী পারেন না ?

উত্তরঃ প্রতিবাদী কবি মৃদুল দাশগুপ্ত ‘ক্রন্দনরতা’ জননীর পাশে কবিতায় ছিন্নভিন্ন, নিখোঁজ মেয়েটিকে জঙ্গলে পেয়ে আকাশের দিকে তাকিয়ে বিধির কাছে বিচার চাইতে পারেন না।

5. “কেন তবে লেখা, কেন গান গাওয়া”- কবির এমন উক্তির কারণ কী ?

উত্তরঃ কবি-শিল্পীরা ক্রন্দনরতা জননীর পাশে না দাঁড়ালে তাদের গান গাওয়া, লেখালেখি বৃথা, একথা বলার জন্যই কবি আলোচ্য উক্তিটি করেছেন।

6. “আমি কি তাকাব আকাশের দিকে”– একথা বলার কারণ কী?

উত্তরঃ প্রতিবাদী কবি মৃদুল দাশগুপ্ত নিখোঁজ, ছিন্নভিন্ন জঙ্গলে পাওয়া মেয়েটির পাশে না দাঁড়িয়ে তাকে উপেক্ষা করে বিচার চাওয়ার জন্য আকাশের দিকে তাকাতে পারেন, এপ্রসঙ্গেই উক্তিটি করেছেন।

7. ক্রন্দনরতা জননীর পাশে না থাকলে কবি কী কী ব্যর্থ বলে মনে করেছেন?

উত্তরঃ ক্রন্দনরতা জননীর পাশে না থাকলে কবি মনে করেন তার লেখাজোখা, গান গাওয়া ও আঁকাআঁকি সবই ব্যর্থ।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [মান ৫]

1. “কেন তবে লেখা, কেন গান গাওয়া। কেন তবে আঁকাআঁকি?” এই মন্তব্যের মধ্য দিয়ে কবির কোন বিশেষ মনোভাবের প্রকাশ ঘটেছে আলোচনা করো।

অথবা, “কেন ভালোবাসা, কেন-বা সমাজ / কীসের মূল্যবোধ!” কবির এরূপ উক্তির তাৎপর্য বিশ্লেষণ করো।

অথবা, আমি কি তাকাব আকাশের দিকে / বিধির বিচার চেয়ে?” কবির এমন মন্তব্যের তাৎপর্য আলোচনা করো।

নাটক | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

বিভাব – নাটক | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. “তার আপিস নেই, কলেজ নেই, কিছু নেই।” কার সম্বন্ধে বলা হয়েছে?
(ক) নায়ক (শম্ভ) (খ) অমর (গ) পুলিশ (ঘ) বউদি

উত্তরঃ (ক) নায়ক (শম্ভ)

2. “রাজা রথারোহণম নাটয়টি।” এর অর্থ—
(ক) রাজা রথে আরোহণ করলেন (খ) রাজা রথ থেকে নামলেন (গ) রাজা রথে আরোহণ করার ভঙ্গি করলেন (ঘ) রাজা রথে চড়ে যুদ্ধযাত্রা করলেন

উত্তরঃ (গ) রাজা রথে আরোহণ করার ভঙ্গি করলেন

3. ‘বিভাব’ নাটকে রবীন্দ্রনাথের ব্যবহৃত গানটি হলো—
(খ) আমাদের জাতীয় সংগীত (গ) আমি রূপে তোমায় ভোলাব না (ঘ) আজ জ্যোৎস্না রাতে সবাই গেছে বনে

উত্তরঃ (ক) মালতী লতা দোলে

4. তুলসী লাহিড়ীর—নাটক থেকে বলি—(ফিল্মি ঢঙে) “আমি তো চললাম…”তুলসী লাহিড়ীর কোন নাটকের উক্তি?
(ক) ছেড়া তার (খ) পথিক (গ) নবান্ন (ঘ) এদের কোনোটিই নয়

উত্তরঃ (খ) পথিক

5. “হঠাৎ পেছন থেকে শোভাযাত্রীদের ক্ষীণ আওয়াজ শোনা যায়
(ক) চাল চাই, কাপড় চাই (খ) ফ্যান চাই, ভাত চাই (গ) অন্ন চাই, গৃহ চাই (ঘ) এর কোনোটিই নয়

উত্তরঃ (ক) চাল চাই, কাপড় চাই

6. “পরদা খুললে দেখা যায়…”
(ক) মঞ্চ ফাঁকা আছে (খ) মঞ্চ অন্ধকার (গ) মঞ্চ সম্পূর্ণ ফাঁকা (ঘ) মঞ্চে নায়ক দাঁড়িয়ে আছে

উত্তরঃ (গ) মঞ্চ সম্পূর্ণ ফাঁকা

7. “The night is calling me’- gattoria লেখা ?
(ক) বার্নার্ড শ (খ) শেলি (গ) শেকসপিয়র (ঘ) বায়রন

উত্তরঃ (ক) বার্নার্ড শ

8. লাভ সিন করতে হলে প্রথমেই কী দরকার?
(ক) একজন নায়ক এবং নায়িকা (খ) চাদ, আকাশ আর দক্ষিণের বাতাস (গ) গঙ্গার তীর বা গড়ের মাঠ (ঘ) সুদৃশ্য বাগান ও ফুলের সমারোহ

উত্তরঃ (ক) একজন নায়ক এবং নায়িকা

9. পৃথিবীতে সবচেয়ে পপুলার জিনিস কী?
(ক) প্রেম (খ) গসিপ (গ) লারেলাপ্পা (ঘ) পরচর্চা

উত্তরঃ (ক) প্রেম

10. ‘বিভাব’ নাটকটির অনুপ্রেরণা হলো—
(ক) জাপানি কাবুকি নাটক (খ) রবীন্দ্রনাথের নাটক (গ) দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের নাটক (ঘ) দীনবন্ধু মিত্রের নাটক

উত্তরঃ (ক) জাপানি কাবুকি নাটক

11. “এমনি সময় হঠাৎই এক সাহেবের লেখা পড়লাম।” এখানে কোন সাহেবের কথা বলা হয়েছে?
(ক) আইজেনস্টাইন (খ) আলেকজান্ডার (গ) লুই ফিলিপ (ঘ) চন্দ্রগুপ্ত

উত্তরঃ (ক) আইজেনস্টাইন

12. “হ্যা বল্লভভাই বলে গেছেন”– বল্লভভাই কী বলেছেন?
(ক) বাঙালিরা শক্তিশালী (খ) বাঙালিরা কাঁদুনে জাত (গ) বাঙালিরা ভীতু (ঘ) বাঙালিরা চোর

উত্তরঃ (খ) বাঙালিরা কাঁদুনে জাত

13. “মা ব্রুয়াৎ সত্যম অপ্রিয়ম”- কথাগুলি বলেছে?
(ক) শম্ভ (খ) অমর (গ) বউদি (ঘ) পুলিশ

উত্তরঃ (ক) শম্ভ

14. “তুমি তো সহজে মরবে না- ওগো তুমি পালাও তুমি। বীর– তুমি পালাও।” এখানে ‘তুমি’ হলো
(ক) নায়ক (শম্ভ) (খ) পুলিশ (গ) অমর (ঘ) পালোয়ান

উত্তরঃ (ক) নায়ক (শম্ভ)

15. “সংস্কৃতে তেরো পেয়েছিলাম বলে হেডপণ্ডিত স্কুলে। আমাকে প্রমোশন দেননি।” বক্তা কে?
(ক) শম্ভু (খ) অমর (গ) বউদি (ঘ) সার্জেন্ট

উত্তরঃ (খ) অমর

16. “কী অমর—এবার হাসি পাচ্ছে?” অমরকে কে একথা বলেছেন ?
(ক) শম্ভু মিত্র (খ) বউদি (গ) সার্জেন্ট (ঘ) কোনোটিই নয়

উত্তরঃ (ক) শম্ভু মিত্র

17. “আরে খিড়কি-সে কিউ উতার আয়া। চোট্টা হোঙ্গে। জরুর আরে-পাকড়ো।” বক্তা
(ক) পুলিশ (খ) অমর (গ) শম্ভু (ঘ) সার্জেন্ট

উত্তরঃ (খ) অমর
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [মান ১]

1. তুমি যে “Underground political leader”—কে, কাকে একথা বলেছে?

উত্তরঃ ‘বিভাব’ নাটক থেকে সংগৃহীত নাট্যাংশটিতে বউদি উক্ত কথাগুলি শম্ভু মিত্রকে বলেছে।

2. ‘বিভাব’ নাটকে অমর গাঙ্গুলি কোন নাট্যদলের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন ?

উত্তরঃ ‘বিভাব’ নাটকে অমর গাঙ্গুলি বহুরূপী নাট্যদলের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

3. “এইরে পুলিশ আসছে। লাগল ঝঞ্ঝাট।” পুলিশ আসছিল কেন ?

উত্তরঃ ‘চাল চাই, কাপড় চাই ইত্যাদি’ স্লোগান দিতে দিতে মেয়ে-পুরুষের শোভাযাত্রা এলে তা বন্ধ করার জন্য পুলিশ আসে।

4. “স্ত্রীর দুঃখটাই প্রধান সেখানে।” কোথায় স্ত্রীর দুঃখই প্রধান?

উত্তরঃ ‘বিভাব’ নাটকে কাবুকি থিয়েটারে যে আর্টিস্টিক এবং কাল্পনিক মৃত্যুর কথা বলা হয়েছে, সেই কাল্পনিক মৃত্যুতে স্ত্রীর দুঃখটাই প্রধান।

5. “ওঃ দাতাকর্ণ যে।” কে, কাকে দাতাকর্ণ বলেছেন?

উত্তরঃ ‘বিভাব’ নাটকে শম্ভু মিত্র অমর গাঙ্গুলিকে দাতাকর্ণ বলেছেন।

6. “কেয়া আপ দেখতে নেহি—চোখ খুলে চলতে জানেন না?” কে, কাকে, কেন একথা বলেছে?

উত্তরঃ ‘বিভাব’ নাটকে লাভ সিনে অভিনয় করার সময় নায়ক শম্ভু মিত্র নায়িকা বউদিকে মাঝ রাস্তায় ধাক্কা দিলে বউদি শম্ভু মিত্রকে এ কথা বলেছে।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [মান ৫]

1. “এবার নিশ্চয়ই লোকের খুব হাসি পাবে?” কী প্রসঙ্গে একথা বলা হয়েছে?

অথবা, “কী অমর এবার হাসি পাচ্ছে?” কোন প্রসঙ্গে এই বক্তব্য? বক্তব্যটির তাৎপর্য লেখো।

2. “এতে কোনো গল্প নেই, কোনও—যাকে বলে হিউম্যান ইন্টারেস্ট নেই – কোনো পপুলার অ্যাপিল নেই।” বক্তা কে? যে ঘটনা প্রসঙ্গে একথা বলা হয়েছে, তা নিজের ভাষায় বিশ্লেষণ করো।

3. “এই ঘরের মধ্যে জীবনকে উপলব্ধি করা যাবে না।” জীবনকে উপলব্ধি করার জন্য বক্তা কী করেছিলেন? শেষে তাঁর কীরুপ অভিজ্ঞতা হয়েছিল?

4. “বুদ্ধিটা কী করে এল তা বলি।” কোন বুদ্ধি এবং তা কীভাবে এল নাট্যকারকে অনুসরণ করে আলোচনা করো।

অথবা, “বুদ্ধিটা কী করে এল তা বলি।” বক্তা এখানে কোন বুদ্ধির কথা বলেছেন এবং তা প্রয়োগ করার কারণ কী ছিল? 5. “তাই অনেক ভেবেচিন্তে আমরা একটা প্যাচ বের করেছি”- কে, কোন প্রসঙ্গে মন্তব্যটি করেছেন তা আলোচনা করো।

6. “না না এটা আগের মতো নয়, এটা অন্য রকমের লভ সিন।” বক্তা যে অন্য ধরনের লভ সিন’-এর কথা বলেছেন তা বিবৃত করো।

অথবা, “এটা অন্য রকমের লভ সিন: প্রগ্রেসিভ লভ সিন।” কেন দৃশ্যটিকে প্রগ্রেসিভ বলা হয়েছে তা নিজের ভাষায় লেখো।

7. “নাঃ কোথাও জীবনের খোরাক, হাসির খোরাক নেই।” বক্তা কে? সে কেন একথা বলেছে ? এ থেকে তার কোন পরিচয় পাও ?

নানা রঙের দিন – নাটক | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. “মাইরি এই না হলো অ্যাকটিং!” একথা বলেছে
(ক) কালীনাথ (খ) রজনীবাবু (গ) দর্শক (ঘ) রামব্রিজ

উত্তরঃ (খ) রজনীবাবু

2. “Life’s but a walking shadow” – কোন নাটকে কথাগুলি আছে?
(ক) ম্যাকবেথ (খ) কিংলিয়র (গ) হ্যামলেট (ঘ) ওথেলো

উত্তরঃ (ঘ) ওথেলো

3. “গ্রিনরুমে ঘুমোই..”– কে ঘুমোন?
(ক) কালীনাথ সেন (খ) রামব্রীজ (গ) রজনীকান্ত চট্টোপাধ্যায় (ঘ) রামচরণ

উত্তরঃ (ক) কালীনাথ সেন

4. “শাহাজাদি! সম্রাটনন্দিনী! মৃত্যুভয় দেখাও কাহারে ?” কোন নাটকের সংলাপ ?
(ক) জনা (খ) মেবার পতন (গ) রিজিয়া (ঘ) নূরজাহান

উত্তরঃ (গ) রিজিয়া

5. নানা রঙের দিন’ নাটকের অভিনেতা রজনীকান্তর বয়স
(ক) ৫০ বছর (খ) ৬৮ বছর (গ) ৬০ বছর (ঘ) ৭০ বছর

উত্তরঃ (খ) ৬৮ বছর

6. “এ সব থিয়েটারী ভাষায় কী বকছেন বলুন তো?”
(ক) প্রলাপ (খ) বেতাল (গ) বেচাল (ঘ) আবোল-তাবোল

উত্তরঃ (ঘ) আবোল-তাবোল

7. “তারপর একদিন চাকরিটা ছেড়ে দিলাম কারণ~
(ক) স্বাধীনভাবে জীবন চালাতে চাইলাম (খ) নাটক নিয়ে জীবন শুরু করলাম (গ) ভালো চাকরির আশায় তৈরি হতে লাগলাম (ঘ) ব্যবসায়ী হওয়ার তালিম চলতে লাগল

উত্তরঃ (খ) নাটক নিয়ে জীবন শুরু করলাম

8. “আর জীবনে ভোর নেই, সকাল নেই, দুপুর নেই, সন্ধেও ফুরিয়েছে- এখন শুধু”
(ক) মৃত্যুর অপেক্ষা (খ) মাঝ রাত্রির অপেক্ষা (গ) বার্ধক্যের অপেক্ষা (ঘ) স্বপ্নের অপেক্ষা

উত্তরঃ (খ) মাঝ রাত্রির অপেক্ষা

9. “Farewell the tranquil mind! farewell content!” — কথাগুলো
(ক) ওথেলোর (খ) ম্যাকবেথের (গ) সিজারের (ঘ) অ্যান্টোনিওর

উত্তরঃ (ক) ওথেলোর

10. “রাজনীতি বড় কুট”– বক্তা হলেন—
(ক) মোরাদ (খ) যশোবন্ত (গ) ঔরঙ্গজেব (ঘ) শাহজাহান

উত্তরঃ (গ) ঔরঙ্গজেব

11. “তাহলে সে রাজনীতি আমার জন্য নয়।” সংলাপটি কার ?
(ক) মিরজুমলা (খ) সিরাজ (গ) কালীনাথ (ঘ) রজনী

উত্তরঃ (গ) কালীনাথ

12. “শিল্পকে যে মানুষ ভালোবেসেছে”– তার
(ক) একাকিত্ব নেই (খ) বার্ধক্য নেই (গ) রোগ নেই (ঘ) মৃত্যু নেই

উত্তরঃ (খ) বার্ধক্য নেই

13. “আমার শিরায় শিরায় কি জল বইছে? রক্ত বইছে না?” বক্তার শিরায় শিরায় বইছে—
(ক) রাজরক্ত (খ) নেশার রক্ত (গ) সদবংশের রক্ত (ঘ) পবিত্র রক্ত

উত্তরঃ (গ) সদবংশের রক্ত

14. “এক পা এক পা করে এগিয়ে চলেছে”—
(ক) গ্রিনরুমের দিকে (খ) মৃত্যুর দিকে (গ) অডিটোরিয়ামের দিকে (ঘ) বাড়ির দিকে

উত্তরঃ (খ) মৃত্যুর দিকে
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [মান ১]

1. “তার দরুন আজ সন্ধেবেলা নগদ তিনটে টাকা বকশিশও দিলুম ওকে”– কাকে, কী কারণে বকশিশ দেওয়া হয়েছিল ?

উত্তরঃ অভিনেতা রজনীকান্ত চট্টোপাধ্যায় রামব্রীজকে তিন টাকা বকশিশ দিয়েছিলেন, কারণ গত রাতে রজনী মদ গিলে গ্রিনরুমে পড়েছিলেন। তাকে ঘুম থেকে তুলে ট্যাক্সিতে তুলে দিয়েছিলেন রামব্রীজ।

2. “কাম অন, কুইক! মহম্মদের ক্যাচটা দাও তো”– মহম্মদ কে? কে মহম্মদের ক্যাচ দিয়েছিলেন ?

উত্তরঃ মহম্মদ হলেন মোগল সম্রাট ঔরঙ্গজেবের পুত্র। মহম্মদের ক্যাচ দিয়েছিলেন প্রম্পটার কালীনাথ সেন।

3. “এই তো জীবনের সত্য কালীনাথ”– সত্যটি কী ?

উত্তরঃ যার প্রতিভা আছে বয়স তার প্রতিবন্ধক হয় না। বয়সে তার কিছু যায় আসে না। এটাই তো জীবনের সত্য ও এই সত্যই উপলদ্ধি হয়েছে রজনীকান্তের।

4. “মৃত্যুভয়ের ওপর সে তো হাসতে হাসতে ডাকাতি করতে পারে”– কে ডাকাতি করতে পারে ?

উত্তরঃ যে মানুষ শিল্পকে ভালোবেসেছে সে বার্ধক্য, একাকিত্ব, রোগকে জয় করে মৃত্যুভয়কেও হাসতে হাসতে ডাকাতি করতে পারে।

5. “যা করেছি ধর্মের জন্য”— ধর্মের জন্য কে, কী করেছিলেন?

উত্তরঃ ‘নানা রাঙা দিন’ নাটকে নাট্যকার অজিতেশ বন্দ্যোপাধ্যায় সাজাহান’ নাটকের প্রসঙ্গ উত্থাপন করেছেন। নাটকটিতে দেখা যায়, ঔরঙ্গজেব ধর্মের জন্য সকলকে খুন করে সিংহাসন দখল করেছিলেন।

6. “তখন মনে মনে কত আশা, কত প্ল্যান”– কে, কীসের আশা বা প্ল্যান করেছিলেন?

উত্তরঃ ‘নানা রঙের দিন’ নাটকে তরুণ রজনী অভিনয় জীবনে একটি মেয়ের প্রেমে পড়েছিলেন, সেই মেয়েটিকে বিয়ে করার আশা বা প্ল্যানের কথাই এখানে বলা হয়েছে।

7. “বাঃ বাঃ বুঢ্ঢা। আচ্ছা হি কিয়া।” কে, কাকে একথা বলেছেন?

উত্তরঃ ‘নানা রঙের দিন’ নাটকে আলোচ্য কথাগুলি রজনী রামব্রীজকে বলেছেন।

8. “ও কী বললো জানো?” এখানে ‘ও’ বলতে কার কথা বলা হয়েছে? সে কাকে, কী বলেছিল?

উত্তরঃ ‘নানা রঙের দিন’ নাট্যাংশ থেকে উদ্ধৃতাশংটিতে রজনীর প্রেমিকার কথা বলা হয়েছে। রজনী তাকে বিয়ে করতে চাইলে সে রজনীকে অভিনয় পেশা ত্যাগ করতে বলেছিল।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [মান ৫]

1. “আমার আপনজন কেউ নেই–বউ নেই, ছেলেমেয়ে নেই। সঙ্গীসাথী নেই, কেউ কোথাও নেই— আমি একদম একা একেবারে নিঃসঙ্গ”- বক্তা কে? উক্তিটিতে বক্তার কী ভাবনা প্রকাশ পেয়েছে?

অথবা, “জীবনে ভোর নেই, সকাল নেই, দুপুর নেই— সন্ধেও ফুরিয়েছে— এখন শুধু মাঝরাত্তিরের অপেক্ষা।” উক্তিটিতে বক্তার যে মনোভাব প্রকাশ পেয়েছে, তা আলোচনা করো।

অথবা, “যারা বলে অভিনয় একটা পবিত্র শিল্প, তারা সব গাধা, গাধা।” বক্তা কে? উক্তিটির তাৎপর্য বিশ্লেষণ করো।

2. ‘নানা রঙের দিন’ নাটকটির নামকরণের সার্থকতা বিচার করো।

3. “ শিল্পকে যে মানুষ ভালোবেসেছে— তার বার্ধক্য নেই কালীনাথ” – ‘নানা রঙের দিন’ নাটক অবলম্বনে মন্তব্যটির তাৎপর্য লেখো।

4. ‘নানা রঙের দিন’ নাটক অবলম্বনে রজনীকান্ত চট্টোপাধ্যায়ের চরিত্র বিশ্লেষণ করো।

5. “ আমাদের দিন ফুরিয়েছে!” কে, কার প্রসঙ্গে এই উক্তি করেছেন? বক্তার এই উপলব্ধির কারণ ব্যাখ্যা করো।

আন্তর্জাতিক কবিতা | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

পড়তে জানে এমন এক মজুরের প্রশ্ন – আন্তর্জাতিক কবিতা | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. “সেখানে কি সবাই প্রসাদেই থাকত?” কোথায় থাকার কথা বলা হয়েছে?
(ক) লিমা (খ) বাইজেনটিয়াম (গ) ব্যাবিলন (ঘ) আটলান্টিস

উত্তরঃ (খ) বাইজেনটিয়াম

2. ব্যাবিলনের অবস্থান হলো—
(ক) আমেরিকায় (খ) জাপানে (গ) চিনে (ঘ) ইরাকে

উত্তরঃ (ঘ) ইরাকে

3. দ্বিতীয় ফ্রেডরিক জিতেছিলেন—
(ক) চার বছরের যুদ্ধে (খ) সাত বছরের যুদ্ধে (গ) এক বছরের যুদ্ধে (ঘ) পাঁচ বছরের যুদ্ধে

উত্তরঃ (খ) সাত বছরের যুদ্ধে

4. ‘গলদের’ নিপাত করেছিলেন—
(ক) আলেকজান্ডার (খ) সিজার (গ) দ্বিতীয় ফ্রেডরিক (ঘ) হিটলার

উত্তরঃ (খ) সিজার

5. “সেই সন্ধ্যায় কোথায় গেল রাজমিস্ত্রিরা?” রাজমিস্ত্রিদের কোন সন্ধ্যার কথা বলা হয়েছে?
(ক) চিনের প্রাচীর তৈরির শেষের সন্ধ্যার (খ) তাজমহল তৈরির শেষের সন্ধ্যার (গ) মনুমেন্ট তৈরির শেষের সন্ধ্যার (ঘ) ভিক্টোরিয়া তৈরির শেষের সন্ধ্যার

উত্তরঃ (ক) চিনের প্রাচীর তৈরির শেষের সন্ধ্যার
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [ মান ১ ]

1. “নিদেন একটা রাঁধুনি তত ছিল?” কার সঙ্গে, কখন রাঁধুনি থাকার কথা বলা হয়েছে?

উত্তরঃ রোমের সুখ্যাত সেনাপতি জুলিয়াস সিজারের সঙ্গে। সিজার যখন গলদের ধ্বংস করছিলেন তখন তার সঙ্গে রাঁধুনি থাকার কথা বলা হয়েছে।

2. “…ম্পেনের ফিলিপ কেঁদেছিল খুব।” কেন ফিলিপ কেঁদেছিলেন?

উত্তরঃ আর্মাডা ছিল স্পেন সম্রাট ফিলিপের গর্বস্বরূপ। ব্রিটিশ রণতরী বাহিনীর হাতে আর্মাডা বিধ্বস্ত হয়। ফলে ফিলিপের শোক ও পরিতাপের শেষ ছিল না।

3. “ভারত জয় করেছিল আলেকজান্ডার”– এই ইতিহাসকে কীভাবে দেখেছেন কবি?

উত্তরঃ আলেকজান্ডার ভারত জয় করেছিলেন, একথা ইতিহাস-স্বীকৃত। কিন্তু আলেকজান্ডারের এই কৃতিত্ব তার একার ছিল না। যে সাধারণ সৈনিকদের নির্ভীকতায় ও আত্মদানে ভারতবিজয় সম্ভব হয়েছিল, ইতিহাস তাদের মনে রাখেনি।

4. “খরচ মেটাত কে?” কীসের খরচ?

উত্তরঃ দশ-দশ বছরে কত অতি প্রভাবশালী মানুষদের উপস্থিতি ঘটেছে, তাদের জীবনধারণ ও সুখস্বাচ্ছন্দ্যের ব্যয়ভার।

5. “কে আবার গড়ে তুলল এতবার?” কী গড়ে তোলার কথা বলা হয়েছে?

উত্তরঃ আলোচ্য পঙক্তিটিতে ব্যাবিলন সভ্যতা গড়ে তোলার কথা বলা হয়েছে।

6. “রাজারা কি পাথর ঘাড়ে করে আনত?” উক্তিটির দ্বারা কী বোঝানো হয়েছে?

উত্তরঃ উদ্ধতাংশটির দ্বারা বোঝানো হয়েছে যে, থিবসের নির্মাণকর্মে রাজাদের কোনো সক্রিয় ভূমিকা ছিল না।

7. “যখন সমুদ্র তাকে খেল” কাকে খেল? তখন কী হয়েছিল?

উত্তরঃ আলোচ্য পঙক্তিটিতে আটলান্টিসকে খাওয়ার কথা বলা হয়েছে। আটলান্টিস সমুদ্রের অতল গর্ভে তলিয়ে যাওয়ার সময় ক্রীতদাসের জন্য চিৎকার করে উঠেছিল।

8. “কাদের জয় করল সিজার?” সিজার কে? তিনি কাদের জয় করেছিলেন?

উত্তরঃ সিজার প্রবল শক্তিমান রোমসম্রাট। জন্ম ১০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে। ফরাসি দেশের আদি অধিবাসী দুর্ধর্ষ ‘গল’ উপজাতিদের জয় করেছিলেন রোমসম্রাট সিজার।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান ৫ ]

1. “গলদের নিপাত করেছিল সিজার। নিদেন একটা রাঁধুনি তত ছিল?” কবি এখানে কোন ঘটনার কথা বলেছেন? পঙক্তিটিতে কবির কী মনোভাব প্রকাশিত হয়েছে?

অথবা, “গলদের নিপাত করেছিল সিজার। নিদেন একটি রাঁধুনি তো ছিল?” পঙক্তিটির ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট উল্লেখ করো এবং এর তাৎপর্য আলোচনা করো।

2. “কত সব খবর ! কত সব প্রশ্ন!” এখানে কী খবর এবং কার, কী প্রশ্নের কথা কবি জানিয়েছেন?

অথবা, “কত সব খবর! কত সব প্রশ্ন !” কবি বের্টোল্ট ব্রেখট ‘পড়তে জানে এমন এক মজুরের প্রশ্ন কবিতায় যে খবর এবং প্রশ্নের কথা জানিয়েছেন, তা সংক্ষেপে নিজের ভাষায় লেখো।

3. “কে জিতেছিল ? একলা সে?” ‘একলা সে’ বলতে কার কথা বলা হয়েছে? উক্তিটিতে কবির কী ভাবনা প্রকাশ পেয়েছে? অথবা, “সাত বছরের যুদ্ধ জিতেছিল দ্বিতীয় ফ্রেডারিক। কে জিতেছিল ? একলা সে?” উক্তিটির অন্তর্নিহিত ভাবনা পরিস্ফুট করো।

4. “স্পেনের ফিলিপ কেঁদেছিল খুব। আর কেউ কাদেনি?” স্পেনের ফিলিপ কেন কেঁদেছিল? আর কেউ কাদেনি’ পঙক্তিটিতে কবির কী মনোভাব প্রকাশিত হয়েছে?

অথবা, “স্পেনের ফিলিপ কেঁদেছিল খুব। ফিলিপ কে? তাঁর কঁদার কারণ কী ?

5. “এত যে শুনি বাইজেনটিয়াম, সেখানে কি সবাই প্রাসাদেই থাকত?” কবির এই মন্তব্যের তাৎপর্য আলোচনা করো।

ভারতীয় গল্প | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

অলৌকিক – ভারতীয় গল্প | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [ মান ১ ]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. “গল্পটা শুনতে বেশ ভালো লাগছিল।” গল্পটা হলো—
(ক) বলী কান্ধারীর গল্প (খ) শিষ্য মর্দানার জলপানের গল্প (গ) শিষ্য মর্দানার পাথর ভাঙার গল্প (ঘ) গুরু নানকের ধ্যানের গল্প

উত্তরঃ (ঘ) গুরু নানকের ধ্যানের গল্প

2. “সেখানে ঘনঘন সাকা হল”- “সাকা’ শব্দের অর্থ কী?
(ক) সাদা কালোয় মিশ্রণ করা (খ) মহৎ কাজে প্রাণোৎসর্গ করা (গ) অরন্ধন করা (ঘ) উৎসব করা

উত্তরঃ (খ) মহৎ কাজে প্রাণোৎসর্গ করা

3. “মার সঙ্গে তর্ক শুরু করি।” এর কারণ—
(ক) পাথর গুঁড়িয়ে দেওয়া সম্ভব নয় (খ) পাথর ছুড়ে মারা সম্ভব নয় (গ) পাথর অদৃশ্য করা সম্ভব নয় (ঘ) পাথরের চাঙর থামিয়ে দেওয়া সম্ভব নয়

উত্তরঃ (ঘ) পাথরের চাঙর থামিয়ে দেওয়া সম্ভব নয়

4. ‘গুরু নানকের পায়ের কাছে প্রায় মুছিত হয়ে পড়ল’— কার কথা বলা হয়েছে?
(ক) লেখকের (খ) বলী কান্ধারীর (গ) ভাই মর্দানার (ঘ) লেখকের মায়ের

উত্তরঃ (গ) ভাই মর্দানার

5. ‘অলৌকিক’ গল্পে গুরু নানকের যে ধ্বনি উচ্চারণের কথা আছে, তা হলো—
(ক) জয় মহাদেব (খ) জয় জগন্মাতা (গ) জয় নিরঙ্কর (ঘ) জয় মহাদিদেব

উত্তরঃ (গ) জয় নিরঙ্কর

6. হাসান আব্দালের বর্তমান নাম কী ?
(ক) বলী কান্ধারী (খ) পাঞ্জাসাহেব (গ) আব্দাল (ঘ) হাসান

উত্তরঃ (খ) পাঞ্জাসাহেব

7. বলী কান্ধারী মর্দানাকে কতবার ফিরিয়ে দিয়েছিলেন ?
(ক) চার বার (খ) এক বার (গ) দু’বার (ঘ) তিন বার

উত্তরঃ (ঘ) তিন বার

8. “মাস্টারমশাইয়ের সঙ্গেও তর্ক করলাম।” তর্কের বিষয়। হলো—
(ক) পাথর গুঁড়িয়ে দেওয়া (গ) পাথর অদৃশ্য করা (ঘ) পাথর ছুড়ে মারা

উত্তরঃ (খ) হাত দিয়ে পাথরের চাঙর থামিয়ে দেওয়া
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [ মান ১ ]

1. “চোখের জলটা তাদের জন্য এখানে কাদের কথা বলা হয়েছে?

উত্তরঃ আলোচ্য বাক্যটিতে যারা জীবনকে তুচ্ছ করে ট্রেন থামিয়েছিল তাদের কথা বলা হয়েছে।

2. “তারপর গুরু নানক ঘুরতে ঘুরতে এসে পৌঁছলেন…” উক্তিটি কার?

উত্তরঃ আলোচ্য উক্তিটি গল্পকারের মায়ের।

3. “তাকে সামনের পাথরটা তুলতে বলেন।” পাথরটা তোলার পর কী দেখা গিয়েছিল?

উত্তরঃ গুরু নানক শিষ্য মর্দানাকে সামনের পাথরটা তুলতে বললেন। পাথর তুলতেই দেখা গেল জলের ঝরনা বেরিয়ে এসেছে।

4. “ওঁর কাছে জল পেতে পার।” কার কাছে জল পাওয়া যেতে পারে? জলের প্রয়োজন হয়েছিল কেন?

উত্তরঃ জনৈক দরবেশ বলী কান্ধারীর কাছে জল পাওয়া যেতে পারে। গুরু নানকের শিষ্য মর্দানা পিপাসার্ত ছিলেন, তাই তার জন্য জলের প্রয়োজন হয়েছিল।

5. “গল্পটা আমাদের স্কুলে শোনানো হল।” গল্পটা কী?

উত্তরঃ গুরু নানক হাত দিয়ে পাথরের চাঙর থামিয়ে দিয়েছিলেন, এই গল্পটিই লেখক স্কুলে শুনেছিলেন।

6. মর্দানা কে ছিলেন?

উত্তরঃ মর্দানা ছিলেন গুরু নানকের একজন অত্যন্ত প্রিয়ভাজন শিষ্য।

7. “আমি কাফেরের শিষ্যকে এক গণ্ডষ জল দেব না।” কে, কাকে কাফের বলেছে?

উত্তরঃ অলৌকিক গল্প থেকে সংকলিত উদ্ধৃতাংশটিতে বলী কান্ডারী গুরু নানককে কাফের বলেছে।

8. “গল্পটা মনে পড়লেই হাসি পেত।” কোন গল্পের কথা বলা হয়েছে?

উত্তরঃ গুরু নানক হাত দিয়ে পাথরের চাঙর থামিয়ে দিয়েছিলেন। এই গল্পটি মনে পড়লেই লেখকের হাসি পেত।

9. “গল্পটা বার কয়েক গুরুদ্বারাতেও শুনেছি।” কোন গল্পের কথা বলা হয়েছে?

উত্তরঃ গুরু নানক হাত দিয়ে পাথরের চাঙর থামিয়ে দিয়েছিলেন, এই গল্পের কথাই উদ্ধৃতাংশটিতে বলা হয়েছে।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান ৫ ]

1. “মায়ের বান্ধবী আমাদের সমস্ত ঘটনাটা শোনালেন।” ঘটনাটির বর্ণনা দাও এই ঘটনা শোনার পর বক্তার মধ্যে কী প্রতিক্রিয়া হয়েছিল?

2. “গুরু নানকের হাতের ছাপ ওতে আজও লেগে রয়েছে।” ‘গুরু নানকের হাতের ছাপ কোথায় লেগে আছে? এই প্রসঙ্গে বর্ণিত ঘটনাটি উল্লেখ করো।

3. “গল্পটা মনে পড়লেই হাসি পেত।” কোন গল্প স্মরণ করে হাসি পেত? গল্পটা মনে পড়লে কেন হাসি পেত?

অথবা, “গল্পটা শুনতে বেশ ভালো লাগছিল।” গল্পটি নিজের ভাষায় লেখো।

অথবা, “গল্পটা বার কয়েক গুরুদ্বারাতেও শুনেছি”– কোন গল্পের কথা বলা হয়েছে? গল্পটি সংক্ষেপে বর্ণনা করো।

4. “পাঞ্জাসাহেবে পৌছে এক আশ্চর্য ঘটনার কথা জানতে পারি।” আশ্চর্য ঘটনাটির বর্ণনা দাও।

পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

আমার বাংলা – পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান ৫ ]

1. “জমিদারকে টঙ্ক দিতে গিয়ে চাষিরা ফকির হয়।” চাষিদের এমন অবস্থা হওয়ার কারণ কী?

অথবা, “জমিদারকে টঙ্ক দিতে গিয়ে চাষিরা ফকির হয়।” “গারো পাহাড়ের নীচে রচনা অবলম্বনে উদ্ধৃতিটির বিশ্লেষণ করো।

অথবা, “একটা দুষ্ণু শনি কোথাও কোনো আনাচে লুকিয়ে আছে।” “গারো পাহাড়ের নীচে’ রচনা অবলম্বনে দুষ্টু শনির পরিচয় দাও।

অথবা, চাষিরা প্রচুর পরিমাণে ফসল উৎপন্ন করলেও তাদের জীবনে শান্তি ছিল না কেন তা ‘গারো পাহাড়ের নীচে’রচনা অবলম্বনে লেখো।

2. “এ হচ্ছে এক বিশেষ জেলখানা।” বিশেষ জেলখানাটির নাম কী ? জেলখানাটির পরিচয় দাও।

অথবা, “এ হচ্ছে এক বিশেষ জেলখানা।” বক্তার এরূপ উক্তির কারণ কী?

3. “এরা ছাড়াও জেলখানায় একদল অভিজাত শ্রেণির কয়েদি আছে।” “এরা বলতে কাদের কথা বলা হয়েছে? কোন জেলখানায় তারা বন্দি ছিল? জেলখানার অভিজাত শ্রেণির কয়েদিদের পরিচয় দাও।

4. “আজ ইংরেজ নেই, তবু তার আগের ব্যবস্থাই বহাল আছে বক্সায়। এখানে কোন ব্যবস্থার কথা বলা হয়েছে? বক্সায় এই ব্যবস্থা বজায় থাকার বিবরণ

অথবা, “আজ ইংরেজ নেই, তবু তার আগের ব্যবস্থাই বহাল আছে বক্সায়। কোন ব্যবস্থার কথা এখানে বলা হয়েছে? যখন বক্সায় ইংরেজরা বন্দিশিবির তৈরি করেছিল, তখন সেখানকার পরিবেশ কেমন ছিল?

5. ‘বাংলার মানচিত্রে খুঁজে পেলেও সে দেশ বাংলার নয়। কোন দেশের কথা বলা হয়েছে? বাংলার মানচিত্রে খুঁজে পেলেও কেন এদেশ বাংলা নয়? দেশটির পরিচয় দাও।

অথবা, বক্সা বন্দিশিবির জেলখানাটির পরিচয় দাও।

6. গারো পাহাড়ের নীচে যারা বাস করে তাদের জীবনযাত্রার সংক্ষিপ্ত বর্ণনা দাও।

7. হাত বাড়াও রচনাটির মূল বক্তব্য সংক্ষেপে বর্ণনা করো।

8. “তাই প্রজারা বিদ্রোহী হয়ে উঠল।” প্রজারা বিদ্রোহী হয়ে উঠেছিল কেন? কে তাদের বিদ্রোহে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন?

9. “তোমরা হাত বাড়াও, তাকে সাহায্য করো।” লেখক কাকে, কীভাবে, কেন সাহায্য করতে বলেছেন ?

ভাষা | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

ধ্বনিতত্ত্ব – ভাষা | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. তাড়িত অল্পপ্রাণ ধ্বনিটি—-
(ক) র (খ) ড় (গ) ল (ঘ) শ

উত্তরঃ (খ) ড়

2. বাংলার স্বরধ্বনির সংখ্যা
(ক) ৫ (খ) ৭ (গ) ৯ (ঘ) ১১টি

উত্তরঃ (খ) ৭

3. নীচের কোনটি বাগযন্ত্রের অন্তর্ভুক্ত নয়?
(ক) কণ্ঠ (খ) তালু (গ) দন্ত (ঘ) মস্তক

উত্তরঃ (ঘ) মস্তক

4. নীচের কোনটি বাগযন্ত্রের অন্তর্ভুক্ত নয় ?
(ক) দন্ত (খ) নাসিকা (গ) কর্ণ (ঘ) কণ্ঠ

উত্তরঃ (গ) কর্ণ

5. ‘ল’ ধ্বনিটি
(ক) কম্পিত ধ্বনি (খ) নাসিক্য ধ্বনি (গ) উষ্ম ধ্বনি (ঘ) পার্শ্বিক ধ্বনি

উত্তরঃ (ঘ) পার্শ্বিক ধ্বনি

6. পার্শ্বিক ধ্বনি বলা হয়—
(ক) ম (খ) র (গ) ল (ঘ) শ

উত্তরঃ (গ) ল

7. বাংলায় অর্ধ স্বরধ্বনি হলো—
(ক) ২টি (খ) ৩টি (গ) ৪টি (ঘ) ৫টি

উত্তরঃ (গ) ৪টি
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [ মান ১ ]

1. লোক নিরুক্তি কাকে বলে? উদাহরণ দাও।

উত্তরঃ দীর্ঘ সময় ধরে ভিন্ন ভাষা সংযোগ এবং পারিপার্শ্বিক সাংস্কৃতিক আদানপ্রদানে ফলে কোনো একটি শব্দ অন্য একটি শব্দের দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়, ফলে নতুন শব্দটি আমাদের কাছে পরিচিত ও জনপ্রিয় হয়ে ওঠে তাকে লোক নিরুক্তি বলে। যেমন— আমচেয়ার > আরামচেয়ার।

2. ধ্বনি ও বর্ণের পার্থক্য কী?

উত্তরঃ বাগযন্ত্রের সাহায্যে আমরা যা উচ্চারণ করি তা হলো ধ্বনি। অন্যদিকের ধ্বনির লিখিত রূপ হলো বর্ণ।

3. বিভাজ্য ধ্বনি কী ?

উত্তরঃ খণ্ডধ্বনিকে বিভাজ্য ধ্বনি বলা হয়। ব্যাকরণে খণ্ডধ্বনির গুরুত্ব অধিক।

4. ঘোষীভবন কাকে বলে?

উত্তরঃ কোনো কোনো সময় অঘোষধ্বনি উচ্চারণকালে ঘোষধ্বনিতে রূপান্তরিত হয়ে যায়, একে ঘোষীভবন বলে। যেমন— কাক > কাগ, শাক > শাগ।

5. মৌলিক স্বরধ্বনি কাকে বলে? একটি উদাহরণ দাও।

উত্তরঃ যে স্বরধ্বনিকে ভাঙা যায় না তাকে মৌলিক স্বরধ্বনি বলে। বাংলায় ১১টি স্বরধ্বনির মধ্য ৭টি স্বরধ্বনিকে মৌলিক স্বরধ্বনি বলা হয়। উদাহরণ— ‘অ’, ‘আ’, ই’, ‘অ্যা’, ‘এ’ এবং ‘ও।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান ৫ ]

ভাষাবিজ্ঞান ও তার বিভিন্ন শাখা

1. বর্ণনামূলক ভাষাবিজ্ঞান বলতে কী বোঝো? এর যেকোনো দুটি শাখা নিয়ে আলোচনা করো।

2. ধ্বনিমূলের অবস্থান ও সমাবেশ বলতে কী বোঝো?

3. সমন্বয়ী রূপমূল এবং নিম্পাদক রূপমূল বলতে কী বোঝো? উদাহরণ সহ আলোচনা করো।

4. উদাহরণ সহ ধ্বনিমূল ও সহধ্বনির সম্পর্ক নির্ণয় করো।

বাক্যতত্ত্ব – ভাষা | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. ‘পদযুগলের সংগঠন তত্ত্ব’-এর প্রবক্তা ছিলেন
(ক) নোয়াম চমস্কি (খ) সুকুমার সেন (গ) পটার (ঘ) স্যাপির

উত্তরঃ (ক) নোয়াম চমস্কি

2. অনুসর্গ গুচ্ছ— এই জোটে শাসনক্ষমতা থাকে—
(ক) পরসর্গের হাতে (খ) উপসর্গের হাতে (গ) ক্রিয়াপদের হাতে (ঘ) ক্রিয়াজোটের হাতে

উত্তরঃ (ক) পরসর্গের হাতে

3. পদগুচ্ছ সংগঠনের প্রধান দুটি ভাগ হলো—
(ক) উদ্দেশ্য ও বিধেয় (খ) বিশেষ্যগুচ্ছ ও ক্রিয়াগুচ্ছ (গ) বিশেষ্য ও বিধেয় (ঘ) বিশেষ্য ও নির্দেশক

উত্তরঃ (খ) বিশেষ্যগুচ্ছ ও ক্রিয়াগুচ্ছ

4. ভাষায় শব্দ জুড়ে বাক্য গঠনের নিয়মাবলিকে বলা হয়—
(ক) ধ্বনিতত্ত্ব (খ) শব্দার্থ তত্ত্ব (গ) বাক্যতত্ত্ব (ঘ) রূপতত্ত্ব

উত্তরঃ (গ) বাক্যতত্ত্ব
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [মান ১]

1. সরল বাক্যে কয়টি উদ্দেশ্য এবং কয়টি বিধেয় থাকে?

উত্তরঃ সরল বাক্যে একটি উদ্দেশ্য এবং একটি বিধেয় থাকে।

2. বাক্য গঠনের কয়টি নিয়ম ও কী কী?

উত্তরঃ বাক্য গঠনের দু’টি নিয়ম—
(ক) পদের ক্রম এবং (খ) এক পদের সঙ্গে অন্য পদের সম্পর্ক।

3. অর্থগত দিক থেকে বাংলা বাক্যকে মূল কয়টি ভাগে ভাগ করা যায় এবং কী কী ?

উত্তরঃ অর্থগত দিক থেকে বাংলা বাক্যকে চার ভাগে ভাগ করা যায়। তা হলো নির্দেশক, প্রশ্নবাচক, বিস্ময়বাচক এবং অনুজ্ঞাবাচক।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [মান ৫]

1. বাক্যের অব্যবহিত দুটি উপাদান বিশ্লেষণ করে দেখাও।

অথবা, বাক্যের অব্যবহিত উপাদান হিসেবে বিশেষ্য বা বিশেষ্যগুচ্ছ এবং ক্রিয়াজোট বা ক্রিয়াগুচ্ছ সম্পর্কে আলোচনা করো।

শব্দার্থ তত্ত্ব – ভাষা | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. শব্দের আদি অর্থের সঙ্গে পরিবর্তিত অর্থের যোগসূত্র না পাওয়া গেলে সেই পরিবর্তনকে বলা হয়—
(ক) উৎকর্ষ (খ) অপকর্ষ (গ) সংকোচ (ঘ) রূপান্তর

উত্তরঃ (ঘ) রূপান্তর

2. ‘থিসাস’-এ শব্দ বিন্যস্ত থাকে—
(ক) বর্ণানুক্রমিক (খ) শব্দানুক্রমিক (গ) অর্থানুক্রমিক (ঘ) বিষয়ানুক্রমিক

উত্তরঃ (ঘ) বিষয়ানুক্রমিক

3. শব্দার্থের দ্বিতীয় ভাগটিকে বলা হয়—
(ক) খণ্ডিত অর্থ (খ) ব্যঞ্জনা অর্থ (গ) নিদর্শন (ঘ) সাধারণ অর্থ

উত্তরঃ (গ) নিদর্শন

4. ‘থিসরাস’ শব্দের বুৎপত্তিগত অর্থ হলো—
(ক) ধারাবাহিকতা (খ) শব্দার্থ (গ) রত্নাগার (ঘ) বিপরীতার্থ

উত্তরঃ (গ) রত্নাগার

5. শব্দার্থকে প্রধানত ভাগ করা যায়—
(ক) এক ভাগে (খ) দুই ভাগে (গ) তিন ভাগে (ঘ) চার ভাগে

উত্তরঃ (খ) দুই ভাগে

6. ‘থিসরাস’ শব্দটি হলো—
(ক) ইংরেজি শব্দ (খ) বর্মি শব্দ (গ) গ্রিক শব্দ (ঘ) লাতিন শব্দ

উত্তরঃ (গ) গ্রিক শব্দ

7. ‘অন্ন’ শব্দের আদি অর্থ ‘খাদ্য, পরিবর্তিত অর্থ ‘ভাত’ এটি শব্দার্থ পরিবর্তনের কোন ধারা ?

(ক) অর্থের সংকোচ (খ) অর্থের প্রসার (গ) অর্থের রূপান্তর (ঘ) এদের কোনোটিই নয়

উত্তরঃ (ক) অর্থের সংকোচ
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [ মান ১ ]

1. শব্দার্থ তত্ত্বের দুটি শাখার নাম লেখো।

উত্তরঃ শব্দার্থ তত্ত্বের দু’টি শাখা হলো— উপাদানমূলক তত্ত্ব এবং সত্যসাপেক্ষ তত্ত্ব।

2. শব্দার্থের রূপান্তর’ অন্য কী নামে পরিচিত?

উত্তরঃ শব্দার্থের রূপান্তর অর্থ সংক্রম বা অর্থ সংশ্লেষ নামে পরিচিত।

3. একজন বিদেশি থিসরাস’ প্রণেতার নাম লেখো।

উত্তরঃ একজন বিদেশি থিসরাস প্রণেতার নাম হলো পিটার মার্ক রজেট। তিনি ১৮০৫ সালে এই ধরনের অভিধান রচনা করেন।

4. শব্দার্থের রূপান্তর কাকে বলে?

উত্তরঃ অনেক সময় শব্দের পরিবর্তন এমনভাবে হয় যে আদি অর্থের সঙ্গে পরিবর্তিত নতুন অর্থটির যোগসূত্র পাওয়া যায় না, তাকে শব্দার্থের রূপান্তর বলে। উদাহরণ– গবেষণা, দারুণ।

5. শব্দার্থের সংকোচ বলতে কী বোঝো?

উত্তরঃ সময়ে সময়ে কোনো শব্দের পূর্বের ব্যাপক অর্থ ব্যতিরেকে বর্তমানে এক নির্দিষ্ট অর্থে ব্যবহৃত হওয়ার রীতিকে বলা হয় শব্দার্থের সংকোচ। উদাহরণ- মৃগ, প্রদীপ।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান ৫ ]

1. শব্দার্থের বিষয়মূলক তত্ত্বটি উদাহরণ সহ আলোচনা করো।

2. শব্দার্থের প্রয়োগমূলক তত্ত্বটি উদাহরণ সহ আলোচনা করো।

3. শব্দার্থ পরিবর্তনের ধারাগুলির পরিচয় দাও।

অথবা, শব্দার্থ পরিবর্তনের প্রধান তিনটি ধারা সম্পর্কে আলোচনা করো।

অথবা, শব্দার্থের প্রসার, শব্দার্থের সংকোচ ও শব্দার্থের রূপান্তর বলতে কী। বোঝো?

অথবা, শব্দার্থ পরিবর্তনের প্রধান ধারাগুলি উল্লেখ করে যেকোনো দুটি ধারার উদাহরণ সহ পরিচয় দাও।

অথবা, শব্দার্থ পরিবর্তনের স্বরূপ আলোচনা করো।

4. থিসরাস কী ?

5. শব্দার্থ পরিবর্তনের কারণগুলি সংক্ষেপে আলোচনা করো।

রূপতত্ত্ব – ভাষা | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. পদ গঠনের চরিত্র অনুযায়ী সমাস
(ক) দুই প্রকার (খ) তিন প্রকার (গ) চার প্রকার (ঘ) পাঁচ প্রকার

উত্তরঃ (খ) তিন প্রকার

2. শব্দকে আমরা এককরূপে পাই একমাত্র
(ক) বিশেষ্য পদে (খ) বিশেষণ পদে (গ) সর্বনাম পদে (ঘ) অভিধানে

উত্তরঃ (ঘ) অভিধানে

3. স্বাধীন রূপমূলের উদাহরণ হলো—
(ক) ছাত্ররা (গ) ছাত্রকে (ঘ) ছাত্রদের

উত্তরঃ (খ) ছাত্র

4. ভাষার সবচেয়ে ছোটো অর্থপূর্ণ একক হলো—
(ক) শব্দার্থ তত্ত্ব (খ) রূপতত্ত্ব (গ) ধ্বনিতত্ত্ব (ঘ) বাক্যতত্ত্ব

উত্তরঃ (খ) রূপতত্ত্ব

5. পরাধীন ব্যাকরণসম্মত রূপমূল কত প্রকার ?
(ক) দুই প্রকার (খ) তিন প্রকার (গ) চার প্রকার (ঘ) পাচ প্রকার

উত্তরঃ (ক) দুই প্রকার
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [ মান ১ ]

1. অবস্থান অনুযায়ী প্রত্যয় কত প্রকার ও কী কী?

উত্তরঃ অবস্থান অনুযায়ী প্রত্যয় দুই প্রকার। যথাক্রমে— (ক) কৃৎ প্রত্যয় এবং (খ) তদ্ধিধ প্রত্যয়।

2. দুটি পরাধীন রূপমূলের উদাহরণ দাও।

উত্তরঃ পরাধীন রূপমূল স্বাধীন রূপমুলের সঙ্গে যুক্ত থাকে। এর একক ব্যবহার নেই। যেমন মানুষকে, ‘কে’ এখানে পরাধীন রূপমূল। মাছওয়ালা, ‘ওয়ালা’ এখানে পরাধীন রূপমূল।

3. প্রত্যয় কাকে বলে?

উত্তরঃ প্রত্যয় হলো ধ্বনি বা ধ্বনি সমষ্টি যা পদ বা ধাতুর সঙ্গে যুক্ত হয়ে নতুন পদ ৩ন করে। কখনো কখনো পদের পরিবর্তনও করে বলে তাকে প্রত্যয় বলে।

4. জোড়কলম শব্দ কাকে বলে?

উত্তরঃ কখনো একই ভাষার বা ভিন্ন ভিন্ন ভাষার দুটি পৃথক কাটা শব্দ জোড়া করে যে শব্দ তৈরি হয়, তাকে জোড়কলম শব্দ বলে। যেমন— ধোঁয়া + কুয়াশা = ধোঁয়াশা, tiger + lion = tigon.

5. উপসর্গ কাকে বলে?

উত্তরঃ উপসর্গ এক ধরনের অব্যয়, যা শব্দের আগে বসে তার অর্থ পরিবর্তন করে। উপসর্গকে অনেক সময় পদের আদিতে বসা তদ্ধিত প্রত্যয়ও বলা হয়।

6. পদ গঠনের চরিত্রের ভিন্নতা অনুযায়ী সমাসকে কয় ভাগে ভাগ করা যায়?

উত্তরঃ পদ গঠনের চরিত্রের ভিন্নতা অনুযায়ী সমাসকে তিন ভাগে ভাগ করা যায়। যথাক্রমে– (ক) দ্বন্দ্ব সমাস, (খ) ব্যাখ্যামূলক সমাস, (গ) বর্ণনামূলক সমাস।

7. সহরূপ কী?

উত্তরঃ রূপের অর্থ না বদলে যখন রূপের বৈচিত্র্য দেখা যায়, তখন সেই বৈচিত্র্যকে ‘সহরূপ’ বলে।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান ৫ ]

1. শব্দগঠনের প্রক্রিয়া বা কৌশলগুলি আলোচনা করো।

2. প্রত্যয় কাকে বলে? ব্যবহারিক প্রয়োগের অবস্থান অনুযায়ী প্রত্যয়কে কয়টি ভাগে ভাগ করা যায় ও কী কী? প্রত্যেকটি ভাগের একটি করে উদাহরণ দাও।

অথবা, প্রত্যয় কাকে বলে? প্রত্যয় কয় প্রকার ও কী কী? প্রত্যেকটি ভাগের উদাহরণ সহ সংজ্ঞা লেখো।

শিল্প-সাহিত্য সংস্কৃতি | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

বাংলা গানের ধারা – শিল্প-সাহিত্য সংস্কৃতি | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. সত্যজিৎ রায়ের পথের পাঁচালী’র সংগীত পরিচালকের নাম কী?
(ক) আলাউদ্দিন খান (খ) আলি আকবর খান (গ) ওস্তাদ রশিদ খান (ঘ) পণ্ডিত রবিশংকর

উত্তরঃ (ঘ) পণ্ডিত রবিশংকর

2. ‘পক্ষীর জাতিমালা’ নামে সমের পাঁচালি দল কে গড়েন?
(ক) শিবচন্দ্র ঠাকুর (খ) রামনারায়ণ মিশ্র (গ) গৌরহরি দাস মহাপাত্র (ঘ) যতীন্দ্রমোহন ঠাকুর

উত্তরঃ (গ) গৌরহরি দাস মহাপাত্র

3. চর্যার যুগে সংগীতে ক’টি অঙ্গ দেখা যায় ?
(ক) একটি (খ) পাঁচটি (গ) চারটি (ঘ) ছয়টি

উত্তরঃ (ঘ) ছয়টি

4. “ওই মহাসিন্ধুর ওপার হতে” গানটির রচয়িতা কে?
(ক) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (খ) অতুলপ্রসাদ সেন (গ) দ্বিজেন্দ্রলাল রায় (ঘ) রজনীকান্ত সেন

উত্তরঃ (গ) দ্বিজেন্দ্রলাল রায়

5. “মায়ের দেওয়া মোটা কাপড় মাথায় তুলে নে রে ভাই” গানটি কার রচনা?
(ক) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (খ) অতুলপ্রসাদ সেন (গ) কাজী নজরুল ইসলাম (ঘ) রজনীকান্ত সেন

উত্তরঃ (ঘ) রজনীকান্ত সেন

6. ঋত্বিক ঘটকের বাড়ি থেকে পালিয়ে’ চলচ্চিত্রের সংগীত পরিচালনা কে করেন?
(ক) সলিল চৌধুরী (খ) বাহাদুর খাঁ (গ) পণ্ডিত রবিশংকর (ঘ) জ্যোতিরিন্দ্র মৈত্র

উত্তরঃ (ক) সলিল চৌধুরী
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান ৫ ]

1. কিশোর কুমার-এর প্রকৃত নাম কী? বাংলা গানের ধারায় তার অবদান আলোচনা করো।

2. বাংলা গানের ধারায় অতুলপ্রসাদ সেন অথবা হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের অবদান আলোচনা করো।

3. বাংলা গানের ধারায় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের অবদান সংক্ষেপে আলোচনা করো। রবীন্দ্র সমসাময়িক দু’জন বিশিষ্ট গীতিকারের নাম লেখো।

4. সংগীত জগতে মান্না দে-র ভূমিকা আলোচনা করো।

অথবা, বাংলা গানের ইতিহাসে মান্না দে-র অবদান আলোচনা করো।

বাঙলির চিত্রকলা – শিল্প-সাহিত্য সংস্কৃতি | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. শিল্পী নন্দলাল বসু কার ছাত্র ছিলেন?
(ক) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের (খ) দেবীপ্রসাদ রায়চৌধুরীর (গ) অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরের (ঘ) গুণেন্দ্রনাথ ঠাকুরের

উত্তরঃ (গ) অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরের

2. বিশ্বভারতীর হিন্দি ভবনের দেওয়ালে আঁকা ৭৭ ফুট বিস্তৃত, ৮ ফুট দীর্ঘ মধ্যযুগের সন্তগণ নামে পরিচিত ছবিটি কার সৃষ্টি?
(ক) বিনোদবিহারী মুখোপাধ্যায়ের (খ) রামকিঙ্কর বেইজ-এর (গ) দেবীপ্রসাদ রায়চৌধুরীর (ঘ) জয়নুল আবেদিনের

উত্তরঃ (ক) বিনোদবিহারী মুখোপাধ্যায়ের

3. ‘অষ্টসহাস্ৰিকা-প্রজ্ঞাপারমিতা’ নামের তালপাতার পুঁথিটির বারোটি রঙিন ছবির সময়কাল
(ক) আনুমানিক ৯৮৩ খ্রি: (খ) আনুমানিক ৯০০ খ্রি: (গ) আনুমানিক ৯৩৩ খ্রি: (ঘ) আনুমানিক ৯৮০ খ্রি:

উত্তরঃ (ক) আনুমানিক ৯৮৩ খ্রি:

4. অভিধানে ‘পট’ শব্দটির অর্থ
(ক) পতাকা (খ) পুস্তক (গ) চিত্র (ঘ) সংগীত

উত্তরঃ (গ) চিত্র

5. লন্ডনে ‘গ্রেট ইগজিবিশন’ প্রদর্শিত হয় কত সালে?
(ক) ১৮৫০ সালে (খ) ১৮৫১ সালে (গ) ১৮০০ সালে (ঘ) ১৮৫৪ সালে

উত্তরঃ (খ) ১৮৫১ সালে

6. জুবিলি আর্ট আকাডেমি’ কে প্রতিষ্ঠা করেন ?
(ক) রণদাপ্রসাদ গুপ্ত (খ) হেনরি হোভার লক (গ) আর্নেস্ট বিনকিন্ড হ্যাভেল (ঘ) অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর

উত্তরঃ (ক) রণদাপ্রসাদ গুপ্ত
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান ৫ ]

1. বাঙালির চিত্রকলা চর্চার ধারায় বিনোদবিহারী মুখোপাধ্যায় অথবা দেবীপ্রসাদ রায়চৌধুরীর অবদান আলোচনা করো।

2. চিত্রকর যামিনী রায়ের পরিচয় সহ তার চিত্রকলা চর্চা সম্পর্কে তোমার মতামত লিপিবদ্ধ করো।

অথবা, বাংলা চিত্রকলার ইতিহাসে যামিনী রায়ের অবদান সম্পর্কে যা জানোনা লেখো।

3. বাঙালির চিত্রকলা চর্চার ধারায় গগনেন্দ্রনাথ ঠাকুরের অবদান সংক্ষেপে আলোচনা করো।
বাংলা চলচ্চিত্রের কথা – শিল্প-সাহিত্য সংস্কৃতি | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন 2020 | Higher Secondary Bengali Suggestion 2020

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. হিরালাল সেন ও মতিলাল সেন ভ্রাতৃদ্বয় কবে ‘রয়্যাল বায়োস্কোপ কোম্পানি’ তৈরি করেন?
(ক) ১৮৯৮ সালে (খ) ১৮৯৬ সালে (গ) ১৮৯৯ সালে (ঘ) ১৮৮০ সালে

উত্তরঃ (ক) ১৮৯৮ সালে

2. ভারতীয় চলচ্চিত্রে প্রথম তথ্যচিত্রকার কে ছিলেন?
(ক) মতিলাল সেন (খ) লুই লুমিয়ের (গ) অগাস্ট (ঘ) হিরালাল সেন

উত্তরঃ (খ) লুই লুমিয়ের

3. ১৯৬২ সালে নির্মিত ঋত্বিক ঘটকের প্রথম ছবি নাগরিক’ কবে মুক্তি পায়?
(ক) ১৯৭৭ সালে (খ) ১৯৫৩ সালে (গ) ১৯৫৫ সালে (ঘ) ১৯৭০ সালে

উত্তরঃ (ক) ১৯৭৭ সালে

4. কত সালে প্রথম বাংলা সবাক সিনেমা মুক্তি পেয়েছিল?
(ক) ১৯৩৬ সালের ১৬ এপ্রিল (খ) ১৯১৩ সালের ১৩ মে (গ) ১৯২৯ সালের ১ জানুয়ারি (ঘ) ১৯৩১ সালের ১১ এপ্রিল

উত্তরঃ (ঘ) ১৯৩১ সালের ১১ এপ্রিল

5. ১৯৩২ সালে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তার কোন নাটককে চলচ্চিত্রায়িত করেন ?
(ক) শ্যামা (খ) রাজা (গ) চিত্রাঙ্গদা (ঘ) নটীর পূজা

উত্তরঃ (ঘ) নটীর পূজা

6. মৃণাল সেনের প্রথম ছবি হলো—
(ক) রাতভোর (খ) নীল আকাশের নীচে (গ) আকালের সন্ধানে (ঘ) কোরাস

উত্তরঃ (ক) রাতভোর
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [মান ৫]

1. বাংলা তথ্যচিত্রের ধারাটির পরিচয় দাও।

অথবা, বাংলা চলচ্চিত্রের ধারায় তথ্যচিত্রের ধারাটির পরিচয় দাও।

2. বাংলা চলচ্চিত্রের ইতিহাসে তপন সিংহের অবদান সম্পর্কে সংক্ষেপে আলোচনা করো।

অথবা, বাংলা চলচ্চিত্র জগতে তপন সিংহের অবদান আলোচনা করো।

বাঙালির বিজ্ঞানচর্চা – শিল্প-সাহিত্য সংস্কৃতি | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [ মান ১ ]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. হিন্দু কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়–
(ক) ১৮৪৭ খ্রিস্টাব্দে (খ) ১৮২৭ খ্রিস্টাব্দে (গ) ১৮১৭ খ্রিস্টাব্দে (ঘ) ১৮৩৭ খ্রিস্টাব্দে

উত্তরঃ (গ) ১৮১৭ খ্রিস্টাব্দে

2. এশিয়াটিক সোসাইটির প্রথম ভারতীয় সভাপতির নাম
(ক) পানন কর্মকার (খ) রাজা রাজেন্দ্রলাল মিত্র (গ) হরপ্রসাদ শাস্ত্রী (ঘ) ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর

উত্তরঃ (খ) রাজা রাজেন্দ্রলাল মিত্র

3. কুন্তলীন পুরস্কার কে প্রবর্তন করেন?
(ক) রসিকলাল দত্ত (খ) হেমেন্দ্রমোহন বসু (গ) সুকুমার রায় (ঘ) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

উত্তরঃ (খ) হেমেন্দ্রমোহন বসু

4. বেঙ্গল কেমিক্যালস-এর প্রতিষ্ঠাতা-
(ক) প্রফুল্লচন্দ্র রায় (খ) মেঘনাদ সাহা (গ) সত্যেন্দ্রনাথ বসু (ঘ) গোপালচন্দ্র ভট্টাচার্য

উত্তরঃ (ক) প্রফুল্লচন্দ্র রায়

5. ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য কালটিভেশন অব সায়েন্স প্রতিষ্ঠা কার শ্রেষ্ঠ কীর্তি?
(ক) নীলরতন সরকার (খ) প্রফুল্লচন্দ্র রায় (গ) রাধাগোবিন্দ কর (ঘ) মহেন্দ্রলাল সরকার

উত্তরঃ (ঘ) মহেন্দ্রলাল সরকার

6. কালাজ্বরের প্রতিষেধক ইউরিয়া স্টিমাইন’ আবিষ্কার করেন
(খ) বনবিহারী মুখোপাধ্যায় (গ) মহেন্দ্রলাল সরকার (ঘ) চনীলাল বসু

উত্তরঃ (ক) স্যার উপেন্দ্রনাথ ব্ৰত্মচারী

7. হিন্দু কলেজটির নতুন নামকরণ হয়।
(ক) প্রেসিডেন্সি কলেজ (খ) স্কটিশচার্চ কলেজ (গ) সেন্ট পলস কলেজ (ঘ) সেন্ট ক্যাথিড্রাল কলেজ

উত্তরঃ (ক) প্রেসিডেন্সি কলেজ

8. বোটানিক্যাল গার্ডেনের আদি নাম কী ছিল?
(ক) রয়্যাল বোটানিক্যাল গার্ডেন (খ) জগদীশচন্দ্র বসু বোটানিক্যাল গার্ডেন (গ) শিবপুর বোটানিক্যাল গার্ডেন (ঘ) কোম্পানির বোটানিক্যাল গার্ডেন

উত্তরঃ (ক) রয়্যাল বোটানিক্যাল গার্ডেন
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান ৫ ]

1. বাঙালির বিজ্ঞানচর্চার ইতিহাসে মেঘনাদ সাহার অবদান লেখো।

2. বাঙালির বিজ্ঞানচর্চার ইতিহাসে সত্যেন্দ্রনাথ বসুর অবদান লেখো।

3. বাংলার বিজ্ঞানচর্চার ইতিহাসে জগদীশচন্দ্র বসুর অবদান আলোচনা করে।

অথবা, বিজ্ঞানী জগদীশচন্দ্র বসু বিজ্ঞানের চর্চা ও গবেষণার জন্য কলকাতায় যে সংস্থা তৈরি করেছিলেন তা কী নামে পরিচিত ? জগদীশচন্দ্রের বৈজ্ঞানিক গবেষণার সংক্ষিপ্ত পরিচয় দাও।

বাঙালির ক্রীড়াসংস্কৃতি – শিল্প-সাহিত্য সংস্কৃতি | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

MCQ প্রশ্নোত্তর [মান ১]

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
1. প্রথম এশীয় ব্যক্তি হিসেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত বিশ্ব লাইট হেভিওয়েট চ্যাম্পিয়নশিপ কে জেতেন?
(ক) গোবর গুহ (খ) ফণীন্দ্রকৃয় গুপ্ত (গ) রাখালচন্দ্র ঘোষ (ঘ) দারা সিং

উত্তরঃ (ক) গোবর গুহ

2. ভারতীয় ফুটবলের ইতিহাসে এক চিরস্মরণীয় ব্যক্তিত্ব হলেন—
(ক) শ্যামসুন্দর মিত্র (খ) কুমারেশ সেন (গ) নগেন্দ্রপ্রসাদ সর্বাধিকারী (ঘ) যতীন্দ্রচরণ গুহ

উত্তরঃ (গ) নগেন্দ্রপ্রসাদ সর্বাধিকারী

3. নারায়ণচন্দ্র ঘোষ পশ্চিমবঙ্গে কোন খেলার প্রসারে গুরুত্বপূর্ণ স্থান গ্রহণ করেন?
(ক) তিরন্দাজি (গ) ব্যাডমিন্টন (ঘ) ব্রতচারী

উত্তরঃ (খ) কবাডি

4. বাংলা ক্রিকেটের ধাত্রীগৃহ
(ক) স্পোর্টিং ইউনিয়ন ক্লাব (খ) ক্যালকাটা ক্রিকেট ক্লাব (গ) শোভাবাজার ক্লাব (ঘ) মোহনবাগান ক্লাব

উত্তরঃ (ক) স্পোর্টিং ইউনিয়ন ক্লাব

5. নগেন্দ্রপ্রসাদ কোন ক্লাবে হকি এবং টেনিস খেলার সুচনা করেন?
(ক) টাউন ক্লাব (খ) স্পোর্টিং ক্লাবে (গ) শোভাবাজার ক্লাবে (ঘ) ন্যাশনাল ক্লাবে

উত্তরঃ (খ) স্পোর্টিং ক্লাবে

6. ভলিবল খেলাটির আবিষ্কারক কে?
(ক) উইলিয়াম জি, মর্গান (খ) জন কোচরেন। (গ) শ্রীভাই নুরুলকার (ঘ) রানি লক্ষ্মীবাঈ

উত্তরঃ (ক) উইলিয়াম জি, মর্গান

7. কার নেতৃত্বে পশ্চিমবঙ্গে খো-খো খেলা শুরু হয়?
(ক) ফণী ভট্টাচার্য (খ) দিলীপ রায় (গ) ভূপতি মজুমদার (ঘ) বাঘা সোম

উত্তরঃ (গ) ভূপতি মজুমদার

8. ১৮৯৩ সালে আই.এফ.এ শিল্ড প্রতিযোগিতায়। প্রথম যে ক্লাবটি অংশগ্রহণ করার অধিকার পায়
(ক) ডালহৌসি ক্লাব (খ) প্রেসিডেন্সি ক্লাব (গ) ক্যালকাটা এফ. সি. ক্লাব (ঘ) শোভাবাজার ক্লাব

উত্তরঃ (ঘ) শোভাবাজার ক্লাব

9. ব্রতচারীর উদ্ভাবক হলেন—
(ক) নবগোপাল মিত্র (খ) প্রিয়দারঞ্জন দত্ত (গ) প্রিয়নাথ বসু

উত্তরঃ (ঘ) গুরুসদয় দত্ত
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান ৫ ]

1. প্রথম বাঙালি সাঁতারু কে? সাঁতার প্রতিযোগিতায় বাঙালির অবদান লেখো।

অথবা, বাংলার দু’জন সাঁতারুর পরিচয় দাও।

2. বাঙালির ক্রীড়াসংস্কৃতির ধারায় ক্রিকেটে সৌরভ গাঙ্গুলির অবদান লেখো।

অথবা, ভারতীয় ক্রিকেটে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের অবদান লেখো।

অথবা, বিশ্বক্রিকেটে সৌরভ গাঙ্গুলির অবদান লেখো।

3. বাংলার ক্রিকেটের জনক কে? সংক্ষেপে বাঙালির ক্রিকেট ইতিহাসের পরিচয় দাও।

অথবা, বাঙালির ক্রিকেট সংস্কৃতির ধারাটির পরিচয় দাও।

4. রামায়ণে বর্ণিত কাহিনি অনুসারে দাবা খেলার স্রষ্টা কে? এই খেলায় বাঙালির সাফল্যের সংক্ষিপ্ত পরিচয় দাও।

অথবা, ‘দাবা’ খেলায় আমাদের রাজ্য একটি বিশেষ সুনাম অর্জন করেছে— আলোচনা করো।

প্রবন্ধ রচনা – শিল্প-সাহিত্য সংস্কৃতি | উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion

1. হারিয়ে যাওয়ার নেই মানা

2. ছাত্রজীবন

3. জাতীয় সংহতি ও বিচ্ছিন্নতাবাদ

4. শিক্ষা বিস্তারে গণমাধ্যমের ভূমিকা

5. প্রাকৃতিক বিপর্যয়

6. আধুনিক প্রযুক্তি ও মানব-সভ্যতা

7. উন্নয়ন বনাম পরিবেশ

8. শিক্ষায় ও চরিত্রগঠনে খেলাধুলো

9. বিজ্ঞাপন ও দৈনন্দিন জীবন

10. গ্রন্থাগার

11. বাংলার উৎসব

প্রদত্ত সূত্র ও তথ্য অবলম্বনে একটি প্রবন্ধ রচনা করো

1. সার্ধশতবর্ষে দ্বিজেন্দ্রলাল রায়।

2. সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় (১৯৩৪-২০১২)।

3. ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর।

4. প্রিয় কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।

5. স্বামী বিবেকানন্দ।

6. জগদীশচন্দ্র বসু।

7. মাদার টেরিজা।

8. সৈয়দ মুজতবা আলি (১৯০৪-১৯৭৪)।

FILE INFO : উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion | WBCHSE HS Bengali Suggestion

File Details:
PDF Name : উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Higher Secondary Bengali Suggestion
Language : Bengali
Size : 1.3 MB 
No. of Pages : 52
Download Link : Click Here To Download
বিভিন্ন স্কুল বোর্ড পরীক্ষা, প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষার সাজেশন, অতিসংক্ষিপ্ত, সংক্ষিপ্ত ও রোচনাধর্মী প্রশ্ন উত্তর (All Exam Guide Suggestion, MCQ Type, Short, Descriptive Question and answer), প্রতিদিন নতুন নতুন চাকরির খবর (Job News in Bengali) জানতে এবং সমস্ত পরীক্ষার এডমিট কার্ড ডাউনলোড (All Exam Admit Card Download) করতে winexam.in ওয়েবসাইট ফলো করুন, ধন্যবাদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here