অভিষেক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত – কবিতা | মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Madhyamik Bengali Suggestion WBBSE with PDF | WiN EXAM

0
48

মাধ্যমিক বাংলা – Madhyamik Bengali

অভিষেক - মাইকেল মধুসূদন দত্ত - কবিতা | মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | Madhyamik Bengali Suggestion WBBSE with PDF | WiN EXAM

মাধ্যমিক বাংলা – Madhyamik Bengali অধ্যায় ভিত্তিতে প্রশ্নোত্তর  নিচে দেওয়া হল। এই প্রশ্নোত্তর এবার পশ্চিমবঙ্গ মাধ্যমিক দশম শ্রেণীর বাংলা  ( WB Madhyamik Bengali Suggestion  | West Bengal Madhyamik Bengali Suggestion  | WBBSE Board Class 10th Bengali Question and Answer with PDF file Download)  পরীক্ষার জন্য খুব ইম্পর্টেন্ট । আপনারা যারা আগামী মাধ্যমিক বাংলা পরীক্ষার জন্য মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন  | Madhyamik Bengali Suggestion  | WBBSE Board Madhyamik Class 10th (X) Bengali Suggestion  Question and Answer খুঁজে চলেছেন, তারা নিচে দেওয়া প্রশ্ন ও উত্তর ভালো করে পড়তে পারেন। 

পশ্চিমবঙ্গ মাধ্যমিক দশম শ্রেণীর বাংলা নোট / সাজেশন (West Bengal WBCHSE Madhyamik Class X 10th Bengali Notes / Suggestion) | অভিষেক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত – কবিতা – MCQ প্রশ্নোত্তর, এককথায় প্রশ্নউত্তর, সংক্ষিপ্ত প্রশ্নউত্তর, ব্যাখ্যাধর্মী, প্রশ্নউত্তর

পশ্চিমবঙ্গ মাধ্যমিক দশম শ্রেণীর বাংলা সাজেশন (West Bengal WBCHSE Madhyamik Class X 10th Bengali Notes / Suggestion) অভিষেক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত – কবিতা – MCQ প্রশ্নোত্তর, এককথায় প্রশ্নউত্তর, সংক্ষিপ্ত প্রশ্নউত্তর, ব্যাখ্যাধর্মী, রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর এবং PDF ফাইল ডাউনলোড লিঙ্ক নিচে দেওয়া রয়েছে।

অভিষেক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত – কবিতা

বহুবিকল্পিত প্রশ্ন (প্রশ্নমান – ১) অভিষেক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত – কবিতা
সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
১. কবি মধুসূদন দত্ত জন্মগ্রহণ করেন
(ক) ১৮২৯ খ্রিস্টাব্দে (খ) ১৮২৪ খ্রিস্টাব্দে (গ) ১৮২০ খ্রিস্টাব্দে (ঘ) ১৮২৫ খ্রিস্টাব্দে
Answer : (খ) ১৮২৪ খ্রিস্টাব্দে
২. মধুসূদন কোন জেলায় জন্মগ্রহণ করেন?
(ক) ঢাকা (খ) ময়মনসিংহ (গ) বরিশাল (ঘ) যশোর
Answer : (ঘ) যশোর
৩. মধুসূদনের প্রথম কাব্যগ্রন্থ
(ক) ব্রজাঙ্গনা (খ) বীরাঙ্গনা (গ) তিলোত্তমাসম্ভব (ঘ) মেঘনাদবধ
Answer : (গ) তিলোত্তমাসম্ভব
৪. “প্রণমিয়া ধাত্রীর চরণে,”—এই ধাত্রী কী নামে পরিচিত?
(ক) প্রভাষা (খ) কঙ্কাবতী (গ) সুরমা (ঘ) কনকাবতী
Answer : (ক) প্রভাষা
৫. “কোথায় পাইলে তুমি, শীঘ্ৰ কহ দাসে।”—উক্তিটি কে করেছেন?
(ক) ইন্দ্রজিৎ (খ) মেঘনাদ (গ) রাবণ (ঘ) প্রমীলা
Answer : (খ) মেঘনাদ
৬. “জিজ্ঞাসিলা মহাবাহু বিস্ময় মানিয়া”—উদ্ধৃতাংশে ‘মহাবাহু বলতে নির্দেশ করা হয়েছে।
(ক) রাবণকে (খ) বীরবাহুকে (গ) মেঘনাদকে (ঘ) কুম্ভকর্ণকে
Answer : (গ) মেঘনাদকে
৭. “যথা অশোকের ফুল অশোকের তলে আভাময়!”—উদ্ধৃতাংশটিকে বলা যেতে পারে
(ক) সাদৃশ্যবাচক বাক্য (খ) উপমাবাচক বাক্য (গ) খণ্ড বাক্য (ঘ) রূপক বাক্য
Answer : (খ) উপমাবাচক বাক্য
৮. “কিম্বা যথা বৃহন্নলারূপী”—বৃহন্নলারূপী’ কাকে উদ্দেশ্য করে বলা হয়েছে?
(ক) অর্জুনকে (খ) ভীমকে (গ) সুগ্রীবকে (ঘ) নকুলকে
Answer : (ক) অর্জুনকে
৯. “কিরীটি, বিরাটপুত্র সহ, উদ্ধারিতে _________।
(ক) গোধন (খ) অশ্ববাহিনী (গ) পিতৃকুল (ঘ) হস্তিবাহিনী
Answer : (ক) গোধন
১০. “হেন কালে প্রমীলা সুন্দরী,”—উদ্ধৃতাংশে প্রমীলা হলেন
(ক) বিভীষণ-পত্নী (খ) মেঘনাদ-পত্নী (গ) রাবণ-পত্নী (ঘ) বীরবাহ-পত্নী
Answer : (খ) মেঘনাদ-পত্নী
১১. “কেমনে ধরিবে প্রাণ তোমার_________।
(ক) বিরহে (খ) বিহনে (গ) বিচ্ছেদে (ঘ) বিয়োগে
Answer : (খ) বিহনে
১২. “ত্বরায় আমি আসিব ফিরিয়া _________।
(ক) প্রেয়সী (খ) কল্যাণী (গ) বিধুমুখী (ঘ) চন্দ্রাননা
Answer : (খ) কল্যাণী
১৩. “কে কবে শুনেছে পুত্র, ভাসে শিলা জলে”—উক্তিটি করেছেন
(ক) বিভীষণ (খ) রাবণ (গ) কুম্ভকর্ণ (ঘ) ধাত্রীমাতা
Answer : (খ) রাবণ
১৪. “বৎস, আগে পূজ ইষ্টদেবে”—এখানে ‘ইষ্টদেব’ কাকে উদ্দেশ্য করে বলা হয়েছে?
(ক) দেবাদিদেব মহাদেবকে (খ) অগ্নিকে (গ) জলাধিপতি বরুণকে (ঘ) বিষকে
Answer : (খ) অগ্নিকে
১৫. “রাক্ষস-কুল-শেখর তুমি,”-উদ্ধৃতাংশে রাক্ষস-কুল-শেখর কাকে বলা হয়েছে?
(ক) মেঘনাদকে (খ) কুম্ভকর্ণকে (গ) বীরবাহুকে (ঘ) বিভীষণকে
Answer : (ক) মেঘনাদকে
১৬. “বিধি ৰাম মম প্রতি।”-উক্তিটি করেছেন
(ক) রাম (খ) লক্ষ্মণ (গ) মেঘনাদ (ঘ) রাবণ
Answer : (ঘ) রাবণ
১৭. “ছিড়িলা কুসুমদাম রোষে মহাবলী”–’কুসুমদাম’ কথাটির অর্থ হল
(ক) পুষ্পমাল্য (খ) কুসুমগুচ্ছ (গ) পুষ্পরাশি (ঘ) পুষ্পদল
Answer : (ক) পুষ্পমাল্য
১৮. “তৰ শরে মরিয়া বাঁচিল”—মরে বেঁচে উঠল
(ক) ভরত (খ) রাম (গ) কুম্ভকর্ণ (ঘ) সুগ্রীব
Answer : (খ) রাম
১৯. “সসৈন্যে সাজেন আজি যুঝিতে আপনি”–‘সসৈন্যে’ সেজেছেন
(ক) মেঘনাদ (খ) বীরবাহু (গ) রাবণ (ঘ) কুম্ভকর্ণ
Answer : (গ) রাবণ
২০. “বাজিছে রণ-বাজনা; গরজিছে _________”
(ক) অশ্ব (খ) পদাতিক (গ) রথী (ঘ) গজ
Answer : (ঘ) গজ

অতিসংক্ষিপ্ত উত্তরধর্মী প্রশ্ন (প্রশ্নমান – ১) অভিষেক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত – কবিতা
১. ‘অভিষেক’ কাব্যাংশটি কার লেখা, কোন্ কাব্য থেকে সংকলিত?
Answer : ‘অভিষেক’ কাব্যাংশটি মাইকেল মধুসূদন দত্তের লেখা ‘মেঘনাদ বধ কাব্য থেকে সংকলিত।
২. “কনক-আসন ত্যজি,”—কে কনক-আসন ত্যাগ করলেন?
Answer : বীরশ্রেষ্ঠ ইন্দ্রজিৎ কনক-আসন ত্যাগ করলেন।
৩. “প্রণমিয়া ধাত্রীর চরণে,/কহিলা,”–‘ধাত্রীর চরণে প্রণাম করে কে, কী বলল?
Answer : ধাত্রীর চরণে প্রণাম করে ইন্দ্রজিৎ মেঘনাদ জানতে চাইল কী কারণে তিনি এখানে এলেন। আর লঙ্কার কুশলই বা কী।
৪. “কি হেতু, মাতঃ, গতি তব আজি/এ ভবনে?”—কে, কাকে এ কথা বলেছেন?
Answer : ছদ্মবেশরূপী ধাত্রীমাতাকে প্রমোদ-উদ্যানে বিলাস-ব্যসনে রত ইন্দ্রজিৎ এ কথা বলেছেন।
৫. “কহ দাসে লঙ্কার কুশল।”—উদ্দীষ্ট ব্যক্তি লঙ্কার কী কুশল জানালেন?
Answer : স্বস্নেহে ছদ্মবেশী ধাত্রীমাতা ইন্দ্রজিতের মস্তক চুম্বন করে জানালেন বীরবাহুর মৃত্যু ঘটেছে এবং স্বয়ং রাক্ষসাধিপতি রাবণ সসৈন্যে যুদ্ধযাত্রায় উদ্যোগী হয়েছেন।
৬. “ছদ্মবেশী অম্বুরাশি-সুতা”–‘অম্বুরাশি-সুতা’ কে?
Answer : অম্বুরাশি সুতা হলেন—সমুদ্রমন্থনের সময় ক্ষীরোদ সাগরের তলদে থেকে উঠে আসা দেবী লক্ষ্মী।
৭. “এ বারতা, এ অদ্ভুত বারতা,” —বক্তা কোন্ বার্তাকে ‘অদ্ভুত’ বলেছেন?
Answer : নিশাযুদ্ধে রামচন্দ্রকে সংহার করা সত্ত্বেও সে আবার বেঁচে উঠে বীরবাহকে নিধন করেছে এই সংবাদকে বকা অদ্ভুত বলেছেন।
৮. “তার শশাকে মহাশোকী রাক্ষসাধিপতি,”—কার শশাকে রাক্ষসাধিপতি শোকগ্রস্ত?
Answer : রাবণের অন্যতম মহিষী চিত্রাঙ্গদার একমাত্র ছেলে বীরবাহুর মৃত্যুতে রাক্ষসাধিপতি শোকগ্রস্ত।
৯. “যাও তুমি ত্বরা করি; রক্ষ রক্ষঃকুল-মান,”—এ নির্দেশ কে, কাকে দিলেন?
Answer : ধাত্রীমাতা ছদ্মবেশী রক্ষাকুল রাজলক্ষ্মী মেঘনাদকে এ নির্দেশ দিলেন।
১০. “ছিড়িলা কুসুমদাম রোষে মহাবলী/মেঘনাদ;”—মেঘনাদের কুসুমদাম ছিড়ে ফেলার কারণ কী?
Answer : ধাত্রীমাতার কাছে রাম কর্তৃক বীরবাহুর মৃত্যু এবং রাক্ষসরাজ রাবণের যুদ্ধযাত্রার উদ্যোগ শুনে আত্মধিক্কারে মেঘনাদ সজ্জিত কুসুমদাম ছিড়ে ফেললেন।
১১. “পদ-তলে পড়ি শোভিল কুণ্ডল,”—এই বিষয়ের সঙ্গে কবি কী উপমা দিয়েছেন?
Answer : উদ্ধৃত বিষয়ের উপমা প্রসঙ্গে কবি বলেছেন, অশোক ফুলগাছের তলায় অশোক ফুল পড়ে যেন শোভা পাচ্ছে।
১২. “সাজিলা রথীন্দ্রভ বীর-আভরণে”—কে ‘বীর-আভরণে’সজ্জিত হলেন এবং কেন?
Answer : প্রমোদ-উদ্যানে বিলাস-ব্যসন ত্যাগ করে ইন্দ্রজিৎ বীর-আভরণে সজ্জিত হলেন যুদ্ধে যাত্রা করে শত্রুপক্ষকে বিনাশ করার উদ্দেশ্যে।
১৩. “হেন কালে প্রমীলা সুন্দরী,”–‘প্রমীলা সুন্দরী’ কে? তিনি কী করলেন?
Answer : প্রমীলা সুন্দরী হলেন মেঘনাদ-পত্নী। তিনি প্রিয়বর স্বামী মেঘনাদকে হারানোর বিরহেনানাভাবে তার বিরহকাতরতা স্বামীর কাছে তুলে ধরলেন।
১৪. “হাসি উত্তরিলা/মেঘনাদ”—হেসে মেঘনাদ কাকে, কী উত্তর দিলেন?
Answer : স্ত্রী প্রমীলার কথার উত্তরে মেঘনাদ হেসে তাকে বললেন, সে স্বামী মেঘনাদকে যেভাবে প্রেমের দৃঢ় বন্ধনে বেঁধেছে তা ছিন্ন করা যায় না এবং বিরহকাতর স্ত্রীকে কথা দিলেন যে খুব তাড়াতাড়ি রামচন্দ্রকে বিনাশ করে ফিরে আসবেন।
১৫. “নাদিলা করদল হেরিবীরবরে”—উদ্ধৃতাংশে ‘বীরবর’বলে কাকে নির্দেশ করা হয়েছে?
Answer : উদ্ধৃতাংশে ‘বীরবর’বলতে লঙ্কেশ্বর রাবণের বীরপুত্র মেঘনাদকে নির্দেশ করা হয়েছে।
১৬. “সাজিছে রাবণরাজা, বীরমদে মাতি;”-রাবণ রাজার সেজে ওঠার প্রভাব উল্লেখ করো।
Answer : রাবণ রাজার সেজে ওঠার প্রভাবে রণবাজনা বাজছে, হাতি গর্জন করছে, ঘোড়া চিৎকার করছে, পদাতিক হুংকার ছাড়ছে, আকাশে রেশমি পতাকা উড়ছে আর আকাশে সোনার বর্মের দীপ্তি দেখা যাচ্ছে।
১৭. “কপিলা লঙ্কা, কপিলা জলধি!”-“লঙ্কা’ ও ‘জলধি’ কেঁপে উঠল।
Answer : বীরেন্দ্র মেঘনাদ ধনুকের ছিলা টেনে যে টঙ্কার ধ্বনি তুলল সেই প্রচণ্ড ভৈরব শব্দে লঙ্কাপুরী ও জলধি কেঁপে উঠল।
১৮. “নতুবা বাঁধিয়া আনি দিব রাজপদে।” –কে, কাকে বেঁধে এনে দেবেন রাজপদে?
Answer : বীরশ্রেষ্ঠ মেঘনাদ রামচন্দ্রকে রাজপদে অর্থাৎ লঙ্কেশ্বর রাবণের পদে বেঁধে এনে দেবেন।
১৯. “বিধি বাম মম প্রতি।”—এই খেদোক্তি কে, কখন করেছিলেন?
Answer : মেঘনাদ প্রমোদ-উদ্যান ত্যাগ করে বীরসাজে সজ্জিত হয়ে যুদ্ধে যাওয়ার অনুমতি চাইতে যখন লঙ্কেশ্বরের কাছে উপস্থিত হলেন, তখন মেঘনাদকে আর যুদ্ধে পাঠাতে অনীহা প্রকাশের পর লঙ্কেশ্বর রাবণ এই খেদোক্তি করেছিলেন।
২০. “সেনাপতি-পদে আমি বরিণু তোমারে।”—কে, কাকে সেনাপতি পদে বরণ করলেন এবং কী পরামর্শ দিলেন?
Answer : লঙ্কেশ্বর রাবণ যুদ্ধ-প্রত্যাশী মেঘনাদকে সেনাপতি-পদে বরণ করলেন এবং পরামর্শ দিলেন সে যেন যুদ্ধে যাওয়ার পূর্বে নিকুম্ভিলা যজ্ঞাগারে ইষ্টদেবতার পূজা সাঙ্গ করে।
২১. “হায়, দেহ তার, দেখ, সিন্ধু তীরে/ ভূপতিত,”—কে, কাকে, কার দেহ দেখতে বললেন?
Answer : লঙ্কেশ্বর রাবণ অকালে নিদ্রাভঙ্গ করে যে অনুজ ভ্রাতা কুম্ভকর্ণকে যুদ্ধে পাঠিয়েছিলেন যুদ্ধে নিহত সেই কুম্ভকর্ণের মৃতদেহ মেঘনাদকে দেখতে বললেন।
২২. “এ কলঙ্ক, পিতঃ, ঘুষিবে জগতে।”—উক্তিটি কে, কেন করেছেন?
Answer : উক্তিটি মেঘনাদ পিতা রাবণকে লক্ষ করে করেছেন। কেননা, বীরপুত্র থাকতে যদি পিতাকে যুদ্ধে যেতে হয় তাহলে জগতে এ-কলঙ্ক সকলেই ঘোষণা করবে যা মেঘনাদের পক্ষে লজ্জা ও অসম্মানের।
২৩. “নাদিলা ককূরদল হেরি বীরবরে।”—উদ্ধৃতাংশে ‘করদল’ শব্দটির অর্থ কী ?
Answer : উদ্ধৃতাংশে ‘ককূরদল’ শব্দটির অর্থ হল রাক্ষসবাহিনী।

ব্যাখ্যাভিত্তিক সংক্ষিপ্ত উত্তরধর্মী প্রশ্ন (প্রশ্নমান – ৩) অভিষেক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত – কবিতা
১. “বীরেন্দ্রকেশরী/ইন্দ্রজিৎ, প্রণমিয়া ধাত্রীর চরণে”—উদ্ধৃতাংশটি কোন্ কবিতার অন্তর্গত? ইন্দ্রজিৎ কখন, কোথায় ধাত্রীর চরণে প্রণাম করে, কী করলেন?
২. “শিরঃ চুম্বি, ছদ্মবেশী অম্বুরাশি-সুতা/উত্তরিলা;”-উদ্ধৃতাংশে অম্বুরাশি-সুতাকে ছদ্মবেশী’ বলা হয়েছে কেন? তিনি উত্তরে কী বললেন? ১+২
৩. “জিজ্ঞাসিলা মহাবাহু বিস্ময় মানিয়া ;”—উদ্ধৃতাংশে ‘মহাবাহু’ বলে কাকে নির্দেশ করা হয়েছে? তার বিস্মিত হওয়ার কারণ কী? ১+২
৪. “যথা অশোকের ফুল অশোকের তলে/আভাময়!” –প্রসঙ্গ উল্লেখ করে উপমাটি সংক্ষেপে ব্যাখ্যা করো।
৫. “কিম্বা যথা বৃহন্নলারূপী/কিরীটি, বিরাটপুত্র সহ, উদ্ধারিতে/গোধন,”– উদ্ধৃত উপমা বাক্যটির সঙ্গে যে পৌরাণিক কাহিনিটি যুক্ত রয়েছে, তা সংক্ষেপে উল্লেখ করো।
৬. “হৈমবতীসুত যথা নাশিতে তারকে/মহাসুর;” –প্রসঙ্গসূত্র উল্লেখ করে উপমাটি সংক্ষেপে ব্যাখ্যা করো এবং পুরাণ কাহিনিটি সংক্ষেপে লেখো।
৭. “হেন কালে প্রমীলা সুন্দরী,/ধরি পতি-কর-যুগ/কহিলা কাঁদিয়া ধনী”; -উদ্ধৃতাংশটিতে প্রমীলা কে? তিনি কেঁদে কী বলেছিলেন? ১+২
৮. “সাজিছে রাবণ রাজা, বীরমদে মাতি;”-রাবণ রাজার রণসজ্জার সংক্ষিপ্ত পরিচয় দাও।
৯. “নমি পুত্র পিতার চরণে,/করজোড়ে কহিলা;”—পিতার চরণে কে নমস্কার জানালেন? করজোড়ে তিনি কী বললেন? ১+২
১০. “কহিলা রাক্ষসপতি”;—উদ্ধৃতাংশে রাক্ষসপতি কে? তিনি কী বললেন সংক্ষেপে উল্লেখ করো। ১+২
১১. “বিদায় এবে দেহ, বিধুমুখী।”—উদ্ধৃতাংশটিতে কে, কার কাছ থেকে বিদায় চাইছেন? বিদায়ের পরবর্তী ঘটনাটি সংক্ষেপে উল্লেখ করো। ১+২
১২. “তবে/এ বারতা, এ অদ্ভুত বারতা জননী/কোথা পাইলে তুমি,”—কোন্ বারতা? কেন বক্তার কাছে তা ‘অদ্ভুত’ বলে মনে হয়েছে? ১+২
১৩. “হা ধিক মোরে!”—বক্তার এই আত্মধিক্কারের কারণ কী?
১৪. “এ মায়া পিতঃ বুঝিতে না পারি!”-কোন্ মায়া, কে, কেন বুঝতে পারছে না।

রচনাধর্মী প্রশ্ন (প্রশ্নমান – ৫) অভিষেক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত – কবিতা
১. অভিষেক’ কী? কার, কেন অভিষেক হয়েছে কবিতা অবলম্বনে লেখো। ১৪
২. ‘অভিষেক’ কবিতা অবলম্বনে রাবণ ও ইন্দ্রজিৎ চরিত্র দুটি আলোচনা করো। ২১/২+২১/২
৩. ‘অভিষেক’ শীর্ষক কবিতাটির নামকরণের সার্থকতা বিচার করো।
৪. ‘অভিষেক’ শীর্ষক কবিতাটির বিষয়বস্তু সংক্ষেপে উল্লেখ করো।
৫. ‘অভিষেক’ শীর্ষক কবিতার কাহিনির পূর্বসূত্র উল্লেখ করো।
৬. “কি হেতু, মাতঃ, গতি তব আজি/এ ভবনে? কহ দাসে লঙ্কার কুশল।”—কে, কাকে কথাটি বলেছে? উদ্ধৃত ‘মাতঃ’-এর পরিচয় দাও। মাতঃ ও বক্তার পারস্পরিক কথাবার্তার উল্লেখ করো। ১+১+৩
৭. “এই কি সাজে আমারে, দশাননাত্মজ”—কোন্ প্রসঙ্গে বক্তা এই কথা বলেছেন? ‘দশাননাত্মজ’ বলার কারণ কী? উদ্ধৃতাংশে বক্তার কোন চারিত্রিক গুণের পরিচয় পাওয়া যায়? ১+১+৩
৮. “ছিড়িলা কুসুমদাম রোষে মহাবলী”—উদ্ধৃতাংশে ‘মহাবলী’ কাকে বলা হয়েছে ? কুসুমদাম ছিড়ে ফেলার কারণ কী? এর পরবর্তী ঘটনাটি সংক্ষেপে বর্ণনা করো। ১+১+৩
৯. “হৈমবতীসুত যথা নাশিতে তারকে/মহাসুর; কিংবা যথা বৃহন্নলারূপী কিরীটি, বিরাটপুত্র সহ, উদ্ধারিতে/গোধন, সাজিলা শূর, শমীবৃক্ষমূলে।” -কোন্ প্রসঙ্গে কথাটি বলা হয়েছে? উদ্ধৃতিটির তাৎপর্য ব্যাখ্যা করো। ২+৩
১০. “কোথা প্রাণসখে,/রাখি এ দাসীরে, কহ চলিলা আপনি?”—কে, কাকে কথাটি বলেছে? কখন বলেছে? বক্তার স্বরূপ উদঘাটন করো। ১+২+২
১১. “নাদিলা ককূরদল হেরি বীরবরে”-বীরবর কে এবং তাকে কেন্দ্র করে পরবর্তী যে ঘটনা ঘটল, তা সংক্ষেপে বিবৃত করো। ১+৪
১২. “সাজিছে রাবণরাজা, বীরমদে মাতি;”–‘রাবণরাজা’ ‘বীরমদে মাতি সাজছেন কেন? তাঁর এই সাজের বর্ণনা দাও। রাবণের পিতৃসত্তার পরিচয় দাও। ১+২+২
১৩. “হেন কালে তথা/দ্রুতগতি উতরিলা মেঘনাদ রথী।”—মেঘনাদ কোন সময়, কোথায় উপস্থিত হল? সেখানে পিতা ও পুত্রের যে কথোপকথন হল, তা উদ্ধৃতিসহ উল্লেখ করো। ২+৩
১৪. “হৈমপাখা বিস্তারিয়া যেন/উড়িলা মৈনাক-শৈল, অম্বর উজলি!”—কোন প্রসঙ্গে কথাটি বলা হয়েছে? ‘মৈনাক-শৈল’-র আকাশ উজ্জ্বল করে উড়ে যাওয়ার ব্যাপারটি ব্যাখ্যা করো। উপমাটির প্রয়োগে সার্থকতা দেখাও। ২+১+২
১৫. “এতেক কহিয়া রাজা, যথাবিধি লয়ে/গঙ্গোদক, অভিষেক করিল কুমারে।”—কে, কাকে, কীসে ‘অভিষেক’ করালেন? অভিষেকের আগে তিনি কী বলেছিলেন ? ‘অভিষেক’-এ গঙ্গোদক ব্যবহারের গুরুত্ব কী? ২+১+২
১৬. “উঠিল পবনপথে, ঘোরতর রবে,/রথর,”–‘রথবর’ কে ? ” পবন-পথে’ উঠল কেন? ১+৪

বহুবিকল্পীয় প্রশ্ন (প্রশ্নমান – ১) অভিষেক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত – কবিতা
সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো
কারক-বিভক্তি
১. “কহ দাসে লঙ্কার কুশল।”—‘দাসে’ পদটি
(ক) কর্তৃকারকে ‘এ’ বিভক্তি (খ) কর্মকারকে ‘এ’ বিভক্তি (গ) নিমিত্ত কারকে ‘এ’ বিভক্তি (ঘ) অধিকরণ কারকে ‘এ’ বিভক্তি
Answer : (খ)
২. “তার শোকে মহাশোক রাক্ষসাধিপতি”–‘শোকে’ পদটি
(ক) কর্মকারকে ‘এ’ বিভক্তি (খ) করণকারকে ‘এ’ বিভক্তি (গ) অপাদান কারকে ‘এ’ বিভক্তি (ঘ) অধিকরণ কারকে ‘এ’ বিভক্তি
Answer : (খ)
৩. “ঘুচাব ও অপবাদ, বধি রিপুকূলে।”—“রিপুকূলে’ পদটি
(ক) কর্তৃকারকে ‘এ’ বিভক্তি (খ) করণকারকে ‘এ’ বিভক্তি (গ) কর্মকারকে ‘এ’ বিভক্তি (ঘ) অপাদান কারকে ‘এ’ বিভক্তি
Answer : (গ)
৪. “কোথা প্রাণ সখে/রাখি এ দাসীরে, কহ চলিলা আপনি?”—প্রাণ সখে পদটি
(ক) সম্বন্ধপদে ‘এ’ বিভক্তি (খ) কর্মকারকে ‘এ’ বিভক্তি (গ) নিমিত্ত কারকে ‘এ’ বিভক্তি (ঘ) সম্বোধন পদে ‘এ’ বিভক্তি
Answer : (ঘ)
৫. “নতুবা বাঁধিয়া আনি দিব রাজপদে।”—’রাজপদে’ পদটি
(ক) অপাদান কারকে ‘এ’ বিভক্তি (খ) নিমিত্ত কারকে ‘এ’ বিভক্তি (গ) অধিকরণ কারকে ‘এ’ বিভক্তি (ঘ) কর্মকারকে ‘এ’ বিভক্তি
Answer : (গ)
সমাস
৬. “যথাবিধি লয়ে/গঙ্গোদক, অভিষেক করিলা কুমারে।”—যথাবিধি পদটির ব্যাসবাক্য হবে
(ক) বিধিকে অতিক্রম করে (খ) যথাপূর্বক বিধি (গ) যথাযথ যে-বিধি (ঘ) বিধিকে অতিক্রম না-করে
Answer : (ঘ)
৭. “গিরিশৃঙ্গ কিম্বা তরু যথা বজ্রাঘাতে।”—’বজ্রাঘাতে’ পদটির ব্যাসবাক্য বজ্র দ্বারা আঘাত ‘(তাতে)’ হলে সমাস হবে
(ক) সম্বন্ধ তৎপুরুষ সমাস (খ) নিমিত্ত তৎপুরুষ সমাস (গ) করণ তৎপুরুষ সমাস (ঘ) অপাদান তৎপুরুষ সমাস
Answer : (গ)
৮. “উড়িছে কৌশিক-ধ্বজ; উঠিছে আকাশে/কাঞ্চন-কক বিভা।” – কৌশিক-ধ্বজ’ পদের ব্যাসবাক্য
(ক) কৌশিকের ধ্বজ (খ) কৌশিক যে-ধ্বজ (গ) কৌশিকীর ধ্বজ (ঘ) কৌশিক নির্মিত ধ্বজ
Answer : (ঘ)
৯. “শিরঃচুম্বি, ছদ্মবেশী অম্বুরাশি-সুতা/উত্তরিলা;”—‘ছদ্মবেশী পদের ব্যাসবাক্য ছদ্মবেশ ধারণ করেছে যে’ হলে এর সমাস হবে
(ক) উপসর্গ তৎপুরুষ সমাস (খ) উপপদ তৎপুরুষ সমাস (গ) সমানাধিকরণ বহুব্রীহি সমাস (ঘ) করণ তৎপুরুষ সমাস
Answer : (গ)
১০. “বৈরিদল বেড়ে/ স্বর্ণলঙ্কা, হেথা আমি বামাদল মাঝে?”—‘স্বর্ণলঙ্কা’ পদের ব্যাসবাক্য হবে
(ক) স্বর্ণের লঙ্কা (খ) স্বর্ণ কর্তৃক নির্মিত লঙ্কা (গ) স্বর্ণ নির্মিত লঙ্কা (ঘ) স্বর্ণের খনি আছে সেই হেতু লঙ্কা
Answer : (গ)
বাক্য
১১. “যাও তুমি জ্বরা করি; রক্ষ রক্ষঃকুল-মান;”—বাক্যটি
(ক) নির্দেশক (খ) প্রার্থনাসূচক (গ) অনুজ্ঞাসূচক (ঘ) সন্দেহদ্যোতক
Answer : (গ)
১২. “যদি/তার রঙ্গরসে মনঃ না দিয়া, মাত/যায় চলি, তবু তারে রাখে পদাশ্রমে/যূথনাথ।”—পঙক্তিবদ্ধ কথাটি বাক্যের গঠনগত দিক দিয়ে
(ক) সরলবাক্য (খ) জটিল বাক্য (গ) যৌগিক বাক্য (ঘ) মিশ্ৰবাক্য
Answer : (খ)
১৩. “কে পারে খুলিতে সে বাঁধে?”—বাক্যটি
(ক) নির্দেশক (খ) প্রশ্নাত্মক (গ) সন্দেহবাচক (ঘ) প্রার্থনাসূচক
Answer : (খ)
১৪. “হায়, বিধি বাম মম প্রতি।”—বাক্যটি
(ক) নির্দেশক (খ) প্রার্থনাসূচক (গ) সন্দেহবাচক (ঘ) আবেগসূচক
Answer : (ঘ)
১৫. “দুই বার আমি হারানু রাঘবে/আর একবার পিতঃ দেহ আজ্ঞা মোরে।”—বাক্যটি হবে
(ক) যৌগিক বাক্য (খ) জটিল বাক্য (গ) সরলবাক্য (ঘ) মিশ্রবাক্য
Answer : (ক)
বাচ্য
১৬. “সেনাপতি পদে আমি বরিণু তোমাকে।”—বাক্যটি
(ক) কর্তৃবাচ্য (খ) কর্মবাচ্য (গ) ভাববাচ্য (ঘ) কর্মকর্তৃবাচ্য
Answer : (ক)
১৭. “যথা অশোকের ফুল অশোকের তলে/আভাময়”—বাচ্যগতভাবে বাক্যটি
(ক) কর্তৃবাচ্য (ক) কর্মবাচ্য (ঘ) ভাববাচ্য (ঘ) কর্মকর্তৃবাচ্য
Answer : (ক)
১৮. “ত্বরায় আমি আসিব ফিরিয়া/কল্যাণী,”—বাক্যটি
(ক) কর্তৃবাচ্য (খ) কর্মবাচ্য (গ) ভাববাচ্য (ঘ) কর্মকর্তৃবাচ্য
Answer : (ক)
১৯. “সাজিছে রাবণরাজা;”—বাক্যটির ভাববাচ্য হবে
(ক) রাবণ রাজা কর্তৃক সাজা হচ্ছে (খ) রাবণ রাজার সাজা হচ্ছে (গ) রাবণ রাজা কর্তৃক সজ্জিত হওয়া হচ্ছে (ঘ) রাজা, রাবণের সেজে ওঠা হচ্ছে
Answer : (গ)
২০. “কে কবে শুনেছে পুত্র,”—নীচের কোনটি কর্মবাচ্য?
(ক) কার, কবে শোনা হয়েছে পুত্র ? (খ) কে, কবে শুত হয়েছে পুত্র ? (গ) কার কর্তৃক, কবে শুত হয়েছে পুত্র ? (ঘ) পুত্র কর্তৃক, কবে শুত হয়েছে ?
Answer : (গ)

অতিসংক্ষিপ্ত উত্তরধর্মী প্রশ্ন (প্রশ্নমান – ১) অভিষেক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত – কবিতা
কারক-বিভক্তি
১. “ইন্দ্রজিৎ, প্রণমিয়া ধাত্রীর চরণে।”—নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির কারক-বিভক্তি নির্ণয় করো।
Answer : চরণে-অধিকরণ কারকে ‘এ’ বিভক্তি।
২. “কহ দাসে লঙ্কার কুশল।”–‘কুশল’ পদটির কারক-বিভক্তি নির্ণয় করো।
Answer : কুশল–কর্মকারকে ‘শূন্য’ বিভক্তি।
৩. “ঘোরতর রণে /হত প্রিয় ভাই, তব বীরবাহু!”—নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির কারক-বিভক্তি নির্দেশ করো।
Answer : রণে করণকারকে ‘এ’ বিভক্তি।
৪. “কে বধিল কবে/প্রিয়ানুজে?”—নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির কারক-বিভক্তি নির্ণয় করো।
Answer : প্রিয়ানজেকর্মকারকে ‘এ’ বিভক্তি।
৫. “তব শরে মরিয়া বাঁচিল।”–‘শরে’ পদটির কারক-বিভক্তি নির্ণয় করো।
Answer : শরেকরণকারকে ‘এ’ বিভক্তি।
৬. “ছিড়িলা কুসুমদাম রোষে মহাবলী।”–নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির কারক-বিভক্তি নির্ণয় করো।
Answer : কুসুমদাম-কর্মকারকে ‘শূন্য’ বিভক্তি।
৭. “ঘুচাব ও অপবাদ, বধি রিপুকুলে।”—নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির কারক বিভক্তি কী হবে?
Answer : রিপুকুলে–কর্মকারকে ‘এ’ বিভক্তি।
৮. “হৈমবতী সুত যথা নাশিতে তারকে।”—নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির কারক-বিভক্তি নির্দেশ করো।
Answer : তারকে-কর্মকারকে ‘এ’ বিভক্তি।
৯. “সাজিলা শূর, শমীবৃক্ষমূলে।”—নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির কারক-বিভক্তি লেখো।
Answer : শমীবৃক্ষমূলে—অধিকরণ কারকে ‘এ’ বিভক্তি।
১০. “কেমনে ধরিবে প্রাণ তোমার বিরহে।”—নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির কারক-বিভক্তি নির্ণয় করো।
Answer : প্রাণ—কর্মকারকে ‘শূন্য’ বিভক্তি।
সমাস
১১. “কনক-আসন ত্যজি, বীরেন্দ্র কেশরী।”—নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির সমাস নির্ণয় করো।
Answer : কনক-আসন কনক নির্মিত আসন (মধ্যপদলোপী কর্মধারয় সমাস)।
১২. “ছদ্মবেশী অম্বুরাশি-সুতা।”—“ছদ্মবেশী’ পদটির সমাস নির্দেশ করো।
Answer : ছদ্মবেশী—ছদ্মবেশ ধারণ করে যে (উপপদ তৎপুরুষ সমাস)।
১৩. “কনক-লঙ্কার দশা।”—নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির সমাস নির্ণয় করো।
Answer : কনক-লঙ্কা-কনক সজ্জিত লঙ্কা (মধ্যপদলোপী কর্মধারয় সমাস)।
১৪. “জিজ্ঞাসিলা মহাবাহু বিস্ময় মানিয়া।”—নিম্নরেখাঙ্কিতপদটির ব্যাসবাক্যসহ সমাস নির্ণয় করো।
Answer : মহাবাহু—মহান বাহু যার (বহুব্রীহি সমাস)।
১৫. “ইন্দ্রজিৎ, প্রণমিয়া ধাত্রীর চরণে।”—‘ইন্দ্রজিৎ’পদটির সমাস কী হবে?
Answer : ইন্দ্রজিৎ-ইন্দ্রকে জয় করেছেন যিনি (বহুব্রীহি সমাস)।
১৬. “কে বধিল কবে/প্রিয়ানুজে?”—নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির সমাস নির্ণয় করো।
Answer : প্রিয়ানুজে—প্রিয় যে অনুজ, তাকে (উপমান কর্মধারয় সমাস)।
১৭. “মায়াবী মানব সীতাপতি।”—নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির সমাস নির্ণয় করো।
Answer : সীতাপতি-সীতার পতি (সম্বন্ধ তৎপুরুষ সমাস)।
১৮. “ছিড়িলা কুসুমদাম রোষে মহাবলী।”—‘কুসুমদাম’ পদটির ব্যাসবাক্যসহ সমাস কী হবে?
Answer : কুসুমদাম—কুসুম সজ্জিত দাম (মধ্যপদলোপী কর্মধারয় সমাস)।
১৯. “ফেলাইলা কনক-বলয়।”—নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির সমাস নির্ণয় করো।
Answer : কনক-বলয়—কনক নির্মিত বলয় (মধ্যপদলোপী কর্মধারয় সমাস)।
২০. “ব্রততী বাঁধিলে সাধে করি-পদ।”—নিম্নরেখাঙ্কিত পদটির সমাস নির্ণয় করো।
Answer : করি-পদ—করির পদ (সম্বন্ধ তৎপুরুষ সমাস)।
বাক্য
২১. “কনক-আসন ত্যজি, বীরেন্দ্রকেশরী, ইন্দ্রজিৎ, প্রণমিয়া ধাত্রীর চরণে কহিলা…।”—যৌগিক বাক্যে পরিণত করো।
Answer : বীরেন্দ্র কেশরী ইন্দ্রজিৎ কনক-আসন ত্যাগ করিল এবং ধাত্রীর চরণে প্রণাম _ করিয়া বলিল …।
২২. “শিরঃ চুম্বি, ছদ্মবেশী অম্বুরাশি-সুতা/উত্তরিলা।”—যৌগিক বাক্যে রূপান্তর – করো।
Answer : ছদ্মবেশী অম্বুরাশি-সুতা মস্তক চুম্বন করিল এবং উত্তর দিল।
২৩. “জিজ্ঞাসিলা মহাবাহু বিস্ময় মানিয়া;”—যৌগিক বাক্যে রূপ দাও।
Answer : মহাবাহু বিস্মিত হইলেন এবং জিজ্ঞাসা করিলেন।
২৪. “মহাশোকী রাক্ষ সাধি পতি/সসৈন্যে সাজেন আজি যুঝিতে আপনি।”—জটিল বাক্যে পরিণত করো।
Answer : যে রাক্ষসাধিপতি মহাশোকে আচ্ছন্ন, তিনিই স্বয়ং যুদ্ধ করিবার জন্য সসৈন্যে সজ্জিত হইতেছেন।
২৫. “ছিড়িলা কুসুমদাম রোষে মহাবলী/মেঘনাদ;”—যৌগিক বাক্যে রূপান্তর করো।
Answer : মহাবলী মেঘনাদ ক্রুদ্ধ হইলেন এবং কুসুমদাম ছিড়িয়া ফেলিলেন।
২৬. “সাজিলা রথীন্দ্রভ বীর-আভরণে”—জটিল বাক্যে পরিবর্তন করো।
Answer : যিনি শ্রেষ্ঠ রথীদের মধ্যে প্রধান, তিনি বীর-আভরণে সজ্জিত হইলেন।
২৭. “সতি, বেঁধেছ যে দৃঢ় বাঁধে, কে পারে খুলিতে সে বাঁধে?”—নাস্ত্যর্থক বাক্যে লেখো।
Answer : সতি, যে দৃঢ় বাঁধে বেঁধেছ সেই বাঁধনকে কেহই খুলিতে পারে না।
২৮. “এ মায়া, পিতঃ বুঝিতে না পারি।”—অস্ত্যর্থক বাক্যে লেখো।
Answer : এ মায়া, পিতা বুঝিতে অক্ষম।
২৯. “তবেযদিএকান্তসমরে/ইচ্ছা তব, বৎস, আগে পূজইষ্টদেবে।”—সরলবাক্যে রূপ দাও।
Answer : বৎস, একান্ত সমরে যাইবার ইচ্ছা হইলে ইষ্টদেবতার পূজা পূর্বে করিও।
৩০. হাসিবে মেঘবাহন, রুষিবেন দেব অগ্নি।–মিশ্র বাক্যে পরিণত করো।
Answer : যিনি মেঘবাহন তিনি শুধু হাসিবেন না এবং যিনি ইষ্টদেব সেই অগ্নিদেবও রুষিবেন।
বাচ্য
৩১. “নিশা-রণে সংহারিনু আমি রঘুবরে।”—কর্মবাচ্যে রূপান্তর করো।
Answer : আমা কর্তৃক রঘুবরকে নিশা-রণে সংহার করা হইল।
৩২. “শিরঃ চুম্বি অম্বুরাশি-সুতা/উত্তরিলা।”—ভাববাচ্যে লেখো।
Answer : শিরঃ চুম্বি ছদ্মবেশী অম্বুরাশি-সুতা কর্তৃক উত্তর দেওয়া হইল।
৩৩. “তব শরে মরিয়া বাঁচিল।”—ভাববাচ্যে পরিণত করো।
Answer : তোমার শর কর্তৃক মরিয়া বাঁচা হইল।
৩৪. “জননী কোথায় পাইলে তুমি?”—ভাববাচ্যে রূপ দাও।
Answer : জননী, তোমার কোথায় পাওয়া হইল?
৩৫. “ছিড়িলা কুসুমদাম রোষে মহাবলী/মেঘনাদ।”—বাক্যটির কর্মবাচ্যে রূপ কী হবে?
Answer : ক্রোধান্বিত হইয়া মহাবলী মেঘনাদ কর্তৃক কুসুমদাম ছিড়িয়া ফেলা হইল।
৩৬. “রাক্ষসাধিপতি,/সসৈন্যে সাজেন আজি যুঝিতে আপনি।”—ভাববাচ্যে রূপান্তর করো।
Answer : যুদ্ধ করিবার জন্য স্বয়ং রাক্ষসাধিপতি কর্তৃক সসৈন্যে সাজা হইল।
৩৭. “ঘুষিবে জগতে।”—ভাববাচ্যে লেখো।
Answer : ঘোষিত হইবে জগতে।
৩৮. “হাসিবে মেঘবাহন;”—ভাববাচ্যে রূপ দাও।
Answer : মেঘবাহন কর্তৃক হাসা হইবে।
৩৯. “রুষিবেন দেব/অগ্নি।”—ভাববাচ্যে পরিণত করো।
Answer : দেব অগ্নি কর্তৃক রোযা/ব্লেষিত হওয়া হইবে।
৪০. “উড়িছে কৌশিক-ধ্বজ।”—ভাববাচ্যে রূপান্তর করো।
Answer : কৌশিক ধ্বজের ওড়া হইতেছে।

FILE INFO : Madhyamik Bengali Suggestion – WBBSE with PDF Download for FREE | মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন বিনামূল্যে ডাউনলোড | অভিষেক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত – কবিতা (অতিসংক্ষিপ্ত ও সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর)

File Details:
PDF Name : অভিষেক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত – কবিতা | মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন
Language : Bengali
Size : 496.0 kb 
No. of Pages : 9
Download Link : Click Here To Download
বিভিন্ন স্কুল বোর্ড পরীক্ষা, প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষার সাজেশন, অতিসংক্ষিপ্ত, সংক্ষিপ্ত ও রোচনাধর্মী প্রশ্ন উত্তর (All Exam Guide Suggestion, MCQ Type, Short, Descriptive Question and answer), প্রতিদিন নতুন নতুন চাকরির খবর (Job News in Bengali) জানতে এবং সমস্ত পরীক্ষার এডমিট কার্ড ডাউনলোড (All Exam Admit Card Download) করতে winexam.in ওয়েবসাইট ফলো করুন, ধন্যবাদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here