আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ - দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন | HS Class 12 Bengali Suggestion PDF
আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ - দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন | HS Class 12 Bengali Suggestion PDF

আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন

HS Class 12 Bengali Suggestion PDF

আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন | HS Class 12 Bengali Suggestion PDF : আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন ও অধ্যায় ভিত্তিতে প্রশ্নোত্তর নিচে দেওয়া হল।  এবার পশ্চিমবঙ্গ উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা পরীক্ষায় বা দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা পরীক্ষায় ( WB HS Class 12 Bengali Suggestion PDF  | West Bengal HS Class 12 Bengali Suggestion PDF  | WBCHSE Board Class 12th Bengali Question and Answer with PDF file Download) এই প্রশ্নউত্তর ও সাজেশন খুব ইম্পর্টেন্ট । আপনারা যারা আগামী দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা পরীক্ষার জন্য বা উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা  | HS Class 12 Bengali Suggestion PDF  | WBCHSE Board HS Class 12th Bengali Suggestion  Question and Answer খুঁজে চলেছেন, তারা নিচে দেওয়া প্রশ্ন ও উত্তর ভালো করে পড়তে পারেন। 

আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন | পশ্চিমবঙ্গ উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন/নোট (West Bengal Class 12 Bengali Question and Answer / HS Bengali Suggestion PDF)

পশ্চিমবঙ্গ উচ্চ মাধ্যমিক দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন (West Bengal HS Class 12 Bengali Suggestion PDF / Notes) আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – প্রশ্ন উত্তর – MCQ প্রশ্নোত্তর, অতি সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন উত্তর (SAQ), সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন উত্তর (Short Question and Answer), ব্যাখ্যাধর্মী বা রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর (descriptive question and answer) এবং PDF ফাইল ডাউনলোড লিঙ্ক নিচে দেওয়া রয়েছে

আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ

রচনাধর্মী প্রশ্ন উত্তর | আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন | HS Class 12 Bengali Suggestion :

১. “ তাই প্রজারা বিদ্রোহী হয়ে উঠল । ” — প্রজারা বিদ্রোহী হয়ে উঠেছিল কেন ? কে তাদের বিদ্রোহে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন ? 

উত্তরঃ প্রজারা জমিদারের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী হয়ে ওঠার কারণ ছিল এই যে পঞ্চাশ – ষাট বছর আগে গারো পাহাড়ের নীচে জনপদে একটা আইন ছিল , তাকে বলা হতো হাতিবেগার । জমিদারের বেজায় শখ ছিল হাতি ধরার । সেজন্য জমিদার পাহাড়ে মাচা বাঁধিয়ে নিরিবিলিতে সেপাই সাস্ত্রী নিয়ে বসতেন । কোনো ত্রুটি যাতে না হয় তারা যে জঙ্গলে হাতি থাকত তা বেড় দিয়ে দাঁড়াতে । ছেলে – বুড়ো কারোর ছাড় ছিল কড়াকড়ি ব্যবস্থা ছিল । প্রতিটি গাঁ থেকে প্রজারা চাল – চিড়ে বেঁধে আসতে বাধ্য হে হতো । জমিদারের ওই অত্যাচার মানুষ কতদিন সহ্য করবে । প্রজারা তাই বিদ্রোহী হ হাতি বেড় দেওয়ার সময় কাউকে সাপের দংশনে কাউকে বাঘের মুখে প্রাণ নিয়ে উঠেছিল । তাদের বিদ্রোহে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন গোরচঁাদ মাস্টার নামে এক ব্যক্তি ।

২. সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের ‘ কলের কলকাতা রচনা অবলম্বন করে লেখকের জেলখানা ভ্রমণের বর্ণনা দাও । অথবা , “ চেয়ারের উপর যিনি বসে আছেন , তাকে দেখে নিজের চোখকে বিশ্বাস হচ্ছিল না- চেয়ারের উপর কে বসেছিলেন ? লেখক তাকে কোথায় দেখেছিলেন ? লেখকের স্থান দেখার অভিজ্ঞতা সংক্ষেপে লেখো । অথবা , “ ইংরেজের জেলখানায় হেঁট হয়ে ঢুকতে যা রাগ হচ্ছিল ” — লেখকের জেলখানার ভ্রমণের অভিজ্ঞতার বিবরণ দাও । 

উত্তরঃ ব্রিটিশ পুলিশের হাতে বন্দি রামদুলালবাবুকে দেখতে জেলখানায় গিয়েছিলেন । বালক লেখক । রামদুলালবাবুর দাদার সঙ্গে লেখক ট্রামে চড়ে পৌছান জেলের সিংহদুয়ারে । কিছুক্ষণ পর তাঁরা ভেতরে ঢোকার অনুমতি পান । মাথা নীচু করে জেলে ঢুকতে হয় বলে ক্ষুদ্ধ হন তিনি । লেখকদের পর পরই জেলখানায় পৌঁছায় একটি কয়েদিভ্যান । ভ্যানে থাকা স্বাধীনতার সেনানী ঐ কয়েদিদের ‘ বন্দেমাতরম ‘ স্লোগানে কেঁপে ওঠে জেলখানা । কয়েদিদের সঙ্গে দেখা করার ঘরটিতে পৌঁছে লেখক দেখেন সেখানে বসে রয়েছেন স্বয়ং নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু । একটি মাত্র চেয়ার – টেবিলে সুভাষচন্দ্র বসে থাকলেও শতরঞ্জি পাতা ঘরের মধ্যে অগণিত মানুষের সমাবেশ ঘটেছিল । একের পর এক কয়েদিভ্যান আসছে । সুভাষচন্দ্র এগিয়ে গিয়ে নবাগতদের জড়িয়ে ধরে বলছেন , “ তোমরা এসেছ ? ” 

  জেল ওয়ার্ডারদের নজর এড়িয়ে ভেতরের বন্দিরা মাঝে মাঝে এসে ভিড় করেছিল জালের জানালায় । সিপাহিরা দেখামাত্রই তারা দৌড়ে পালিয়েও যাচ্ছিল । এমনই এক কয়েদি “ শোনো খোকা ” বলে লেখককে ডাকে । নিজের বাড়ির ঠিকানা ও নম্বর জানিয়ে ঐ কয়েদি তার ভালো থাকার খবর বৃদ্ধা মাকে পৌছে দিতে বলে । কিন্তু তার বাড়িতে যাওয়া সম্ভব হয়নি লেখকের । বাইরে বেরিয়ে এসে লেখকের মনে হয় যে রাস্তায় আন্দোলনরত মানুষগুলি জেলের অন্ধকারে দিন কাটাচ্ছে , এর প্রতিদানে তারা কী পাবে ? এসব ভাবতে ভাবতে তিনি হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েন । আর তখন মায়ের মুখে শোনা গান— “ ও তোর শিকল পরা ছল । শিকল পরে শিকলরে তুই করবি যে বিকল ” গাইতে গাইতে চাঙ্গা হয়ে ওঠেন তিনি । প্রসঙ্গত , বালকের কৌতূহলবশত জেলের কয়েদিদের ও জেলখানার পরিবেশ দেখার সুযোগ পেয়ে লেখক যেমন আপ্লুত হয়েছিলেন , তাদের দুর্দশাও তাকে যথেষ্ট ব্যথিত করেছিল ।

৩. “ তোমরা হাত বাড়াও , তাকে সাহায্য করো । ” — লেখক কাকে , কীভাবে , কেন সাহায্য করতে বলেছেন ? 

উত্তরঃ লেখক সুভাষ মুখোপাধ্যায় মাজা পড়ে যাওয়া , হাটতে অক্ষম বারো – তেরো বছরের উলঙ্গ ছেলেটিকে , যে জানোয়ারের মতো চার পায়ে চলে , তাকে সাহায্য করতে বলেছেন । 

  লেখক ওই মাজাভাঙা ছেলেটিকে কীভাবে সাহায্য করা হবে তা – ও বলেছেন । ছেলেটি দু’হাত প্রসারিত ক’রে মাটি ছেড়ে উঠে দাঁড়াতে চায় । সে দাঁড়ানোর জন্য তৎপর ও সচেষ্ট । তার দিকে হাত বাড়িয়ে দিয়ে তাকে ধরে দাঁড়াতে সাহায্য করা হোক । 

  অবশ্য ওই ছেলেটি প্রকৃত পক্ষে দীর্ঘ পরাধীন ও যুদ্ধ – দুর্ভিক্ষের অভিঘাতে ন্যূব্জপৃষ্ঠ বাঙালি জাতির প্রতীক । বাঙালি এখন মাথা তুলে দাঁড়াতে চায় , তাকে হাত ধরে উচ্চশির হয়ে দাঁড়াতে সাহায্য করা হোক । ওই ছেলেটির জ্বলজ্বলে দীপ্ত দু’চোখে শান্তির প্রত্যাশা । সে চায় মাঠের সোনালি ফসলে , চাষির গোলাভরা ধানে শান্তি । সে চায় কলকারখানায় শ্রমিকদের আন্দোলিত মিলিত বাহুতে শাস্তি । সে চায় আর দুর্ভিক্ষ নয় , আর যুদ্ধ নয় , স্বাধীন সুখী জীবন ও পরম শাস্তি । সে জন্য তাকে সাহায্য করা হোক । 

৪. সরু লিকলিকে আঙ্গুল দিয়ে সেই সব খুনীদের সে শনাক্ত করেছে . … .. … .. ” – কেশনাক্ত করেছে ? কাদের কেন ‘ খুনী ’ বলা হয়েছে ?

উত্তরঃ সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের ‘ আমার বাংলা ‘ গ্রন্থের অন্তর্গত ‘ হাত বাড়াও ‘ রচনায় রাজবাড়ির বাজারে বারো – তেরো বছরের মাজা পড়ে যাওয়া শীর্ণকায় যে ছেলেটিকে লেখক দেখেছিলেন তাকে উদ্দেশ্য করেই মন্তব্যটি করা হয়েছে । 

  ফরিদপুরে ট্রেন ধরার জন্য এক কুয়াশায় মোড়া সকালে রাজবাড়ির বাজারে বসেছিলেন লেখক । সেই সময় দূর থেকে চারপায়ে প্রায় জতুর মতো ভঙ্গিমায় এগিয়ে আসতে দেখেছিলেন শীর্ণকায় ছেলেটিকে । সে হাঁটতে অক্ষম , জানোয়ারের মতো বাজারে রাস্তায় খুঁটে খুঁটে চাল আর ছোলা খায় । অসহনীয় এই দৃশ্য দেখে ছুটে স্টেশনে পালিয়ে গেলেও তার জ্বলন্ত চোখ লেখকের জীবনকে তাড়া করে বেড়ায় । শুধু তাই নয় , লেখক সোনা ছড়ানো নদীমালার দিকে তাকিয়ে তার নিঃশ্বাস শুনতে পান । লেখকের মনে হয় সরু লিকলিকে আঙ্গুল দিয়ে সে সেইসব খুনিদের শনাক্ত করছে যারা শহরে , গ্রামে , বন্দরে জীবনকে হত্যা করছে , মানুষের মাথা উঁচু করে বেঁচে থাকার অধিকারকে কেড়ে নিচ্ছে । যারা সমাজের শ্রমের মূল্য দেয় না , যারা মানুষের বেঁচে থাকার স্বপ্নকে হত্যা করছে তাদেরকে সে শনাক্ত করেছে খুনী বলে । 

৫. ‘ দাফার কথা মনে পড়ে- দাফার কথা কখন মনে পড়ে ? দাফার পরিচয় দাও । 

উত্তরঃ দাফা হলো এক অজ্ঞাত কুলশীল ব্যক্তি । মৈমনসিংহ অঞ্চলে সুভাষ মুখোপাধ্যায় এর সঙ্গে তার পরিচয় ললিতেরর বাড়িতে । ছেলেবেলায় দাফা ছিল গোরু চোর ।

  লেখক সুভাষ মুখোপাধ্যায় তার ‘ আমার বাংলা ‘ গ্রন্থে অজ্ঞাত পরিচয় এব ব্যক্তি দাফার পরিচয় দিয়েছেন । ছোটবেলায় সে গোরু চুরি করত । তাতে ধরা পড়ার পর প্রায়শই কপালে জুটতো অমানবিক প্রহার । ফলে সারাগায়ে তার সেই চিহ্ন লেগে থাকত । ললিত তাকে পথ থেকে তুলে এনে গোরুর রাখালির কাজে লাগায় । প্রথমে একটু সে হাবাগোবা ধরনের ছিল , ক্রমে সে পড়াশোনা শিখল , এক কমিউনিষ্ট পার্টির সক্রিয় কর্মীতে পরিণত হলো । একটা সময় সমিতির প্রচার , পার্টির কাজ , হাটে হ্যান্ডবিল বিলি করা , মিটিং এ চোঙা ফোঁকা সব কাজে দাফা সক্রিয় ছিল । 

  এই সহজ সরল দাফা সারাজীবন গ্রামে কাটিয়েছে । কখনও শহর দেখেনি তাই শহরে যাওয়ার বড়ো সাধ ছিল । তবে এই সাধ অপূর্ণই থেকে গিয়েছে । দেশভাগের আগে পূর্ববঙ্গে যে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা শুরু হয়েছিল দাফা তারই শিকার । মৃত্যুর পূর্বেও সে প্রবল লড়াই করেছিল । কিন্তু খালি হাতে বন্ধুকের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পরাজিত দাফা বুকে গুলি লেগে মৃত্যুবরণ করে । 

৬. “ কিন্তু হাতি – বেগার আর চলল না । ” — হাতি – বেগার আইন কী ? তা আর চলল না কেন ? অথবা , “ পঞ্চাশ – ষাট বছর আগে এ অঞ্চলে জমিদারি একটা আইন ছিল । ” — এখানে কোন আইনের কথা বলা হয়েছে ? এই আইনের পরিচয় দাও । 

উত্তরঃ ‘ আমার বাংলা ‘ গ্রন্থের ‘ গারো পাহাড়ের নীচে ‘ রচনাংশে ‘ হাতি – বেগার’আইনের প্রসঙ্গ আছে । এটি একটি জমিদারি আইন , যা গারো পাহাড়ে উনিশ শতকের শেষে আরম্ভ হয় । জমিদার হাতে অস্ত্র নিয়ে গারো পাহারের ওপর মাচা বেঁধে সেপাই – সান্ত্রিদের নিয়ে হাতি শিকার করার জন্য বসে থাকতেন । জমিদার আপদ – বিপদ থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য এই আইন প্রচলন করেছিলেন । উক্ত আইনানুসারে ছেলে – বুড়ো সহ গ্রামের সকল পুরুষ প্রজাকে জঙ্গলে উপস্থিত হতে হতো এবং যে জঙ্গলে হাতি থাকত সে জঙ্গলকে ঘিরে রাখার জন্য তাদের সারি সারি ভাবে দাঁড়িয়ে থাকতে হতো । কিন্তু একাজের বিনিময়ে প্রজাদের কোনো খাবার দেওয়া হতো না । প্রজাদের কোনো নিরাপত্তার ব্যবস্থা না থাকায় সাপের বাঘের কামড়ে অনেককেই মরতে হতো । 

  জমিদারের বিলাসবহুল এই জঘন্য আইন প্রজারা মেনে নিতে পারেনি । গারো পাহাড়িরা গোরাচঁাদ মাস্টারের নেতৃত্বে এই আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার জন্য মিটিং করে । প্রজারা এই আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার জন্য মিটিং করে এবং কামারশালায় অস্ত্রশস্ত্র তৈরি করে । বিদ্রোহী প্রজারা জমিদারকে পরাজিত করতে না পারলেও জমিদার এই আইন চালু রাখতে সাহস পাননি । এভাবেই ‘ হাতি – বেগার ‘ আইনের অবসান ঘটে ।

৭. গারো পাহাড়ের নীচে যারা বাস করে তাদের জীবনযাত্রার সংক্ষিপ্ত বর্ণনা দাও ।

উত্তরঃ গারো পাহাড়ের নীচে বিভিন্ন জাতি অধিবাসীর বসবাস । তাদের মধ্যে রয়েছে গারো , হাজং , ডালু , কোচ , বানাই , মার্গান প্রভৃতি উপজাতি । তারা সকলেই প্রায় নৃতাত্ত্বিক পরিচয়ে মঙ্গোলীয় ধাঁচের , কেন – না তাদের চোখে – মুখে পাহাড়ি ছাপ । আর তারা সকলেই পাহাড়ি জমিতে কঠোর পরিশ্রমে চাষআবাদ করে জীবিকা নির্বাহ করে । এদের মধ্যে গারোরা প্রত্যেকেই মাচার উপর ঘর বেঁধে বাস করে । রান্নাবান্না – খাওয়া শোয়া সবই সেই মাচার উপর । এটা আসলে তাদের পাহাড়ি স্বভাব । পাহাড়ি জানোয়ারের আক্রমণ থেকে বাঁচার জন্যই তাদের এমন উচ্চাসনে বাস । 

  হাজংরাই নাকি এই অঞ্চলের সংখ্যাগুরু অধিবাসী । তারাই নাকি এখানে প্রথম এসে পাহাড়ি জঙ্গল হাসিল করে , আবাদ করে এবং স্থায়ী আবাস গড়ে তোলে । হাজরো চাষআবাদে দারুণ দক্ষ । প্রথমাবস্থায় চাষের কাজে তাদের কোনো জুড়ি ছিল না বলে অন্যেরা তাদের নাম দিয়েছিল ‘ হাজং ’ ‘ হাজং ’ শব্দের অর্থ পোকা । চাষে দক্ষ বা চাষের পোকা বলেই তাদের এমন নামকরণ । যদিও এখানকার অধিবাসীরা পর্যাপ্ত ফসল ফলালে ও জমিদারের অত্যাচারে এবং মহাজনী শোষণে চাষের ফসল তারা ঘরে তুলতে পারে না বলে তাদের মুখেচোখে অশান্তির একটা কালো ছায়া লক্ষ করা যায় । 

FILE INFO : HS Class 12 Bengali Suggestion PDF Download for FREE | দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন বিনামূল্যে ডাউনলোড করুণ | আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – MCQ প্রশ্নোত্তর, অতি সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন উত্তর, সংক্ষিপ্ত প্রশ্নউত্তর, ব্যাখ্যাধর্মী প্রশ্নউত্তর

PDF Name : আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন | HS Class 12 Bengali Suggestion PDF

Price : FREE

Download Link : Click Here To Download

পশ্চিমবঙ্গ উচ্চ মাধ্যমিক  বাংলা পরীক্ষার সম্ভাব্য প্রশ্ন উত্তর ও শেষ মুহূর্তের সাজেশন ডাউনলোড। দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা পরীক্ষার জন্য সমস্ত রকম গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন। West Bengal HS  Bengali Suggestion Download. WBCHSE HS Bengali short question suggestion. HS Class 12 Bengali Suggestion PDF download. HS Question Paper  Bengali. WB HS 2022 Bengali suggestion and important questions. HS Class 12 Bengali Suggestion PDF.

Get the HS Class 12 Bengali Suggestion PDF by winexam.in

 West Bengal HS Class 12 Bengali Suggestion PDF  prepared by expert subject teachers. WB HS  Bengali Suggestion with 100% Common in the Examination.

Class 12th Bengali Suggestion

West Bengal HS  Bengali Suggestion Download. WBCHSE HS Bengali short question suggestion. HS Class 12 Bengali Suggestion PDF  download. HS Question Paper  Bengali.

দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – প্রশ্ন উত্তর |  WB HS Bengali  Suggestion

দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা (HS Bengali) আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – প্রশ্ন উত্তর। দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – প্রশ্ন উত্তর |  WB HS Bengali  Suggestion

আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | HS Bengali Suggestion

দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা পশ্চিমবঙ্গ উচ্চ মাধ্যমিক বোর্ডের (WBCHSE) সিলেবাস বা পাঠ্যসূচি অনুযায়ী  দ্বাদশ শ্রেণির বাংলা বিষয়টির সমস্ত প্রশ্নোত্তর। সামনেই উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা, তার আগে winexam.in আপনার সুবিধার্থে নিয়ে এল আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা সাজেশন | HS Bengali Suggestion । বাংলা বিষয়ে ভালো রেজাল্ট করতে হলে অবশ্যই পড়ুন আমাদের দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন বই ।

আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – দ্বাদশ শ্রেণির বাংলা সাজেশন | West Bengal Class 12th Suggestion

আমরা WBCHSE উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার বাংলা বিষয়ের – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – দ্বাদশ শ্রেণির বাংলা সাজেশন | West Bengal Class 12th Suggestion আলোচনা করেছি। আপনারা যারা এবছর দ্বাদশ শ্রেণির বাংলা পরীক্ষা দিচ্ছেন, তাদের জন্য আমরা কিছু প্রশ্ন সাজেশন আকারে দিয়েছি. এই প্রশ্নগুলি পশ্চিমবঙ্গ দ্বাদশ শ্রেণির বাংলা পরীক্ষা  তে আসার সম্ভাবনা খুব বেশি. তাই আমরা আশা করছি HS বাংলা পরীক্ষার সাজেশন কমন এই প্রশ্ন গুলো সমাধান করলে আপনাদের মার্কস বেশি আসার চান্স থাকবে।

দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ | HS Class 12 Bengali Suggestion with FREE PDF Download

Bengali Class XII, Bengali Class Twelve, WBCHSE, syllabus, HS Bengali, HS engraji, দ্বাদশ শ্রেণি বাংলা, ক্লাস টোয়েলভ বাংলা, উচ্চ মাধ্যমিকের বাংলা, বাংলা উচ্চ মাধ্যমিক – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ, দ্বাদশ শ্রেণী – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ, উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ, ক্লাস টেন আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ, HS Bengali – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ, Class 12th আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ, Class X আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ, ইংলিশ, উচ্চ মাধ্যমিক ইংলিশ, পরীক্ষা প্রস্তুতি, রেল, গ্রুপ ডি, এস এস সি, পি, এস, সি, সি এস সি, ডব্লু বি সি এস, নেট, সেট, চাকরির পরীক্ষা প্রস্তুতি, HS Suggestion, HS Suggestion , HS Suggestion , West Bengal Secondary Board exam suggestion, West Bengal Higher Secondary Board exam suggestion , WBCHSE , উচ্চ মাধ্যমিক সাজেশান, উচ্চ মাধ্যমিক সাজেশান , উচ্চ মাধ্যমিক সাজেশান , উচ্চ মাধ্যমিক সাজেশন, দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশান ,  দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশান , দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা , দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা, মধ্যশিক্ষা পর্ষদ, HS Suggestion Bengali , দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – সাজেশন | HS Class 12 Bengali Suggestion PDF PDF, দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – সাজেশন | HS Class 12 Bengali Suggestion PDF PDF, দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – সাজেশন | দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – সাজেশন | HS Class 12 Bengali Suggestion PDF PDF, দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – সাজেশন | HS Class 12 Bengali Suggestion PDF PDF,দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – সাজেশন | HS Class 12 Bengali Suggestion PDF PDF, দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা – আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – সাজেশন | HS Class 12 Bengali Suggestion PDF, HS Bengali Suggestion PDF ,  West Bengal Class 12 Bengali Suggestion PDF.

  এই (আমার বাংলা (সুভাষ মুখোপাধ্যায়) পূর্ণাঙ্গ সহায়ক গ্রন্থ – দ্বাদশ শ্রেণীর বাংলা সাজেশন | HS Class 12 Bengali Suggestion PDF) পোস্টটি থেকে যদি আপনার লাভ হয় তাহলে আমাদের পরিশ্রম সফল হবে। আরোও বিভিন্ন স্কুল বোর্ড পরীক্ষা, প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষার সাজেশন, অতিসংক্ষিপ্ত, সংক্ষিপ্ত ও রোচনাধর্মী প্রশ্ন উত্তর (All Exam Guide Suggestion, MCQ Type, Short, Descriptive Question and answer), প্রতিদিন নতুন নতুন চাকরির খবর (Job News in Bengali) জানতে এবং সমস্ত পরীক্ষার এডমিট কার্ড ডাউনলোড (All Exam Admit Card Download) করতে winexam.in ওয়েবসাইট ফলো করুন, ধন্যবাদ।

Win exam telegram channel

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here