ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর | History Question and Answer PDF
ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর | History Question and Answer PDF

ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর | History Question and Answer

ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর | History Question and Answer : বন্ধুরা, আজকে আপনাদের জন্য আলোচনা করা হলো ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর | History Question and Answer । স্কুল, কলেজ ও সমস্ত সরকারি চাকরীর পরীক্ষাতে বা প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষার জন্য (All Comparative Exam: WBPSC, WBCS, WBP SI, WBP Constable, SSC, School Service, Railway exam etc) ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস খুবি গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। এই ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর | History Question and Answer পড়লেই নিশ্চিত কমন পাবেন।

  ইতিহাসে ভালো রেজাল্ট করতে হলে অবশ্যই পড়ুন এই ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর | History Question and Answer in Bengali । আপনারা যারা বিভিন্ন পরীক্ষার জন্য ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর | History Question and Answer in Bengali খুঁজে চলেছেন, তারা নিচে দেওয়া প্রশ্ন ও উত্তর ভালো করে পড়তে পারেন। সাথে পিডিফ ফাইলের ডাউনলোড (PDF File Download) লিঙ্ক নীচে দেওয়া হয়েছে।

ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস

ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ : ক্রীতদাস রাজবংশের মধ্যে তিনটি বংশ যেমন – কুতব – উদ – দিন – আইবক , ইলতুতমিস বংশ ছিল ক্রীতদাস বংশ এবং তারা প্রভুকর্তৃক মুক্ত হয়েছিল । এবং একে ইলাবরি রাজত্বকাল বলা হত কারণ আইবক ছাড়া এই বংশের শাসকেরা ছিলেন তুরস্কের ইলাবরি জাতির অন্তর্ভুক্ত । 

কুতব – উদ – দিন – আইবক ( ১২০৬-১২১০ ) :

  • ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ তার ভারতের অধিকার ঘােরির হাতে ছেড়ে দেন । তার প্রভুর মৃত্যুর পর রাজ্যশাসন করতেন এবং রাজস্থাপন করেন ।
  • লাহাের এবং পরর্তীকালে দিল্লি তার রাজধানী ছিল ।
  • তার মহানুভবতার জন্য বিখ্যাত ছিলেন এবং লাখ – বাখ ( লক্ষ লক্ষের দাতা ) তার ডাকনাম ছিল । 
  • বিখ্যাত সুফিসেন্ট খাজা কুতবুদ্দিন বখতিয়ার কাকির নামে তিনি কুতুব মিনার এর ভিত্তি নির্মাণ করেন । 
  • চৌগান ( পপালাে ) খেলার সময় ঘােড়ার পিঠ থেকে পড়ে গিয়ে তার মৃত্যু হয় । তুরস্কীয়রাই ভারতে পােলাে খেলার প্রবর্তন করেন । 
  • দিল্লিতে কোয়ায়ত – উল – ইসলাম নামে এবং আজমীরে ( সােনাপাড়া ) আদাই – দিন – কা নামে ভারতে প্রথম মসজিদ নির্মাণ করেন । 
  • তিনি একজন মহান বিদ্যোৎসাহী ছিলেন এবং তাজ – উল – মাসির লেখক হাসান নিজামি এবং তারিখ – ই মুবারকশাহীর – র লেখক ফকরুদ্দিন – এর পৃষ্ঠপােষক ছিলেন । 

আরাম শাহ ( ১২১০ ) :

  • যখন লাহােরে হঠাৎ কুতব – উদ – দিন আইবক মারা যান তখন লাহােরের আমির ও মালিকগণ আরাম শাহকে সিংহাসনে বসান । কিছু কিছু পাঠ্য বইয়ে লেখা আছে যে তিনি হলেন আইবক – এর পুত্র আবার অনেকে একথা অস্বীকার করে । 
  • তিনি ছিলেন দুর্বল ও অকর্মণ্য সে কারণে দিল্লির জনসাধারণ তাকে ত্যাগ করেন । সেই সময়কার বাউলের শাসনকর্তা ইলতুতমিস তাকে পরাজিত করেন এবং সিংহাসন দখল করেন । 

ইলতুত মিস ( ১২১০-১২৩৬ ) :

  • সামসুদদিন ইলতুতমিস ছিলেন আইবকের জামাতা । তাকে তুরস্কের ক্রীতরাজাদের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ বলে বিবেচিত করা হয় । এবং তিনিই ভারতে তুরস্ক শাসন দৃঢ় করেন ।
  • তিনি রণথম্বর , জালাের , গােয়ালিয়র , আজমির এবং মালওয়া – র রাজপুত্রদের বিদ্রোহ দমন করেন । 
  • ইরানের শাসনকর্তা খান জালালুদ্দিন মাগাবারানি কে অস্বীকার করে চেঙ্গি খানের আত্মমণকে তিনি প্রতিহত করেন । রাজনৈতিক নিপুণতার দ্বারা তিনি মঙ্গল আক্রমণও প্রতিরােধ করেন । 
  • বাগদাদের খলিফা কর্তৃক দিল্লির সুলতান হিসাবে স্বীকৃতি লাভ করেন । এবং ইসলামিক রাষ্ট্রের বিশ্ব ভ্রাতৃত্বের সভ্য হন । 
  • চল্লিশজন শক্তিশালী তুরস্কীয় সম্রান্ত বর্গকে দমন করতে টারকান – ই – চাচাল গানি বা চালিশা গঠন করেন।
  • তিনি ইকতা প্রথার প্রচলন করেন – মাহিনার পরিবর্তে ভূমিদান – তিনি রাজকর্মচারীদের মধ্যে বন্টন করেন । প্রত্যেক ইকতারগণকে আইন ও আদেশ মেনে চলতে হত এবং রাজস্ব আদায় করতে হত । তার মাহিনা , এবং সরকারের খরচ বাদ দিয়ে উদবৃত্ত আয় কেন্দ্রিয় সরকারের কাছে পাঠাতে হত । ইকতারগণকে বদলি করা হত । 
  • সুলতানরাজত্বে তিনি রুপার টঙ্কা এবং তামার জিতাল ( মুদ্রা ) দুরকমের মূল মুদ্রা চালু করেন । 
  • তাবাকত – ই – নাসিরি – র লেখক সিনহাজ – উল – সিরাজ – এর পৃষ্ঠপােষক ছিলেন । দিল্লিতে সুলতান গরহি নির্মাণ করেন এবং তাকে সমাধি নির্মাণের জনক বলা হয় । রাজিয়কে পরবর্তী উত্তরা ঘােষণা করে তিনি সাধারণ অবস্থা থেকে বিচ্যুত হয়েছিলেন । 

কুতুব মিনার :

দিল্লির কুতব মিনার পৃথিবীর মধ্যে উচ্চতম ইটের তৈরি স্মৃতিস্তম্ভ । এটি ৭২.৫ মিটার ( ২৩৯ ফুট ) উঁচু । এর ব্যাস ১৪.৩ মিটার এবং উঁচুতলাটির ব্যাস হল ২.৭ মিটার । আফগানিস্তানের জাম – এর স্মৃতিস্তম্ভের ওপর অনুপ্রাণিত হয়ে এবং এটির থেকে বেশি উঁচু স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণের ইচ্ছা প্রকাশ করে ১১৯৩ খ্রিস্টাব্দে আইবকে কুতুব মিনার নির্মাণের কাজ শুরু করেন । কিন্তু এটির নীচের অংশটির নির্মাণ সম্পূর্ণ করেন । তার । উত্তরসূরি ইলতুতমিস আরও তিনটি তলা সম্পূর্ণ করেন এবং ১৩৬৮ খ্রিস্টাব্দে ফিরােজ শাহ তুঘলক পঞ্চম এবং সর্বশেষ তলাটি নির্মাণ করেন । স্থাপত্য শৈলির উন্নয়ন এই স্মৃতিস্তম্ভ আইবক থেকে তুঘলকের স্বান বহন করে । লাল বেলে পাথর দিয়ে এটি নির্মিত এবং কোরানের শ্লোক এর মধ্যে লিখিত আছে । এই সুন্দর সৌধ নির্মাণের উদ্দেশ্য সম্বন্ধে অনুমান করা যায় যে এটির ভূমিকা পৃথক — মসজিদে নামাজ পড়ার জন্য ডাক দেওয়ায় এটির নাম হয় কোয়ায়ত – উল – ইসলাম । মসজিদ । এর ব্যবহারের অন্যান্য কারণ হল – এটি একটি বিজয়স্তম্ভ , ইসলামের শক্তির তাৎপর্য বহন করে বা সেনাবাহিনীর লক্ষরাখা সৌধ হিসাবে ব্যবহার করা । আলা – উদ – দিন খলজি কুতুব মিনারের কাছে আলাই মিনার অন্য একটি সৌধ নির্মাণ শুরু করেছিলেন যেটি কুতুব মিনার তুলনায় দ্বিগুণ । উচ্চতা বিশিষ্ট হত । যদিও আলা – উদ – দিন ২৪.৫ মিটার উচ্চতা বিশিষ্ট প্রথম তলাটি নির্মাণ করেছিলেন কিন্তু তার মৃত্যুর পর এর কাজ বন্ধ হয়ে যায় । আইবক কর্তৃক কোয়ায়ত – উল – ইসলাম মসজিদ নামে । এই কুতুব মিনারটি নির্মিত হয় । কথিত আছে যে ২৯ টি হিন্দু মন্দির এবং উজন মন্দির ধ্বংস করে । এটি নির্মিত হয় । ১২৩৫ খ্রিস্টাব্দে সম্রাট কর্তৃক কোয়ায়ত – উল – ইসলাম মসজিদের পশ্চিমে । ইলতুতমিসের স্মৃতিস্তম্ভ নির্মিত হয় । এই সৌধের মনােরম সিংহদ্বার হল আলা – ই – দরওয়াজা । এটি আলা – উদ – দিন খলজি কর্তৃক নির্মিত । কুতুব মিনারের পিছনে নির্মিত লৌহস্তম্ভটি পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের কৌতুহল উদ্রেক করে । এই স্তম্ভটি শতকরা ৯৮ ভাগ শক্ত , নমনীয় যে লােহায় মরচে ধরে না সেই লােহার তৈরি । এটির উচ্চতা ( ৭.২১ মিটার ) বা ২৩ ফুট ৮ ইঞ্চি লম্বা এবং এর ব্যাস ১৬ ইঞ্চি ( ০.৪১ মিটার ) । গুপ্ত রাজবংশের চন্দ্রগুপ্ত দ্বিতীয় বিক্রমাদিত্য এটি নির্মাণ করেন । ১৬০০ বছর ধরে এটি একইভাবে দণ্ডায়মান , স্থপতি এবং আবহবিদদের এটি দৃষ্টি আকর্ষণ করে । এটির চারিদিকে একটি বেড়া দেওয়া আছে কারণ জনশ্রুতি আছে যে কেউ যদি এটা তার পিঠ স্পর্শ করতে পারে বা এটির পিছনে হাত স্পর্শ করতে পারে তাহলে সে সৌভাগ্যবান হয় । 

রুনুদ্দিন ফিরােজ শাহ (১২৩৬ খ্রিস্টাব্দ):

  • ইলতুতমিসের অনেক পুত্র ছিল কিন্তু তারা সিংহাসনে আরােহণের অযােগ্য সেকারণে তিনি তার কন্যা রাজিয়াকে উত্তসূরি নির্বাচিত করলেন । ইহা সত্ত্বেও রাজসভার গণ্যমান্যগণ স্ত্রীলােকের কাছে মাথা নত করতে চাননি । চেয়েছিলেন তাঁর কনিষ্ঠ পুত্র রুকনুদ্দিন ফিরােজ শাহকে সিংহাসনে বসাতে । কিন্তু তিনিও ছিলেন অপদার্থ । 
  • তিনি হাতির পিঠে চড়ে দিল্লি শহর প্রদক্ষিণ করতে ভালােবাসতেন এবং জনসাধারণে সােনাদানা । দান করতে ভালাে বাসতেন । সরকারি কাজকর্ম তার উচ্চকাঙক্ষী মায়ের হাতে সপে দিয়েছিলেন । তার মা ছিলেন আসলে একজন তুরস্কীয় । অল্প বয়সে তাকে যারা জ্বালাতন করত তাদের প্রতি তিনি প্রতিশােধ নিতে চেয়েছিলেন । 
  • একারণে চারিদিকে বিদ্রোহ মাথা চাড়া দিল । সর্বশেষে রুকনুদ্দিন ও তার মা মারা গেলেন এবং রাজিয়া সিংহাসনে আরােহণ করলেন । 

রাজিয়া ( ১২৩৬-১২৪০ খ্রিস্টাব্দ ) :

  • মধ্যযুগে ভারতে রাজিয়া হলেন প্রথম এবং শেষ মহিলা শাসনকর্তা । ১২৩৬ খ্রিস্টাব্দে তাঁর ভাইয়ের পরে তিনি সিংহাসনে আরােহণ করেন এবং সাড়ে তিন বছর রাজত্ব করেন ।
  • তিনি পর্দাপ্রথাকে অসম্মান করতেন এবং পুরুষের পােশাক পরিধান করতেন ও হাতির পিঠে চড়ে জনসাধারণের সামনে উপস্থিত হতেন । 
  • তিনি জামালুদ্দিন ইয়াকত নামে একজন আবেসনীয়কে আস্তাবলের গুরুত্ব পদের প্রধান হিসাবে নিযুক্ত করলেন । এর ফলে তুরস্কীয় গণ্যমান্য কর্মচারীগণ কুপিত হলেন । তার রাজ্যে বিভিন্ন অংশে বিদ্রোহ দেখা দিল । লাহােরের শাসনকর্তা প্রথম তার বিরােধিতা করলেন কিন্তু তিনি পরাজিত হলেন । 
  • ভাতিন্দায় ভয়ংকর বিদ্রোহ দেখা দিল । ভাতিন্দার শাসনকর্তা মালিক ইখতিয়ার উদ্দিন আলতানিয়া রাজিয়ার আনুগত্য মানতে অস্বীকার করলেন । ইয়াকতকে সঙ্গে নিয়ে রাজিয়া আলতানিয়ার বিরুদ্ধে সৈন্য পরিচালনা করলেন । পথে আলতানিয়ার অনুচয়েরা ইয়াকতকে হত্যা এবং রাজিয়াকে বন্দি করল । তিনি এই পরিস্থিতি সামলাতে আলতানিয়াকে বিবাহ করলেন । কিন্তু দিল্লি ফেরার পথে ইলতুতমিসের পুত্র বাহরাম শাহের হাতে তিনি ও তার স্বামী নিহত হলেন । 
  • নিজ সৈন্যদলে রাজিয়া ছিলেন শ্রেষ্ঠ অশ্বারােহী । তার একমাত্র সমস্যা ছিল তিনি একজন মহিলা ।

বলবন ( ১২৬৬-১২৮৬ খ্রিস্টাব্দ ) :

  • বলবন চালসার সদস্য ছিলেন । নিজেকে রক্ষা করার জন্য ইলতুতমিসের প্রতিটি সদস্যকে হত্যা করেন এবং তুরস্কীয় গণ্যমান্যদের মৃত্যু – আঘাত দেন ( চালিসা ) । তিনি সৈন্যবিভাগ ও অর্থবিভাগের পৃথকীকরণ করেন ( দেওয়ান – ই উইজারত ) এবং সৈন্যবিভাগকে প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর অধীনে আনেন । ( দেওয়ান – ই – আরিজ ) । 
  • তিনি ঘােষণা করেন সুহান – ই – হল পৃথিবীতে ভগবানের প্রতিনিধি । তিনি জোর দিয়ে জনগণকে বলেন যে সম্রাট হলেন ভগবানের অধীন ( ঐয়াবাত – ই – খুদায়ই ) এবং ভগবানের ছায়া এবং সেখানে জনসাধারণ নতজানু হয়ে মাথা নত করে ভূমি স্পর্শ করে সুলতানকে অভিবাদন করবে । তিনি উলেমাদের ধর্মীয় কাজে নিয়ােজিত থাকতে বললেন কিন্তু রাজনীতিতে অংশগ্রহণ না করার আদেশ প্রচলন করেন । তিনি নৌরাজ উৎসব শুরু করলেন । 
  • জনসাধারণের বিশ্বাস অর্জনের জন্য তিনি সম্পূর্ণ পক্ষপাতহীন ভাবে শাসনকার্য পরিচালনার কথা বলেন । তিনি দক্ষ গােয়েন্দা বাহিনীর প্রচলন করেন । পারস্য সাহিতে প্রতি তার নমণীয় । মনােভাব পরিলক্ষিত হয় , আমির ঘসরুর প্রতি তিনি বিশেষ অনুরাগ প্রদর্শন করেন । 
  • তিনি স্বজাতির প্রতি গভীরভাবে অনুরক্ত ছিলেন এবং অতুরস্কীয়দের শাসনব্যবস্থায় অংশগ্রহণের বাইরে রেখেছিলেন । মঙ্গালদের বিরুদ্ধে সীমান্তবর্তী এলাকায় সেনাবাহিনী শক্তিশালী করেছিলেন । মঙ্গলদের বিরুদ্ধে সীমান্তবর্তী এলাকায় সেনাবাহিনী শক্তিশালী করেছিলেন । 
  • কিন্তু তার পুত্রের মৃত্যুতে বলবন বিরাট আঘাত পেয়েছিলেন এবং এটি ছিল তাঁর রাজত্বের মৃত্যুঘণ্টা ।
  • বলবনের মৃত্যুর পর কৈকুবাদ ( ১২৮৭-১২৯০ খ্রিস্টাব্দ ) সিংহাসনে আরােহণ করেন কিন্তু তিনি ছিলেন অদক্ষ এবং কৌতুকপ্রিয় ।

FILE INFO : ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর | History Question and Answer with PDF Download for FREE

PDF Name : ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস | History Question and Answer PDF

Formet : PDF File

Price : Free

Download Link : Click Here To Download

Get the History Suggestion Question and Answer by winexam.in

 West Bengal and All India Job preparation  Suggestion Question and answer prepared by expert subject teachers. History Suggestion with 100% Common in the Examination.

History Suggestion Question and Answer

History Suggestion Question and Answer Download. History short question suggestion. All Comparative exam History Suggestion  download. History All exam Question Paper  download.

ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর – History Question and Answer in Bengali

ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস – প্রশ্ন উত্তর | ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর (History Question and Answer in Bengali) । ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস – প্রশ্ন উত্তর | ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর (History Question and Answer in Bengali)।

ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর – History Question and Answer in Bengali

ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ ইতিহাস – প্রশ্ন উত্তর | ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর (History Question and Answer in Bengali) । ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ ইতিহাস – প্রশ্ন উত্তর | ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর (History Question and Answer in Bengali)। ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ ইতিহাস – প্রশ্ন উত্তর

মধ্যযুগের ভারত ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর – History Question and Answer in Bengali

মধ্যযুগের ভারত ইতিহাস – প্রশ্ন উত্তর | ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর (History Question and Answer in Bengali) । মধ্যযুগের ভারত ইতিহাস – প্রশ্ন উত্তর | ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর (History Question and Answer in Bengali)। মধ্যযুগের ভারত ইতিহাস প্রশ্ন ও উত্তর।

ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস সাজেশন – History Suggestion

ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস সাজেশন পশ্চিমবঙ্গ তথা ভারতবর্ষের সমস্ত চাকরির পরীক্ষার সিলেবাস বা পাঠ্যসূচি অনুযায়ী  ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস বিষয়টির সমস্ত প্রশ্নোত্তর। সামনেই পরীক্ষা, তার আগে winexam.in শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে নিয়ে এল ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস – প্রশ্ন উত্তর । ইতিহাসে ভালো রেজাল্ট করতে হলে অবশ্যই পড়ুন । আমাদের ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্ৰশ্ন ও উত্তর

ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস – প্রশ্ন ও উত্তর | History Suggestion Question and Answer with FREE PDF Download

WBCS History, School Service History, SSC History, History GK, History Quiz, History QNA, History FAQ, বিভিন্ন পরীক্ষা প্রস্তুতি, রেল, গ্রুপ ডি, এস এস সি, পি, এস, সি, সি এস সি, ডব্লু বি সি এস, নেট, সেট, চাকরির পরীক্ষা প্রস্তুতি, ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস ,  ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস প্রসব ও উত্তর, ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস | History Suggestion PDF, 

  এই “ইলাবরি রাজবংশ বা ক্রীতদাস রাজবংশ (মধ্যযুগের ভারত) ইতিহাস | History PDF” পোস্টটি থেকে যদি আপনার লাভ হয় তাহলে আমাদের পরিশ্রম সফল হবে। আরোও বিভিন্ন স্কুল বোর্ড পরীক্ষা, প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষার সাজেশন, অতিসংক্ষিপ্ত, সংক্ষিপ্ত ও রোচনাধর্মী প্রশ্ন উত্তর (All Exam Guide Suggestion, MCQ Type, Short, Descriptive Question and answer), প্রতিদিন নতুন নতুন চাকরির খবর (Job News in Physical Science) জানতে এবং সমস্ত পরীক্ষার এডমিট কার্ড ডাউনলোড (All Exam Admit Card Download) করতে winexam.in ওয়েবসাইট ফলো করুন, ধন্যবাদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here